ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 

logo

 

 

 

 

 

 

 

 

 

Ruins of Poverty একটি স্বেচ্ছাসেবী গ্রুপ। দীর্ঘ চার বছর ধরে বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছে গ্রুপটি। বিশেষ করে পথশিশু ও হতদরিদ্র শিশুদের নিয়ে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা আছে আমাদের ছোট্ট গ্রুপটির। আমাদের আয়োজিত বিভিন্ন কার্যক্রমগুলো একনজরে ঘুরে দেখে আসতে পারেন গ্রুপ ও এই লিংকে গিয়ে। নানা সময়ে ব্লগবিডিনিউজ২৪ডটকমের ব্লগারগণ আমাদের বিভিন্ন কার্যক্রমে অংশ নিয়েছেন। ২০১২ সালে ব্লগ এবং গ্রুপের যৌথ উদ্যোগে রাজশাহীর চরখিদিরপুরে প্রায় পাঁচশতাধিক শীতার্ত মানুষকে শীতবস্ত্র প্রদান করতে পেরেছিলাম আমরা। আমাদের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল দরিদ্র শিশুদের জন্য একটি অবৈতনিক স্কুল প্রতিষ্ঠা করার। কয়েকজন সুহৃদ সহযোদ্ধার আশ্বাসের প্রেক্ষিতে আমরা স্বাধীনতার মাস মার্চের ১ তারিখে এয়ারপোর্ট সংলগ্ন কাওলার তেঁতুলতলা বস্তীর সুবিধাবঞ্চিত ও দরিদ্র শিশুদের জন্য একটি অবৈতনিক স্কুল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছি।
বস্তিবাসী সমাজের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর শিশুদের জন্য একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করতে গেলে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ফাণ্ড গঠন। প্রাথমিক, মাসিক ও বাৎসরিক একটি ফাণ্ড গঠন করতে পারলে আমরা সহজেই এগিয়ে যেতে পারবো আমাদের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যার্জনের পথে। এজন্য সমাজের বিত্তবান এবং সহৃদয়বান মানুষের কাছে সহযোগিতা চেয়ে ব্লগ ও অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমে এই পোস্টটি প্রকাশ করেছি।sss
খরচাপাতিঃ
১. প্রাথমিক খরচঃ
ডেকারেশন ও বই-খাতা,কলম বাবদ প্রায় ২০০০০টাকা।

২. মাসিক খরচঃ
স্কুল ভবন ভাড়াঃ ৫০০০-৭০০০টাকা
খাতা-কলমঃ ৫০০০টাকা [৫০জন স্টুডেন্ট*ন্যুনতম ১০০টাকা]
দুইজন স্থায়ী শিক্ষকঃ ৪০০০-৫০০০টাকা [ভলান্টিয়ার পেলে এই খরচ লাগবে না]
বিদ্যুৎ বিল ও অন্যান্যঃ ৫০০০টাকা
সর্বমোটঃ ২০০০০/২২০০০টাকা।
উপরোক্ত খরচগুলোর মাঝ থেকে স্কুল ভবন ভাড়া বাবদ যে টাকা খরচ হবে সেটি এলসন ফুড প্রোডাক্টস বহন করবেন বলে কথা দিয়েছেন। আমাদের গ্রুপের প্রধান উপদেষ্টা এবং বিডি-নিউজ২৪ডটকম সর্বজন শ্রদ্ধেয় কবি ও ব্লগার নুরুন্নাহার শিরীন এই স্পন্সরশীপের ব্যবস্থা করেছেন।

সকলে মিলে নিয়মিত/মাসিক ফাণ্ডিং এর জন্য বাকি ১৫০০০-১৭০০০ টাকা ম্যানেজ করতে পারলে আমরা স্কুলের কাজে হাত দিতে পারবো এবং মহান স্বাধীনতার মাস মার্চের ১ তারিখেই উদ্বোধন করতে পারবো স্বপ্নের স্কুল ‘স্বপ্নপুর‘। এজন্য এই উদ্যোগে সহব্লগার ও সমাজের হৃদয়বান বন্ধুদের কাছে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে আন্তরিক আহ্বান জানাচ্ছি। আসুন না সবাই মিলে বাস্তবায়ন করি একটি স্বপ্নের, সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে ছড়িয়ে দেই শিক্ষার আলো। সবাই মিলে যে যাই পারি না কেন প্রতিমাসে যার যার সাধ্যমতো স্কুল ফান্ডে সহায়তা প্রদান করলে এই স্বপ্ন বাস্তবায়ন কঠিন কিছু নয়। সবার আন্তরিক অংশগ্রহণই পারে একদল স্বপ্নবাজ তরুণের [যাদের প্রায় সবাই ছাত্র] স্বপ্ন পূরণ করতে।
একনজরে গ্রুপের কয়েকটি কার্যক্রম
Ruins of Poverty স্কুল প্রতিষ্ঠা কমিটিঃ
ছোট করে দুইটি কমিটি আছে আমাদের গ্রুপের। একটি উপদেষ্টা কমিটি এবং অন্যটি ভলান্টিয়ার/সাধারণ সদস্য কমিটি। আমাদের বিভিন্ন কাজে আর্থিক, মানসিক এবং ভলান্টিয়ার সেবা দিয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতা করে আসছেন কমিটির সদস্যগণ।

 

উপদেষ্টা কমিটি-
ব্লগার,কবি ও সাহিত্যিক নুরুন্নাহার শিরীন [প্রধান উপদেষ্টা]
ব্লগার জুলফিকার যুবায়ের [উপদেষ্টা]
ব্লগার মজিবার রহমান [উপদেষ্টা]
কামরুল ইসলাম শিপু [উপদেষ্টা]
তাহিরা রহমান [উপদেষ্টা]
ব্লগার মনির হোসেন [উপদেষ্টা]

সাধারণ সদস্য-
আশিকুল ইসলাম, মিথুন মিঠু,নুসরাত অভি ,বিপ্রজিত মণ্ডল, রুদ্র আমিন, তানিম হক এবং শাহ জামাল শিশির।
সার্বিক তত্ত্বাবধানে- নীলকণ্ঠ জয়।

 

উল্লেখ্য এই কমিটির রদবদল, সংযোজন ও বিয়োজন হবে।

গত ৩১ জানুয়ারী,২০১৫ ইং তারিখে গ্রুপের পক্ষ থেকে কিছু সংখ্যক প্রান্তিক, সুবিধাবঞ্চিত শিশুকে বই,খাতা,কলম, কাঠপেন্সিল, ইরেজার ও পেনবক্স প্রদান করেছি এবং সরজমিনে উল্লেখিত বস্তি পরিদর্শন করেছি। বিস্তারিত এই লিংকে ক্লিক করে দেখে আসতে পারেন। আশার কথা স্থানীয়রা সকল প্রকার সহযগিতার আশ্বাস দিয়েছেন এবং আমাদের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন।

IMG_20150131_160206 IMG_20150131_155919

তাই সহ-ব্লগারদের কাছে অনুরোধ করছি, কে কত দিচ্ছে, অন্যের চেয়ে অর্থ সাহায্য পরিমাণ কম হয়ে গেল কিনা এসব ভাবনাচিন্তায় সময়ক্ষেপন না করে, খুব দ্রুত সাড়া দিন। এই আহবানটি আপনার সহ-ব্লগারের সাথে শেয়ার করুন বিভিন্ন পোস্টে। আপনি সাড়া না দিলে এই আহবান সফল হবে না, একটি স্বপ্ন অঙ্কুরেই বিনষ্ট হয়ে যাবে।

আশানুরূপ সাড়া পেলে পরবর্তী পোস্টে সাহায্য পাঠানোর উপায় এবং আনুষাঙ্গিক বিষয়গুলি নিয়ে বিস্তারিত বলবো। বন্ধুদের আন্তরিক প্রতিত্তোরের অপেক্ষায় রইলাম।

—————————————————————————
নীলকণ্ঠ জয়
@স্বপ্নপুরঃ বর্ণময় আমার পৃথিবী।