ক্যাটেগরিঃ প্রযুক্তি কথা

আমাদের দেশের সাইবার ক্যাফেগুলোতে ঢুকলেই এক রহস্যময় পরিবেশ দেখা যায়। দেখা যায় অনেকগুলো টেবিলে আড়াল দেয়া মনিটরের সামনে কিশোর-তরুণদের একক বা দলবাধা উপস্থিতি। ইদানিং স্কুল গোয়িং মেয়েদেরও ছেলে বন্ধুদের সাথে এসব সাইবার ক্যাফেতে এক মনিটরের সামনে বসে থাকতে দেখা যায়। সাইবার ক্যাফেগুলোতে কমপিউটার টেবিলগুলো এমন ভাবে আড়াল দেয়া এবং সেট করা হয় যাতে একটি মনিটরে কী দেখা বা করা হচ্ছে অন্য কেউ তা দেখতে না পায়। কিন্তু অধিকাংশ কিশোর- তরুণ ছেলে-মেয়েরা সাইবার ক্যাফেতে কী করে এবং কী দেখে তা সবাই জানে। এবং এসবের কী পরিণতি তাও সবার জানা। অথচ প্রশাসন বা আমাদের সমাজ এ বিষয়ে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেনা। বাচ্চা ছেলে-মেয়েদের এমন অবাধ যৌন চর্চা ব্যক্তি ও সামাজিক জীবনে কতটা ভয়াবহ পরিণতি ডেকে আনতে পারে তা তাদের জানা না থাকলেও বড়দের তো বোঝার কথা। কিন্তু কোন মহল থেকেই এ ব্যাপারে কোন কথা উঠছে না কেন?

সাইবার ক্যাফেতে এত আড়াল কেন প্রয়োজন? সাইবার ক্যাফে কী আড়াল ছাড়া চালানো যায়না? যে কয়টি দেশ দেখার সুযোগ আমার হয়েছে তাতে বাংলাদেশ এবং ভারত ছাড়া আর কোথাও সাইবার ক্যাফেতে এমনভাবে মনিটর লুকিয়ে রাখতে আমি দেখিনি। বিশেষতঃ আমাদের অন্যতম প্রতিবেশী দেশ নেপাল এবং সিটি অব প্রস্টিটিউট খ্যাত শহর থাইল্যান্ডের ব্যাংকক, চিয়ানমাই বা পাতায়ার সবগুলো সাইবার ক্যাফেতেও এমন আড়াল নেই। নেপালের পর্যটন শহর পোখারা `বার’ আর সাইবার ক্যাফের শহরও বটে। কিন্তু এখানে একটি সাইবার ক্যাফেতেও বাংলাদেশের মত আড়াল দেয়া মনিটর দেখা যায় না। একটি কমপিউটারে কী করা হচ্ছে সাইবার ক্যাফেতে উপস্থিত অন্য সবাই তা দেখতে পাচ্ছে। আমাদের দেশেও সাইবার ক্যাফেগুলোকে এই ভাবে সাজাতে প্রশাসন উদ্যোগ নিতে পারে। প্রয়োজনে সাইবার ক্যাফে মালিকদের বাধ্য করতে হবে।