ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

 

আজ শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোয় শুরু হচ্ছে ক্রিকেটের আধুনিকতম সংষ্করণ টি-২০ ‘র বিশ্বকাপ। ক্রিকেটীয় বিনোদনের সেরা এই আসরে বাংলাদেশের কোটি ক্রিকেট ভক্তের স্বপ্ন পূরণের আশা নিয়ে ইতিমধ্যেই শ্রীলঙ্কায় পৌঁছে গেছে বাংলার টাইগার বাহিনী। দু’টি প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ খেলে প্রথমটিতে জিম্বাবুয়েকে হারালেও আয়ারল্যান্ডের কাছে হেরে গেছে ৫ রানের ব্যবধানে। টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশের র‍্যাংকিং তুলনামূলক ভাল, কিন্তু টুর্ণামেন্টে বাংলাদেশের সম্ভাবনা নিয়ে কতটা আশা বাদী হওয়া যায় তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। শ্রীলংকার বাউন্সি ইউকেটে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা নিজেদের দক্ষতা প্রমানে সাফল্য পেলে বোলাররা বাকী কাজটা ভালই সারতে পারবেন বলে মনে হয়। কিন্তু স্লো উইকেটে খেলে অভ্যস্ত আমাদের ব্যাটসম্যানরা দুনিয়ার সেরা ফার্স্ট বোলারদের তোপ কতটা সামলাতে পারবেন তা কিছুটা অনুমান করাই যায়। আমাদের দলে টি-টুয়েন্টি ম্যাচ জেতানোর মত বেশ কয়েকজন ভাল ব্যাটসম্যান থাকলেও তাদের বেশীর ভাগেরই পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতা সন্তোষজনক নয়। টি-টুয়েন্টতে ভাল করতে হলে ব্যাটসম্যানদেরই ধারাবাহিক পারফর্ম করতে হবে। কারণ টি-টুয়েন্টি মূলতঃ ব্যাটসম্যানদেরই খেলা। বোলারদের এই ধরনের ক্রিকেটে খুব বেশী কিছু করার সুযোগ কম। ছোট গ্রাউন্ড, সীমিত ওভার এবং নানা সীমাবদ্ধতার ফলে বোলারদের কাজটা এমনিতেই কঠিন টি-টুয়েন্টিতে। সেহেতু ব্যাটসম্যানদের দায়িত্ব বেশী এখানে।

জাতিগতভাবে আমরা সকলেই বোধহয় কম বিনিয়োগে অধিক ফল প্রত্যাশা করে থাকি। ক্রিকেটের বেলায়ও আমাদের এমন অপরিনাদর্শীতা রয়েছে। আমরা ক্রিকেটারদের কাছে ভাল ফল আশা করি। অথচ ভাল ফলাফলের জন্য ক্রিকেটারদের সেভাবে গড়ে তোলার পরিকল্পনায় আমাদের দুর্বলতা রয়ে গেছে এক যুগের বেশী সময় ধরে। দক্ষ ক্রিকেটার তৈরীর আসল জায়গা যে ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেট সেদিকে যেন কারোই দৃষ্টি নেই। সুতরাং যথারীতি এবারের টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে খুব ভাল ফলাফল আশা না করে টাইগারদের জন্য শুধুই শুভ কামনা।