ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

এবার ধর্ষণের অভিযোগ এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত শিক্ষক চন্দন কুমার পোদ্দার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগের শিক্ষক। পত্রিকার খবরে প্রকাশ ‘‘ গৃহপরিচারিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শিক্ষক চন্দন কুমার পোদ্দারকে আটক করেছে পুলিশ। শাস্তি দাবিতে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন করেছেন শিক্ষর্থীরা। চন্দন কুমার পোদ্দার পরিসংখ্যান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও সাবেক সহকারী প্রক্টর। গত শুক্রবার নগরীর লালখানবাজার এলাকার হাই লেভেল রোডের নিজ বাসা থেকে তাকে আটক করে পুলিশ। এদিকে, অভিযুক্ত শিক্ষক চন্দন কুমার পোদ্দারের শাস্তি ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার দাবিতে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন ও সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।’’ (দৈনিক পূর্বকোণ, চট্টগ্রাম। তারিখ-27/1/2013)

পত্রিকার খবরে আরো বলা হয়েছে, ‘‘চন্দন কুমার পোদ্দার বাসার গৃহপরিচারিকাকে দীর্ঘদিন ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে আসছেন। গৃহপরিচারিকা লোকলজ্জার ভয়ে ধর্ষণের ঘটনা কাউকে বলেনি। কিন্তু দিনের পর দিন যৌন নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে গত শুক্রবার ধর্ষকের স্ত্রীকে তার স্বামীর অপকর্মের কথা জানায়। এরপর ধর্ষকের স্ত্রী মুন্না ভৌমিক ও গৃহপরিচারিকা শুক্রবার বিকেল তিনটার দিকে নগরীর খুলশী থানায় অভিযোগ করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ ধর্ষক চন্দন কুমার পোদ্দারকে বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে লালখান বাজার এলাকার হাইলেভেল রোডের বাসা থেকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। চন্দন কুমার পোদ্দার এখন পুলিশ হেফাজতে আছেন। আটকের ঘটনা স্বীকার করে খুলশী থানার ওসি আব্দুল লতিফ সাংবাদিকদের বলেন, স্ত্রী মুন্না ভৌমিক ও গৃহপরিচারিকার অভিযোগের ভিত্তিতে গৃহপরিচারিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে চন্দন কুমার পোদ্দার নামের চবি শিক্ষককে আটক করা হয়েছে। তিনি এখন খুলশি থানা হেফাজতে আছেন। ঘটনায় গৃহপরিচারিকা বাদি হয়ে খুলশী থানায় মামলা করেছেন বলেও তিনি উল্লেখ করেন। উল্লেখ্য, চন্দন কুমার পোদ্দারের স্ত্রী মুন্না ভৌমিক চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ ও এমবিএ পাশ করে একটি ব্যাংকে কর্মরত আছেন।’’