ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

বন্ধুদের উপকারার্থে একটি সত্য ঘটনা বলছি :
একদিন আমার মোবাইলে একটি কল আসে আমি ফোনটা রিসিভ করতে-
অপ্রান্ত থেকে একজন সুকন্ঠি মহিলা হ্যালো!
আমি- আপনি কে?
মহিলা – আমি বৃষ্টি! (নামটা হতে পারে তার বানানো)
আমি- অসময়ে আবার বৃষ্টি নামলো কত্থেকে?
মহিলা- আপনি তো দেখছি খুব রশিক মানুষ!
আমি- আপনার সাথে কি রসিকতা করলাম?
মহিলা- এই যে অসময়ে বৃষ্টির কথা বললেন!
আমি- কথাটা তো সত্যি বললাম রসিকতা তো নয়, আপনি আমার জন্য না চাইতে বিনা মেঘে বৃষ্টি না্!
তো আপনি কেন ফোন করেছেন সেটা তো বলেন নাই,
মহিলা- আমি আপনার সাথে বন্ধুত্ব করতে চাই
আমি- আমি তো বিয়ে করছি আপনি জানেন?
মহিলা- বিয়ে করছেন কি হয়েছে? বন্ধুত্ব করতে তো অসুবিধা নেই।
আমি- ঠিক আছে দেখা যাবে এখন রাখি পরে কথা হবে বলে ফোন রেখে দিলাম।

পরে দেখি মহিলা কয়েকবার ফোন করেছে আমার সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ আলাপ করেছে আমিও তাকে বিশ্বাস করলাম, এরপর দেখি মহিলা শুধু মিস কল দেয় ফোন করে না, আমি মাঝেমধ্যে করি, এভাবে ২/৪ দিন চলার পর একদিন মহিলা আমাকে জানান যে, তার খালাম্মা হঠাত অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বাসার সবাই তাকে দেখতে গেছে সে শুধু একাই বাসায় আছে যদি পারেন একবার আমার বাসায় আসেন আমি খুব একা, বসে গল্প করা যাবে, আর হ্যাঁ আমি তো বাসায় একা তাই বের হতে পারছি না আমার মোবাইলে কোন ব্যালেন্স নেই আমার খালাম্মার খবরটাও নিতে পারছি না যদি পারেন আমার মোবাইলে ২০টা টাকা দেন আমি আপনাকে পরে ফেরত দেব। আমি তার ঠিকানা চাইলাম, সে আমাকে বহদ্দারহাট এলাকার একটা ঠিকানা দিয়ে বলল সেখানে আসলে আমি আপনাকে বাসায় নিয়ে যাব। আমি ভাবলাম মেয়েটার খালাম্মা অসুস্থ বলছে অথচ সে আমার সাথে একাকী বাসায় দেখা করার জন্য ব্যাকুল হয়ে আছে, ব্যাপারটা খুবই সন্দেহ জনক মনে হল। তাই আমি যেতে পারবো না বলে তাকে জানিয়ে দিলাম। তারপর খালাম্মার অসুস্থতার কথা বলাই মানবিক কারনে তাকে ২০টা টাকা দিলাম। সন্ধ্যায় তার খালাম্মার খবর নিতে আমি ফোন করলাম সে আমাকে বলে যে আমার খালাম্মা মারা গেছে আমার মোবাইলে আর ৫০টা টাকা দেন আমার খালাম্মার খবরাখবর নিতে হবে। আমি দেখলাম আমার সন্দেহটা সম্পূর্ণ সত্যি আসলে মহিলা একজন প্রতারক এভাবে পুরুষদের ফাঁদে ফেলে মোবাইলে টাকা আদায় করে। আমি তাকে জানিয়ে দিলাম আপনাকে একটা টাকাও আমি দেব না যা দিয়েছি তাও মাফ করে দিলাম দয়া করে আপনি আমাকে আর ফোন বা মিস দিবেন না এভাবে মেয়েটির সাথে তর্কাতর্কির এক পর্যায়ে তার ফোনটা একটা পুরুষের হাতে চলে যায় এবং ওই পুরুষ বেটা আমাকে অশালিন ভাষায় গালাগাল দিতে আরম্ভ করে। আমি ওই পুরুষ বেটাকে বুঝাইতে চাইলাম ভাই দোষটা তো আমি করিনি আপনি আমাকে গালাগাল করছেন কেন? সে আমার কথা না শুনে তার কর্ম অব্যাহত রাখে। আমি লাইনটা কেটে দিলাম। পরে সে আর ফোন করেনি মনে হয় বুঝতে পারছে এ বেটাকে খাওয়া যাবে না। বন্ধুরা এভাবে অপরিচিত ফোন থেকে মহিলার কণ্ঠ আসলে প্রেমে জড়িয়ে পরবেন না। এরা প্রতারক মিষ্টি মিষ্টি কথা বলে আপনাকে ফাঁদে ফেলবে। আপনাকে ফতুর করে ছেড়ে দেবে। সাবধান এসব প্রতারক থেকে।