ক্যাটেগরিঃ চারপাশে

গত ১০ফ্রেব্রুয়ারি দিবাগত রাতে কে বা কাহারা খুন করে যায় সাংবাদিক দম্পত্তি সাগর- রুনিকে। এ নিয়ে তেজগাঁও থানায় একটি মামলা দায়ের করেন রুনির ভাই নওশের। পত্রপত্রিকায় ছাপা হয় অনেক সংবাদ। গভীর ভাবে শোক প্রকাশ করেন সকল রাজনীতিবিদরা। প্রধান মন্ত্রীর নির্দেশে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী সাহারা খাতুন বলেন ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনিদেরকে ধরা হবে যে কোন মূল্যে।
কিন্তু আস্তে আস্তে পার হয়ে গেল ৭০ টি দিন। কোন খুনিকেই ধরা যায়নি এখন পর্যন্ত। তার পরও আশাবাদী জনগন। কারন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রলায় থেকে চা খেয়ে ফিরে এসে সাংবাদিকরা বলেন বিচার কার্য চলছে, একটু সময় বেশি লাগবে।

থেমে গেল সাংবাদিকরাও কিন্তু থেমে নেয় ব্লগাররা। তারা সাগর-রুনি হত্যার বিচার চেয়ে ভার্চুয়াল জগত থেকে রাস্তায় নেমে এসেছে । ৮ই এপ্রিল করে ছিল সাগর-রুনি হত্যার বিচার চেয়ে মানব বন্ধন।
ব্লগাররা এবার আয়োজন করেছিল সাগর-রুনি হত্যা কাণ্ড নিয়ে ছবি প্রদর্শনী।

সাধারণ জনগণ এই হত্যাকে কেন্দ্র করে কে কি ভাবছেন, তাদের চাওয়া গুলো কি এটি জানার জন্য ব্লগাররা ছবি প্রদর্শনীর পাশেই রাখেন মন্তব্য খাতাটি । সকাল ১০ টায় শুরু হয় এই ছবি প্রদর্শনী, সময় সীমা ছিল বিকাল ৪টা পর্যন্ত। ছুটির দিনে ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ঘুরতে আসা মানুষ ভিড় জমায় শাহবাগ ও ঢাবিকে কেন্দ্র করে।

আর তাইতো ছবি প্রদর্শনীটি হয়েছিল শাহবাগ ছবির হাটে। সকাল থেকেই ছিল দর্শনার্থী ভিড়। দুপুর ২.৩০টার দিকে নতুন রূপে সাজে ছবির হাট। যেন প্রতিবাদ আর প্রতিবাদ । সাগর- রুনি হত্যার বিচার চাই সারা দেশ নয় সারা পৃথিবী, তাই তো দেশের মানুষের সাথে যোগ দেয় বিদেশী পর্যটকরাও।

ছবি গুলো দেখার পড়ে হাজার মন্তব্য লিখেন দর্শনার্থীরা। মন্তব্যকারীরা সাগর-রুনি হত্যার দ্রুত বিচার চেয়ে মন্তব্য করেন। মনের কথাটা কে প্রকাশ করে মন্তব্য করার জন্য তারা লাইনে দাঁড়িয়ে যান। বিকাল ৪টায় শেষ করার কথা থাকলেও ছবি প্রদর্শনী চলে প্রায় ৭টা পর্যন্ত।

সাধারণ জনগনের চাওয়া ও গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য গুলো প্রকাশ করা হল। আবু সুফিয়ান ভাইয়ের পোষ্ট লিঙ্ক দেওয়া হল
এটি ছিল ব্লগারদের ৩য় কর্মসূচি।

পরবর্তী কর্মসূচি নিয়ে আবু সুফিয়ান ভাইয়ের পোষ্ট
ছবি প্রদর্শনী নিয়ে সোহেল মাহমুদ ভাইয়ের পোষ্ট