ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

৭ই মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘১৯৫৪ সালে নির্বাচনে জয়লাভ করেও আমরা গদিতে বসতে পারি নাই’।

১৯৭১ সালেও আমাদের দেশের রাজনীতি ছিলো ‘গদি’তে বসার রাজনীতি। দিন বদলাইছে তো ! এখন আর কেউ ‘গদি’তে বসার জন্য রাজনীতি করে না। এখন রাজনীতি করে ‘ক্ষমতায়’ যাওয়ার জন্য। মিছিলে-মিটিংএ বক্তৃতায়-বিবৃতিতে অহরহ শুনতে পাই, আমরা যখন ‘ক্ষমতা’য় ছিলাম তখন হেন করেছি তেন করেছি কিংবা আমরা ‘ক্ষমতা’য় গেলে হেন করবো তেন করবো ইত্যাদি। তো এই যে ‘ক্ষমতা’ এই ক্ষমতা তারা পেলো কোথায়? কে দিলো তাদের এই ক্ষমতা?

দেশের মালিক জনগণ। জনগণ ভোট দিয়ে দল বা জোটকে সরকারে নিয়ে আসে জনগণের পক্ষ হয়ে সরকার পরিচালনার জন্য। তারা আশা করে, সরকার হবে তাদের প্রতিনিধি এবং রাষ্ট্রের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করবে সততা ও দায়িত্ববোধের সাথে। কিন্তু সরকার গঠন করেই রাতারাতি তাদের চেহারা পালটে যায়। সরকার পরিচালনার ‘দায়িত্ব’ পাওয়া ম্যানেজার সরকারী দল ‘ক্ষমতা’ পেয়ে হয়ে যায় দেশের মালিক, জনগণের প্রভু বা জমিদার। কোথায় যায় তাদের ‘ম্যানেজার’এর ভূমিকা? সেবকের ভূমিকা? তারা হয়ে যান ক্ষমতাপ্রাপ্ত ক্ষমতাবান। ফলে সর্বত্র চলে তাদের সেই ক্ষমতার প্রদর্শনী।

এই যে দলীয় কোন্দলের জের ধরে গুজব ছড়িয়ে নাসির নগরে হিন্দুদের ঘরবাড়ি ভাংচুর ও লুট করা, গাইবান্দার গবিন্দগঞ্জে সাওতালদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয়া কিংবা ঝিনাইদহের শৈলকুপায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ সংসদ সদস্যের অনুসারী (উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও যুবলীগের সভাপতি, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক)কর্তৃক জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মুক্তার আহমেদ মৃধা ও তার তৃতীয় ছেলে ব্যাংক কর্মকর্তা গোলাম মুর্শিদ মৃধাকে নির্মম ভাবে পেটানো এসবই হচ্ছে সেই ‘ক্ষমতা’র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। তারা তো ক্ষমতাপ্রাপ্ত তাই তাদের ক্ষমতা না দেখালে কি চলে? তারা যদি নিজেদের ‘ক্ষমতাপ্রাপ্ত’ মনে না করে ‘দায়িত্বপ্রাপ্ত’ মনে করতেন তাহলে তাদের আচরনে আমরা দায়িতেশীলতা দেখতে পেতাম।

তো, এই পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণের উপায় কী? উপায় আছে দুইটা।

১) যাদেরকে ভোট দিয়ে সরকার পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া হচ্ছে তাদের এটা উপলব্ধি করতে বাধ্য করতে হবে যে, তারা ক্ষমতাপ্রাপ্ত নন, দায়িত্বপ্রাপ্ত।

কিংবা

২) যারা নিজেদেরকে ‘দায়িত্বপ্রাপ্ত’ বলে মনে করে তাদের ভোট দিয়ে সরকার পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া।

আপনি কোনটা করবেন, সিদ্ধান্ত নিতে হবে আপনাকেই।