ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

 

হে প্রিযতম প্রভু আমার.
আপনি সেই স্বত্তা যার নিয়ন্ত্রনে সকল কিছু ..।আপনি এক আপনি অদ্বিতীয় . আপনার বারাবর করে এমন কেউ নাই আপনি সকল কিছুর উপরে ক্ষমতাবান . আপনার ক্ষমতা সম্পর্কে চিন্তা করবার সাধ্য কারো নাই ।

একটি ছোট পিপিলিকাকে আপনি যে নিপূনতা দি্যে সৃষ্টি করেছিন তা কেবল আপনার মহীমাই জানে , আমি তার কিচ্ছুই জানি না । হে আল্লাহ এই দুনিয়া কে কতইনা সুন্দর করে আপনি সৃষ্টি করেছেন !! কি সুন্দর আকাশ , কি সুন্দর নদী নালা ,পাহাড় পর্বত .প্রকৃতি !! অপুর্ব যত দেখি তত মুগ্ধ হই ।

আষাড় মাসে আকাশ যেন কথা বলে , বলে আপনি সুন্দর , আপনার সুন্দর রুচি ! বলে আপনি একমাত্র শিল্পী এই সুন্দর পৃথিবীর ,, আর আষাড়ের মেঘ গর্জন দিয়ে বলে আপনি দয়াময় আপনি মেহেরবান আপনার বান্দার প্রতি।

অপুর্ব সুন্দর পাখি গুলো উড়ে বেড়ায় এতো ময়াময় সুন্দর আপনার এই পৃথিবীতে আর কত খুশিই না পাখী গুলো !!পাখি গুলো যখন ডানা মেলে উড়ে বড়ায় এক গাছ থেকে আরেক গাছে এক গ্রাম থেকে আরেক গ্রামে তারা উড়ে উরে কেবল আপনারই প্রসংশা করে । পাখি গুলোকে দেখলেই বোঝা যায় তারা ভিষন খুশি , আপনি তাদের স্রষ্টি করেছেন এতো সুন্দর করে আর তারপর পাঠিয়েছেন এতো অপরুপ আপনার এই পৃথিবীতে ।

ও আমার প্রভু আমিও খুশি ! এতো দয়া আপনার !

আমাকে সৃষ্টি করে আমাকে সম্মান করেছেন আপনি ! ও আমার প্রভু ! আপনার চাইতে আধিক সম্মান আমাকে কেউ কোথাও করেনি .. কেও করতেও পারবেনা কোন দিন । কি হত যদি আমার মত আধম কে আপনি সৃষ্টি না করতেন ?!আমাকে সম্মান করে এতো সুন্দর এতো গভিরতম সুন্দর পৃথিবিতে পাঠিয়েছেন এই জন্য আপনার পবিত্রতম চরনে আমার গভিরতম শেজদা , ….শ্রদ্ধায় অবনত আমার পুরো স্বত্তা ..চিরদিন….অনন্ত কাল ……….।

আপনি কতইনা করুনা করে আমাকে একটি পরিবারে মধ্যে পাঠিয়েছেন ছোট শিশু রুপে .তারপর তারা পিতা মাতা রূপে আমাকে সেই শিশুবেলা থেকে কোলে পিঠে করে বড় করেছে আহা কি প্রতিপালন আপনার ! এতো সুন্দর করে সাজানো এই পৃথিবীতে আমাকে একজন অতিথির মত পাঠিয়েছেন ! যেন আমি একজন সম্মানিত মেহমান ! আমার জন্য আপনার কত ইনতেজাম ! আমার দুধ খাওয়া থেকে শুরূ করে আজ পর্যন্ত এতো মেহমান নেওয়াজি আমপনার ! সু ব হা না ল্লা হ ! করুনাময় এর করুনাধারা ! সুবহান আল্লাহ !! আমি মুগ্ধ ! আমি অভিভুত ! আমি সম্মানীত, আমি অবনত আপনার দুয়ারে ও আমার মালিক।
হে আল্লাহ !
আপনার এই সম্মাননা আমি অধম কি মুল্য দিব ? আমার আওকাত ই বা কি আছে ? আমি বুঝতে পাড়ছি আপনি আমাকে ভাল মনে করে এই সম্মান দিয়েছেন , কিন্তূ হে সম্মানদাতা প্রভু আমি তো না-লায়েক , ভিতরে যে কিছু নাই , আছে খালি কিছু আবর্জনা . আপনার এই সুন্দরতম পৃথিবী তো আমার কারনে নোংড়া হবে হয়তো , সুন্দর পরিবেশে চলবার মত সুন্দর তো আমি নই ! কি জানি আপনাকে আপনার ফেরেশতাদের সামনে লজ্যায় ফেলছি আথবা আপনারই কোন স্রষ্টির কাছে

হে মহামহান প্রিয়তম আল্লাহ !
ক্ষমা করবেন আমাকে আমি আপনারই স্রিষ্টি ! আপনি আমাকে দয়াকরে স্রষ্টি করেছেন আমি ধন্য আপনার কাছে..
হে পরম করুনাময় অতি দয়ালু আমার সৃষ্টা ! আমাকে ক্ষমা করে দিন ও রক্ষা করুন আমার কৃত ভুলগুলি থেকে আমার ছোট বড় গুনাহ গুলো থেকে আমার ইচ্ছায় অনিচ্ছায় কৃতকর্ম গুলি থেকে আমার অন্তরে বাহিরের কৃত পাপ গুলি থেকে আমার চেতন অবচেতন বেহায়াপনা থেকে ।

আমি চিৎকার করে বলছি আপনি এক , আপনার কোন শরিক বা প্রতিদ্বন্দী নেই . আপনি কার মুখাপেক্ষি নন কাউকে আপনার কর দিতে হয় না ,বরং আপনার হুকুমেই সকল কর আরোপিত হয় এই দুনিয়া ও আখেরাতে ।

আপনি এই আসমান জমিনের সৃষ্টিকর্তা এবং প্রভু , সকল বাদশার বাদশাহ ,আপনারি বাদশাহি সকলের উপরে , আপনি আসমান ও জমিনে যত মাখলুকাত আছে তাহাদিগকে প্রতিপালন করেন এবং রিজিক প্রদান করেন . আপনি বেহেশত দোজক সৃষ্টি করছেন আমাদের জন্যে , আপনি গ্রহ তারকা আরো কত মহাজগত যা আমার জানা নাই সকল কিছু অতান্ত সুনিপুণ করে সৃষ্টি করছেন যার বর্ননা আমি গাফেল ! কি করে সম্ভব ! আল্লাহ আল্লাহ !!! মাশা আল্লাহ !!!

ওগো দয়াময় মালিক আমার !
কত ভুল করেছি জেনে না জেনা , হুঁশে বে-হুঁশে , ভেতরে বাহিরে !! কত অপরাধ করেছি কত অন্যায় করেছি .আল্লাহ আল্লাহ .ছি ! ছি!
কত অসভ্য আচরন হয়েছে কত জঘন্য অপরাধের সাথে লিপ্ত হয়েছি কত বার ,, আহ !!

হে আমার দয়ালু সৃষ্টিকর্তা !

আমার অন্তরে বাহিরের একমাত্র খবর রাখনে ওয়ালা আল্লাহ ! আলেমুল গায়েব আপনি , আপনি আমাকে কি করে ক্ষমা করবেন জানি না ! আমি তো মাখলুকের মধ্যে আতি গুনাগার .
পৃথিবির বুকে আপনার মেহমান হয়ে এসে নিজের অসৎ লোভ হীনরুচি অসভ্য আচরনে বরবরচীত সভাবের কারনে আপনারই প্রিয় সৃষ্টি যেমন পশু পাখির কাছে লজ্জায় ফেলে দিলাম আপনাকে , আপনার প্রিয় ফেরেশতাদের কাছে যারা আমার মত অসালীন মানুষ সম্পর্কে আপনাকে আগেই সাবধান করেছিল . হে আল্লাহ !! হে আল্লাহ আমি লজ্জিত আমার কৃতকর্মের কারনে আমি দুঃখিত আপনার দরবারে ! লজ্জা সরমে আমি অবনত অবিরত আপনার দরবারে আমাকে ক্ষমা করে দিন ।

হে প্রিয়তম আল্লাহ !

আপনাকে আমার কলিজার প্রকষ্ট থেকে জানাই শুকরিয়া । হে আমার মালিক এই পৃথিবির বুকে কত যে নিয়ামত আপনি আমাকে আস্সাধন করিয়েছেন !! মাশা আল্লাহ !! কতই না মজার মজার ফল মুল খেয়েছি আম ,ডাব ,কাঠাল ,লিচু ,কমলা , নেশপাতি , আনার , বড়ই তরমুজ . কত মাছ , কত মাংস ! আল্লাহ আল্লাহ ! কত শাঁক কত তরু লতা .আলহামদুলিল্লাহ , কতই না উত্তম রিজিকদাতা আপনি ,, সু ব হা ন আ ল্লা হ !! ইয়া রাজ্জাকু ইয়া আল্লাহ ।

হে দয়াময় আল্লাহ !

এই পৃথিবিতে একা যেন না হই মন যেন খারাপ না থাকে সে কারনে কত আপন কত প্রিয়জন দিয়ে পাঠিয়েছেন আপনি ! যেমন আব্বাজান ,আম্মাজান , বোন ,ভাই , স্রী , সন্তান ,দুলাভাই ,সালা , সালী , মামা ,মামী আরো কত কত বন্ধু দি্যেছেন আমাকে যারা ছাড়া এই জিবন টা এতো সুন্দর পৃথিবীতে এতো সুন্দর লাগতো না ,যদিও আপনি সবচেয়ে আপন তবুও এই জন্য জানাই আপনাকে আনেক আনেক ধন্যবাদ ।
একমাত্র মাবুদ আমার !
আপনার হুকুমের অধিনে যমিন ও আসমানের প্রতিটি কণা !
সেই মহা মহিয়ান আমার মালিক , আপনিই তো রব্বুদ দোয়া ! এই মহাজগতের মহাপরিকল্পনা করতে আপনি কাহারো সাহায্য নেন নাই আপনি বলছেন ” হও ” সাথে সাথে সকল কিছু তার আপন সুন্দরয্যের অপরুপ সাজে তৈরি হয়ে গেছে . সেই মহাক্ষমতাধর মালিক আপনার কাছে আমি চির আবনত অবিরত।

হে প্রভু !

আপনি আমাকে দয়াকরে মুসলমান করে সৃষ্টি করেছেন এই জন্য আপনার আলিশান দরবারে আমার অগনিত সেজদা ……………….

আমার সকল সেজদা কেবল কেবল আপনারি জন্যে . আমি চিরকাল যদি সেজদায় পড়ে থাকি তবুও এই দয়ার প্রতি সম্মান দেখানো হবে না …

আমি খুশি আপনাকে আমার মালিক হিসাবে , আপনাকে আমার রব হিসাবে, আপনাকে আমার প্রভু হিসেবে জেনে, মেনে ,আমি ভিষন ভিষন খুশি !

অবস্যই আপনি ব্যাতিত কোন মালিক নাই কোন রব নাই কোন প্রভু নাই আপনি এক আপনার কোন প্রতিপক্ষ নেই ।

ওগো সৃষ্টিজগতের মহাপরিকল্পনাকারি !

আপনি কতই না দয়া করেছেন আমার প্রতি !

আমাকে আপনি এতো সম্মান করছেন ! যে সৃষ্টিকুলের শ্রেষ্ট মহানবী হযরত মুহাম্মদ ( তাঁর প্রতি ও তার প্রিয় আওলাদের প্রতি লক্ষ কোটি সালাম ) এর উম্মত করে আমাকে এই দুনিয়ায় পাঠিয়েছেন ! আল্লাহ আল্লাহ ! আলহামদুলিল্লাহ ! সবচেয়ে বড় দয়া ছিল এটা আপনার আমার প্রতি ….

আমি আমাকে আপনার প্রিয় মাহবুব দোজাহানের কান্ডারী রাহমাতুল্লিল আলামিন হুজুর পূরনূর হযরত মুহাম্মদ (দ.) এর উম্মত হিসেবে নিজেকে পেয়ে আমি ভিষন খুশি ।

হুজুর পূরনূর নবী (স.) দুচোখে দেখি নাই তবু বুঝি তিনি অনন্য তিনি সুন্দর্য তিনি দয়ালু তিনি সকল স্রষ্টির ক্রেন্দ্র বিন্দু !!
আহা !! যদি হুযুরকে একটি বারের মত দেখতে পাইতাম ! তানার পা মোবারকে চুমু দিতাম আর নাক দিয়ে তাঁর মোবারক পাঁয়ের ঘ্রাণ নিতাম !দু হাত ধরে জড়িয়ে ধরে কেঁদে কেঁদে ভিজায়ে ফেলতাম হুযুরের মোবারক পাঁ দুখানা আর কাদঁতে কাদঁতে বলতাম ইয়া রাসুল আল্লাহ !! আমাকে দয়া করেন ! আমি খুবই খুশি আপনাকে আমার রাসুল হিসেবে পেয়ে , জেনে মেনে. সয়নে স্বপনে জাগরনে . আমি এতো ভালবাসি আপনাকে যে দুনিয়া একদিকে আর আপনি একদিকে যদি আপনি আমার হন তবে এই দুনিয়া তো দুনিয়া আমি জান্নাতের পরোওয়া করি না ইয়া রাসুল আল্লাহ !!

আর আমি আরো খুশি আপনার মাধ্যমে প্রাপ্ত ইসলাম কে আমার আপন ধর্ম হিসেবে পেয়ে জেনে মেনে । প্রিয় নবি গো আমার আমি আরো আরো আরো খুশি আপনার মাধ্যমে আল্লাহ কে আমার রব ও প্রভু হিসেবে পেয়ে জেনে মেনে ।

আমি স্যাক্ষী দিতেছি ,
কোন মাবুদ নাই এক আল্লাহ ব্যাতিত আর আপনি আমার জাঁনের চেয়ে প্রিয় হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহিস সালাম আল্লাহর রাসুল ।

আমি আরো স্যাক্ষী দিতেছি আল্লাহ এক এবং তাঁর কোন শরিক নাই । কোটি কোটি সালাত ও সালাম আপনাকে ….

আপনি আমাকে আপনার উম্মত হিসাবে গ্রহন করুন । আমাকে আপনার গোলাম হিসাবে কবুল করুন , আমাকে আপনার ও আপনার আল আওলাদের চাকর হিসাবে কবুল করুন ।

ওগো প্রানপ্রিয় নবী !! আপনাকে যদি আল্লাহ সৃষ্টি না করতেন এই আসমান যমিন কিছুই তিনি সৃষ্টি করিতেন না । আপনি আল্লাহার ওহাদিয়াতের খোশ খবর দানকারী .

আপনি একমাত্র যিনি আল্লাহ জাল্লাহ শানুহু কে স্ব চোখে দেখেছেন মেরাজ করেছেন আমরা তো শুধু আপনার উপর ঈমান এনেছি । আপনি সে নুর যা আল্লাহ অতি ভালবেসে বড় মায়া করে সৃষ্টি করেছেন কতই না সুন্দর আপনি আর কতই না সুন্দর আপনার সৃষ্টিকর্তা .!! সুবহান আল্লাহ !!!!!!!!

হে মহা মহান ! হে মুনাজাত কবুলকারী ! হে আল্লাহ !
আপনি হযরত মুহাম্মদ (দ.) সৃষ্টি করেছেন ! সৃষ্টকুলের শ্রেষ্ট করে সকল নবী ও রাসুলদের উপরে । আপনার পরে তাঁকেই শ্রেষ্ট করেছেন । যাঁক সু মহান মর্যাদা হিসেবে দান করেছেন”মাকামে মাহমুদ ” যার সম্পর্কে আপনি ব্যাতিত কেহ অবগত হওয়ার সুযোগ নাই ।

আর..

হযরত আদম (আ.) হযরত শিশ (আ.) হযরত নুহ (আ.) হযরত দাউদ হযরত ইউসুফ (আ.) হযরত ইশহাক (আ.) হযরত ইউনুস (আ.) হযরত সোলাইমান (আ.) হযরত ঈব্রাহিম (আ.) হযরত ইসমাইল (আ.) থেকে হযরত মুসা (আ.) হাযরত ঈশা (আ.) সহ সকল পয়গাম্বরদের আপনি একমাত্র প্রভু ।
মহামহান প্রভু !
আমার মালিক !
আমাকে আপনার পছন্দ হয় এমন একজন বান্দা রুপে কবুল করুন .
আমি যাতে আপনার দয়ার প্রতি সম্মান করতে পারি, আমি যেন ভাল একজন মুসলমান হই .
আপনার প্রিয় হাবিব দোজাহানের সকল ক্ষেত্রে যার মাত্তবরি সরদারি চলে …… চলিতেছে …..চলিবে……

সেই প্রানপ্রিয় নবীর হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর ও তার প্রিয় আওলাদের গোলামি মনেপ্রানে মেনে জেনে হ্নদয় থেকে করতে পাড়ি সেই রাঁজকপাল আমাকে দান করুন এবং তাদের প্রিয় গোলামদের তালিকায় আমি আধমের নাম খানা যেন থাকে সেই তৌফিক দান করুন ।

হে সর্বশ্রেষ্ট সম্মানদাতা !!

আমাকে মানুষ হিসেবে সৃষ্টিকরে সম্মান দিয়েছেন আমাকে মুসলমান হিসেবে সম্মানিত করেছেন ,

দুনিয়াতে আপনার মেহমান হিসাবে আমি যতদিন হায়াত পাই ( বা দাওয়াত আমার যত দিনের ) সেই হায়াতের জিন্দেগিতে থাকা আবস্থায় আমার ইজ্জত ও সম্মানের প্রতি আপনি দয়া করবেন আমি যেন উত্তম মেহমান হিসেবে বিদায় নিতে পাড়ি, আমি যেন দুনিয়ার কোন মানুষের কাছে মানুষ হিসেবে ছোট না হয়ে পড়ি .. আমার প্রতি দয়ার খেয়াল রাখবেন. আমাকে ও আমার পরিবারকে আপনার দয়ার সম্মানের চাদরে চিরদিন ঢেকে রাখবেন ,যেন কোন দিনই বে-আবরু না হই আপনার রহমত বরকত নাজ ও নেয়ামত থেকে .আপনার হাতেই আমার ইজ্জতের আবরু !! আপনি ব্যাতিত কে তাঁর অধিক হেফাজত করতে পারে ,আপনি সর্বউত্তম সাহায্যকারি একমাত্র প্রভু ।
হে উত্তম রিজিকদাতা !!
আমাকে উত্তম রিজিক দান করুন । আমি যেন রিজিকের পেরেশানিতে গাফেল হয়ে না পড়ি এই কারনে আমাকে স্থায়ি নেয়ামত দান করেন ।
হে প্রগ্গ্যাময় !
হে প্রতিভার আধার !
আমাকে কিছুমুছু প্রতিভা প্রগ্গ্যা দান করুন যাতে করে আপনার এই অধম বান্দা আপনাকে চিনতে পারে আপনার সম্মান অনুধাবন করতে পারে।
হে প্রচুর্যময় !

সকল প্রচুর্যের উৎস আপনি !

আমাকে আপনা অগনিত উৎস হইতে কিছু সামান্য প্রচুর্য দান করুন যাতে আমি আমার পরিবার সহ আপনার দরবারে খেদমত করতে পারি ।

হে আল্লাহ ! ভয়ের দিনে মনে সাহস দিয়েন , যাতে করে সাহসের সহিত মোকাবিলা করে সম্মানের সাথে বেরিয়ে আসতে পারি ।
বিপদে দিনে ধর্য দিয়েন যাতে শান্তমনে বিপদ মোকাবিলা করে বিজয়ীর বেশে ফিরে আসতে পারি ।

ওহে আভাব মোচনকরী !

আভাবের দিনে সবর ও তাসাল্লি দিয়েন যাতে এই আভাব কেউ না দেখে ফেলে এই লজ্জা থেকে আমাকে বাচায়ে রাইখেন . আমাকে আভাবমুক্ত করে দিন।

পিতার মাতা উপযুক্ত সন্তান ,

ভাই বোনের উপযুক্ত ভাই ,

স্রীর উপযুক্ত স্বামী ,

সন্তাণের উপযুক্ত বাবা ,

দেশের উপযুক্ত নাগরিক ,

নবী সাল্লাহু আলাইহিস সালাম -এর উপযুক্ত উম্মত

সর্বশেষে আপনার উপযুক্ত বান্দা হতে পারি

সে তৌফিকে হাসানাহ বা পরম সৌভাগ্য আমাকে দান করেন ।
পরিশেষে ; স্বরণ করি সে মহান আলোকিত স্বত্বাগন কে যারা এই অন্চলে ইসলামের পতাকা নিশান নিয়া সেই দুর আরব জাজিরাহ থেকে এসেছিলেন ,
যাদের বরকতময় পদচারনার পরিশ্রমের কারনে এই অন্চলে ইসলামের শান্তিময় বারতা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সেই সকল বীর আউলিয়ায়ে কামিলিনদের প্রতি জানাই আমার স্বশ্রদ্ধিয় সালাম ..
এবং
তাদের কৃতকর্মের প্রতি সম্মান করে জানাতে চাই :- আপনারা দয়াকরে এই অন্চলে ইসলামের বানী বয়ে এনে আমাদের পুর্বপুরুষদের জানি্যে ছিলেন বলে এবং আমাদের পুর্ব পুরুষগন আপনাদের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করেছিলেন বিধ্বায় আজ আমরা মুসলমান হতে পেরেছি …….আলহামদুলিল্লাহ ! সকল প্রসংসা একমাত্র আল্লাহর ।
আপনাদের এই দয়া ! এই পরিস্রম তথা আমার জন্য ইসলাম !!
আমি ও আমার বংশধর রা চিরদিন কৃতগ্তার সাথে আপনাদের এই অবদান কে সরন রাখবো ,
মহান আল্লাহ আপনাদের ইজ্জতের সদকায় আপনাদের পরিস্রমের ওয়াসতায় আমার খারাপ কে ভালো , আর ভালোকে আরো ভালো তে পরিনত করুক . আমিন

হে আমার মালিক আল্লাহ !

পবিত্রতম নামের অধিকারি !

সুন্দরতম নাম আপনারই !

আপনার সে মহান নামের ওয়াসতা…….

ইয়া আল্লাহ ۩ ইয়া রাহমান ۩ ইয়া রাহিম ۩ ইয়া মালিক ۩ ইয়া কুদ্দুছ ۩ ইয়া সালাম ۩ ইয়া মু-মিনু ۩ ইয়া মুহাইমিনু ۩ ইয়া আজিজ ۩ ইয়া জাব্বার ۩ ইয়া মতাকাব্বির ۩ ইয়া খালিক ইয়া বারি ۩ ইয়া মুসাবভির ۩ ওহুয়াল আজিজুল হাকিম ……………………… এর উছিলায়

আমার মুনাজাত কে আপনি কবুল করেন .
আমিন আমিন আমিন ইয়া রাব্বাল আলামিন .

আল্লাহুম্মা ছাল্লে আলা সাইয়েদেনা মুহাম্মাদান ওয়াআলা আলেহি ওয়া আসহাবিহি ওয়া আজওয়াজিহি ওয়া বারেক ওয়া ছাল্লেম

●▬▬▬▬▬▬ஜ۩۞۩ஜ▬▬▬▬▬▬●