ক্যাটেগরিঃ দিনলিপি

 

আহা ! কী আনন্দ আকাশে বাতাসে … সাথে সাথে পাখি ডাকে … কত শোভা চারিপাশে। পাখি ডাকছে না, তবে প্রকৃতি শান্ত। গত কয়েকদিন যাবত টিপ টিপ, ঝির ঝির বৃষ্টি প্রকৃতিকে জানান দিচ্ছে হেমন্তের আগমন বার্তা। ইট, পাথর আর কাঠের শহরে পাখিরা নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে। গ্রীষ্ম থেকে দীর্ঘ শীতের এই ক্ষনকালীন ঋতুর অপার সৌন্দর্য সত্যিই চোখ ধাঁধানো, যা ভাষায় বর্ণনা কষ্টসাধ্য। গ্রীষ্মে চারিপাশে সবুজবর্ণ ধারণ করা গাছগুলোর পাতা হলদে-তামাটে বর্ণে রূপান্তর, মনে দোলা জাগানোর মত।

আমার মনে বৃষ্টি লেগে আছে গত কয়েক রাত থেকেই। কিছুতেই যাচ্ছে না। মাথার ভেতর মন ভিজিয়ে ক্রমাগত পড়ে যাচ্ছে টুপটাপ ঝিরঝির বৃষ্টি। এখনও আকাশে কিছু কিছু মেঘ। মাঝে মাঝে একটু আধটু রোদ, আবার ঝিরঝির বৃষ্টি। এই চলছে। এমনিতে বৃষ্টি হলেই আমার মন একটু খারাপ হয়ে যায়।আসলে, ঠিক খারাপ না। আনমনা উদাস একটা ভাব। আসলে যেটিই হোক, বাংলা ভাষা-ভাষীদের মতো এ বৃষ্টিকে এতো আবেগ -এতো হৃদয় দিয়ে বিশ্বের আর কোন ভাষার লোকেরা অনুভব করতে পারে কিনা আমার সঠিক জানা নেই। আমাদের কথা-সাহিত্যে, কবিতায় এমনকি গানে-নাটকে-কথক নৃত্যে অপরূপ অঝর “বৃষ্টি” বন্দী হয়েছে বিভিন্ন অবয়ব নিয়ে-অনেক যত্নে-অনেক মমতায়। বৃষ্টির শব্দ প্রায়ই ছন্দ মেনে চলে। গানের সুরের মতো। বৃষ্টির দূত বা ‘হেরল্ড’ যাই বলিনা কেন, তার নাম মেঘ । মেঘ ছাড়া বৃষ্টি হয় না।আবার সব মেঘে বৃষ্টি হয় না। কোন কোন সময় মেঘের নাম ছায়া। কোন সময় তার নাম তুলা নয়তো ভেলা। এমনি মেঘের মতো বহু চেতনার মন নিয়ে শত-হাজার বছর ধরে সুরস্রষ্টারা গান বেঁধে আসছেন।

ছেলেবেলায় শহরে যেমন বৃষ্টি দেখতাম, তেমন ঘনিয়ে বৃষ্টি বোধহয় এখন হয় না। বৃষ্টির তেমন সমারোহ নেই যেন, বৃষ্টি এখন যেন ইকনমিতে মন দিয়েছে – কোনরকম করে জল ছিটিয়ে চলে যায়। আগেকার মতো সে বজ্র বিদ্যুৎ বৃষ্টি বাতাসের মাতামাতি দেখি নে। আগেকার বৃষ্টির একটা নৃত্য ও গান ছিল, একটা ছন্দ ও তাল ছিল – এখন যেন প্রকৃতির বৃষ্টির মধ্যেও বয়স প্রবেশ করেছে, হিসাব কিতাব ও ভাবনা ঢুকেছে, শ্লেষ্মা শঙ্কা ও সাবধানের প্রাদুর্ভাব হয়েছে। সে আমারই বয়সের দোষ।সকল বয়সেরই একটা কাল আছে,আমার সে বয়স গেছে হয়তো।

বৃষ্টি জিনিসটা খুব অদ্ভুত, কিভাবে যেন আশেপাশের পরিবেশটা অন্যরকম বানিয়ে দেয়। আমাদের বাংলা গানের জগতে বৃষ্টি কে নিয়ে অনেক জনপ্রিয় গান আছে, বৃষ্টির দেখা পেলেই যা আমাদের মনের কোন থেকে চেনা সুরের ঐ গানগুলো উঁকি দিয়ে যায়। আর প্রিয় গানের তালিকা করতে বসলে, সেখানে বৃষ্টির গান মনে হয় বৃষ্টির মতই মুষলধারায় নামতে থাকে। আমারও অনেক অনেক প্রিয় বৃষ্টির গান আছে। আজকের পোষ্টটা শুধুমাত্র বৃষ্টির গান নিয়ে।

১. আজি ঝরো ঝরো মুখর বাদল দিনে – দেবব্রত বিশ্বাস
২. শাওনও রাতে যদি – মান্না দে
৩. আকাশ এতো মেঘলা – সতীনাথ মুখোপাধ্যায়
৪. এই রিম ঝিম ঝিম বরষা – তালাত মাহমুদ
৫. এই মেঘলা দিনে একলা – হেমন্ত মুখোপাধ্যায়
৬. আষাঢ় শ্রাবণ মানে না তো মন – লতা মঙ্গেশকর
৭. টাপুর টুপুর সারা দুপুর – আরতি মুখোপাধ্যায়
৮. এখন ঝড় উঠুক – পিন্টু ভট্টাচার্য্য
৯. মেঘ থম থম করে – ভূপেন হাজারিকা
১০. ওগো বৃষ্টি আমার চোখের পাতা – হৈমন্তী শুক্লা
১১. আকাশ মেঘে ঢাকা – চিত্রা সিং
১২. আজ এই বৃষ্টির কান্না দেখে – নিয়াজ চৌধুরী
১৩. বুকের ভেতর বৃষ্টি পড়ে – কবীর সুমন
১৪. আমি বৃষ্টি দেখেছি – অঞ্জন দত্ত
১৫. বৃষ্টি তোমাকে দিলাম – শ্রীকান্ত আচার্য্য