ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

দেশে অবশ্যই আইন আছে, তবে আইনের প্রয়োগ নেই এবং মানছেও না কেউ | প্রতিদিন অগুনতি মানুষ দুর্ঘটনার শিকার হয়ে প্রাণ হারায় | রাষ্ট্র্র নাগরিকের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারেনি | কারণ আমরা মানুষ নই | আমাদের জীবন মানুষের জীবন নয়, আমাদের জীবন জন্তু-জানোয়ার এর থেকেও অধম | আমাদের জনসচেতনতার অভাবকে পুঁজি করে রাষ্ট্র্র আমাদের অবহেলা করে, আমরাও প্রতিবাদ করি না | কারণ আমরা তো মরতে তৈরিই থাকি, মরণ ফাঁদে জেনেশুনেই পা দেই | আমরা মরণের ঝুঁকিতেই অতিরিক্ত বোঝাই করা সমুদ্রযানে কিংবা যানবাহনে অতিরিক্ত হিসেবে আরোহণ করি, ছাদে উঠি, হ্যান্ডেলে ঝুলে যাই | রাষ্ট্রেরও আমাদের মরণে মাথাব্যথা নেই | আছে শুধু শোক প্রকাশ, দাফনের আর্থিক সহযোগিতা |

চালকের মুঠোফোন ব্যবহার আইনে নিষিদ্ধ | আছে শাস্তির বিধানও | কিন্তু প্রয়োগ নেই | কিন্তু এর পরও চালকদের অধিকাংশই যানবাহন চালানো অবস্থায় মুঠোফোন ব্যবহার করছে | এ কারণে দুর্ঘটনাও ঘটছে | সর্বশেষ ঘটল গত সোমবার চট্টগ্রামের মীরেরসরাই | ৪১ জন স্কুল শিক্ষার্থীসহ ৪৪ জন ট্রাক উল্টে মারা গেল | দুর্ঘটনার সময় চালকের আসনে বসা হেলপার মুঠোফোনে কথা বলছিল | পণ্যবাহী ট্রাকে যাত্রী চলাচলও নিষিদ্ধ | এগুলো মানা হলে মিরসরাই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা হয়ত বা এড়ানো সম্ভব হত | শিক্ষা মন্ত্রণালয়, শিল্প মন্ত্রণালয় এবং স্থানীয় প্রশাসন থেকে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে শুধু আর্থিক সাহায্য দেয়াই যথেষ্ট হবে না | ওই সময়ে ওই পথে কারা টহল পুলিশে ছিল, কারা ট্রাফিক পুলিশ ছিল তাদেরও ধরতে হবে এবং আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে |

মিরসরাই এ কেন এমনটা ঘটল ? ছাত্ররা কি পশু কিংবা পণ্য ছিল যে তাদের ঠাসাঠাসি করে ট্রাকে যাতায়াত করতে হয়েছিল ? ট্রাকের চালক বা সহকারী নিজেও তো আমাদের মতোই মানুষ, এ দেশেরই নাগরিক, এদেরও সন্তান আছে, পরিবার-পরিজন আছে তবুও তারা কেন এমন করবে ? ট্রাফিক আইন অমান্য কিংবা বেআইনি কাজ করলে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাই বা কী করে ? যখন দুর্ঘটনা ঘটে এবং বড় ধরনের ঘটে তখন সংশ্লিষ্টরা একটু নড়েচড়ে ওঠে | তারপর আবার যেই তিমির সেই তিমিরের অবস্থাই হয়ে দাঁড়ায় | আসলে যেখানে আইন না মানাই হলো সহজাত সংস্কৃতি, সেখানে এসব কথার যৌক্তিকতা অরণ্য রোদন মাত্র | যারা কালে-অকালে চিরতরে ঝরে যায়, তাদের পরিবারগুলোর দিগন্তবিস্তারী হাহাকার নিয়েই আমাদের বাঁচতে হবে | এটাই এদেশের জন্য ভবিতব্য |