ক্যাটেগরিঃ দিবস প্রসঙ্গ

সেন্ট ভ্যালেন্টাইন। এক সাহসী ধর্মযাজকের নাম। রোম সম্রাট ক্লদিয়াসের নিদেশ অমান্য করেছিলেন তিনি। যার জন্য তাকে কারাবরন করতে হয়েছিল।অার কারাগারে তিনি যে কাজটি করেছিলেন তা তাকে মৃত্যুর কোলেই টেনে নিয়েছিল।কিন্তু এই ধমযাজক তার সে কাজ দিয়েই গোটা দুনিয়ায় স্মৃতিতে চিরঞ্জীব হয়ে রইলেন। কারণ সেন্ট ভ্যালেন্টাইন যা কিছু করেছিলেন তা সবই ভালবাসার জন্য।

১৭৪৩ বছর আগের কথা। ২৬৯ খ্রিস্টাব্দের ১৪ ফেব্রুয়ারি ছিল ভ্যালেন্টাইনের মৃত্যুদ- কার্যকর করার দিন। বেদনাময় সেই দিনটিই হয়ে থাকল ভালোবাসা প্রকাশের দিন হিসেবে। অামরা যেমন অপেক্ষায় থাকি ১৪ ফেব্রুয়ারি ঠিক মিডিয়া গুলো সারা বৎসর ব্যাস্থথাকে বিদেশি অপসংস্কৃতি নামক ভ্যালেন্টাইনএর।

১৪ ফেব্রুয়ারি আমাদের কাছে ভালোবাসা দিবস পালন করার দিন না কী অন্যকিছু? হ্যা..অামরাত ভুলেই গেছি এই দিনটির কথা কারন দিবসভিত্তিক ভালোবাসার কাছ যে অায অামরা শুধু পন্য। অথচ ১৯৮৩ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারিতে গনতন্ত্রকে ভালোবেসে সামরিক শাসনের বিরুদ্বে রুখে দারিয়ে যারা প্রান হারালেন আজ আমরা তাদের কথা ভুলেই গেছি। কেন আমরা তাদের কথা ভুলে গেলাম? তারা তো ভালোবেসে ছিল? এদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষকে।

আজ টিবি চ্যানেল খুলার সাথে সাথে ভালোবাসা দিবসের লাল গোলাপ, টকশো, নাটক ইত্যাদি নামের বিদেশি অপসংস্কৃতি নামক ভালোবাসা দিবশ পালন করি।যার মাঝে হারিয়ে ফেলেছি নিজস্ব সংস্কৃতিকে হারিয়ে ফেলেছি যারা এদেশটাকে ভালোবেসে শহিদ হয়েছিলেন তাদের কে। হারিয়ে ফেলেছি স্বৈরাচার প্রতিরোদ দিবস নামক মহান দিবস কে।
১৭৪৩ বছর আগের কথা অাজ অামারা নিত্য নতুন রুপে পালন করি ৩দশক অাগের কথা মনে হয় কত যুগ পাড়হয়ে গেছে.