ক্যাটেগরিঃ ভ্রমণ

আমাদের দেশের মতো আরও অনেক উন্নয়নশীল দেশ ট্যুরিজ্‌মের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে , অর্থনীতিক উন্নয়নের লক্ষে। কিন্তু বেশির ভাগ দেশ ইন্টারন্যাশনাল ট্যুরিজ্যম-এর দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, এই ভেবে যে তা অনেক বিদেশী মুদ্রা অর্জন, ছোট ব্যবসার উন্নয়ন ও চাকরির ব্যবস্তা করে । তাদের চিন্তা এই যে অনেক বিদেশি মুদ্রা অর্জন সম্ভব ট্যুরিস্ট আকর্ষণ করে যারা ব্যয়বহুল ট্যুরিস্ট প্রোডাক্ট ও সার্ভিস নিতে সক্ষম। কিন্তু এই সার্ভিস প্রদান করতে দেশ কে বাহির থেকে প্রোডাক্ট কিনতে হয়, বিদেশি ইনভেস্টমেন্ট এবং অভিক্ষ জনবলের উপর নিরবর হতে হয়। তাছাড়া, বিলাস বহুল ট্যুরিজম দ্বারা যে মুদ্রা অর্জন হয় তার মাধ্যমে গরিব লোক কোন উল্লেখ যোগ্য উপকার হয়না এবং যে ট্যুরিজম বিদেশী ইনভেস্টর দ্বারা পরিচালিত হয় তারা tourism based village economy support করে না।

Backpacker ট্যুরিস্ট সাধারণত একলা বা ছোট গ্রুপ- এ ভ্রমন করে এবং তারা খুব আগ্রহী লোকাল প্রোডাক্ট , সার্ভিস, দৃশ্য দেখার এবং লোকাল মানুষের কালচার উপভোগ করার জন্য।

স্বল্প -বাজেটের টুরিস্টদের (backpacker tourist) ভ্রমনের কাজ হল প্রকৃতি কে উপভগ করা, ভিন্ন কালচার কে
উপভোগ করা (HOMESTAY) গ্রাম এ থাকা , আরও গ্রাম-এর activities, যেমন – নৌকা বাইচ, ঘুড়ি উড়ানো ও আরও অনেক।

বাংলাদেশ একটি প্রাচীন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য possesses. কালচার বাংলাদেশ এ একটি ঐতিহ্যগত মান, কাস্টমস এবং অনন্য মিশ্রন. বাংলাদেশী দৈনন্দিন জীবনের ঐতিহ্য, উৎসব ,সংস্কৃতি এবং রীতিনীতি কিছু প্রাগৈতিহাসিক দিন হিসাবে প্রাচীন, আবার অনেক অপেক্ষাকৃত সাম্প্রতিক. ঘুড়ি উৎসব বাংলাদেশের জনপ্রিয় ঐতিহ্যের একটি যা shakrain / Ghuri Utshob বলে আমরা চিনি।

আমাদের সরকার, যদি আমাদের কালচার ও গ্রামের activities কে ট্যুরিজম প্রোডাক্ট করে promote করতে পারে, এতে সরকার ও দেশের সাধারন মানুশ উভয় উপকৃত হবে যা সরকারের ট্যুরিজম মিশন অর্জনে সহায়ক ভূমিকা রাখবে।