ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

 

“মন্ত্রীদের কথা ও কাজ” শীর্ষক প্রথম আলোর সম্পাদকীয়তে (০৯-০৮-১১),প্রসঙ্গক্রমে একজাগায় বলা হয়েছে “বর্তমান মন্ত্রিসভার অধিকাংশ সদস্য নবীন ও অনভিজ্ঞ। এটি দোষের নয়”-কথাটা পুরোপুরি সঠিক নয়।এটি অবশ্যই দোষের।কেননা দেশটা কোন দলের ট্রেনিং সেন্টার নয় যে,দলীয় প্রধান তার একক ইচ্ছা ও পছন্দ মাফিক যে কাউকে মন্ত্রী বানিয়ে দিয়ে,তাকে মন্ত্রীগিরি শিখাবেন আর দেশ ও দেশের মানুষ এর মূল্য দিবে।

এমনতর অপরিণামদর্শিতার কারনে তার দলের অবশ্যম্ভাবী ভবিষ্যত বিপর্যয় আমাদের দেশের মানুষের কোন উদ্যেগের বিষয় নয়,উদ্যেগের বিষয় হলো, নবীন,অনভিজ্ঞ এবং শিক্ষানবিশ এই মন্ত্রীদের কারনে আমাদের দেশের জীবন থেকে পাঁচটা বৎসর হারিয়ে গেল।দেশ ও দেশের মানুষ যথাযথ সেবা পেতো দলের এমন অভিজ্ঞ,পরীক্ষিত এবং যোগ্যদের সেবা থেকেও দেশ এবং দেশের মানুষকে বঞ্চিত করা হলো।নবীন ও অনভিজ্ঞদের অতিব গুরুত্বপূর্ন এবং ভারী ভারী মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বে বসিয়ে দিয়ে,তাদের গার্ড বা কভার দেয়ার জন্য,তাদের মাথার উপর বা সমান্তরালে উপদেষ্টা রূপী আমলাদের বসিয়ে দিয়ে কোন কোন ক্ষেত্রে শুধু অনাকাঙ্খিত জটিলতারই সৃষ্টি করা হয় নাই,রাষ্ট্রে অতিরিক্ত আর্থিক ক্ষতির কারন ও সৃষ্টি করা হয়েছে।এমন যদি হতো যে দলে মন্ত্রী বানানোর মতো অভিজ্ঞ নেতার অভাব,তাহলে না হয় কথা ছিলো।