ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

উইকিলিকস এর ফাঁস করা তথ্য থেকে জানা গেলো,বিগত জোট আমলে প্রধান মন্ত্রীর ভারত সফর কালে,ভারতের রাষ্ট্রপতি এ পি জে আবুল কালামের সঙ্গে বৈঠকের সময়,খালেদা জিয়া নির্ধারিত সময়ের ২০ মিনিট দেরিতে পৌঁছান(!!)(সূত্র-প্রথম আলো ১৩-৯-১১)।যার ফলে কিছু এলোমেলো হয়ে যায় এবং সে সফরে অনেক কিছুরই সমাধান হয়নি।ব্যাপারটা যারপরনাই দুঃখজনক।

দেশের কষ্টার্জিত কোটি কোটি টাকা খরচ করে,দল-বহর নিয়ে বিদেশ সফরে গিয়ে, বিলাসী হোটেলে খলেদা জিয়ার ঘুমিয়ে থাকার কারনে,যথাস্থানে লেট হয়ে যাওয়া বা হাজির হতে না পারার এমনতর খবর এর আগেও পত্রিকান্তরে প্রকাশিত হয়েছে।সরকারি অর্থ লোপাটে নানান উছিলায় বিদেশ সফরে গিয়ে মন্ত্রী-আমলারা অনেকেই-যথাস্থানে হাজির না থেকে বা নাম মাত্র হাজিরা দিয়ে,নিজের কাজে ঘুরাফেরা বা বাজার-টাজার করে কাটিয়ে দেয়ার খবর অনেক আছে। স্বয়ং প্রধান মন্ত্রীরই যদি এই অবস্থা হয়,তাহলে অন্যদের আর দোষ ধরার অবকাশ কোথায়?

এই বিদেশ সফরে,রাষ্ট্রপতি,প্রধানমন্ত্রী,স্পিকার সহ কোন মন্ত্রী,কোন আমলা কতদিন-কতবার,কোন কোন দেশ সফর করলেন-সফরে কি কি কাজ করলেন,এতে রাষ্ট্রের কত টাকা খরচ হলো এবং বিনিময়ে রাষ্ট্র কি পেলো-তার একটা চিত্র প্রতি মাসে না হলেও,অন্ততঃ বৎসরে একবার,জাতীয় সংসদের মাধ্যমে সর্বসাধারনের সম্মুখে প্রকাশ করা দরকার।প্রশ্ন জাগার বিষয়,-প্রায় সব দেশেই যেখানে বাংলাদেশের মিশন আছে,দূতাবাস আছে-সেখানে প্রয়োজনীয় প্রায় সব কাজ তো দূতাবাসের মাধ্যমেই করতে পারার কথা।এর পর আবার,দুনিয়ার অন্যতম প্রধান দরিদ্রতম এ দেশটির,মন্ত্রী-আমলাদের কথায়-কথায় ঘন-ঘন এতো বিদেশ সফরের দরকার পড়ে কেন?দুনিয়ার সবচেয়ে গরীব মানুষের এ দেশের কত টাকার বিনাশ হয় এসব বিদেশ সফরে??