ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

মাঝে মাঝে কিছু ভাল এবং ব্যতিক্রমি কথা বলার কারনে, মানুষের মাঝে আওয়ামীলীগ প্রেসিদিয়াম মেম্বার জনাব ওবায়দুল কাদেরের একটা নেতাসুলভ ব্যাতিক্রমি ভাবমূর্তি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।খবরে প্রকাশ চলমান তত্বাবধায়ক সরকার বিতির্ক প্রসঙ্গে,তার এক মন্তব্যে তিনি বলেছেন-“আমি তত্ত্বাবধায়কব্যবস্থাটি চাই। কিন্তু সেটা কি ওয়ান-ইলেভেন থেকে সৃষ্ট তত্ত্বাবধায়কএবং? যাদের কর্মপরিধি ও সময়সীমা কোনোটিই সংবিধানসম্মত ছিল না। এমনকি তারা গণতন্ত্রের প্রতি অশ্রদ্ধার পরাকাষ্ঠা দেখিয়েছে। দুই নেত্রীকে গ্রেপ্তার করেছিল। বিরাজনীতিকরণের প্রক্রিয়া শুরু করেছিল”।জনাব ওবায়দুল কাদের আপনার মতোই দলমত নির্বিশেষে এদেশের সিংহ ভাগ মানূষই তত্ত্বাবধায়কব্যবস্থাটি চায়। কিন্ত ওয়ান-ইলেভেন থেকে সৃষ্ট তত্ত্বাবধায়ক চায়না। ওয়ান-ইলেভেন থেকে সৃষ্ট তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছিলো একটা ব্যতিক্রম।ব্যাতিক্রম কোনদিন কোন দৃষ্টান্ত হতে পারেনা জনাব ওবায়দুল কাদের।এই ব্যাতিক্রমকে দৃষ্টান্ত হিসাবে তুলে ধরে আপনি নিজেও -“নেত্রীর সমালোচনার প্রশ্ন দুই দলের কাছে সমান স্পর্শকাতর”-এই ছকের বাইরে যেতে পারলেননা জনাব।তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিলের পক্ষে খোঁড়া যুক্তি হিসাবে এক-এগারো পরবর্তি সেই ব্যাতিক্রমি তত্বাবধায়ক সরকার সমন্ধে যা কিছু আপনি বলেছেন,তার সবই,আপনার নেত্রীর বলা কথার কোরাস ছাড়া আর কিছুই নয়।

এসব কথা বা উদাহরন আগের বা স্বাভাবিক কোন তত্বাবধায়ক সরকারগুলির বেলায় খাটেনা জনাব ওবায়দুল কাদের।সময় এখনো ফুরিয়ে যায়নি।আপনারা যারা আওয়ামীলীগের নেতা,জনমানূষের নেতা,তারা বলিষ্ঠ ভূমিকা নিয়ে এগিয়ে আসুন।জনমানূষের ভাষা বুঝতে চেষ্টা করুন।দলকে এবং দলের ভাবমূর্তিকে উচ্চশিখরে তুলে ধরুন।শেখ হাসিনার চারপাশ ঘিরে থাকা জনবিচ্ছিন্ন, জনধিকৃ্ত, বিতর্কিত, অযোগ্য, অদক্ষ,ব্যাক্তিত্বহীন,চাটুকার এবং হটাৎ গজিয়ে ওঠা কথিত হাইব্রিড নেতাদের বিভ্রান্তি থেকে নেত্রীকে এবং দলকে উদ্ধার করুন।অন্যথায় সেদিন বেশি দূরে নাই যেদিন এর কঠিন মূল্য আপনার দলকে এবং আপনাদেরকেই গুনতে হবে।আর সেদিন শেখ হাসিনার চারপাশ ঘিরে থাকা এই জনবিচ্ছিন্ন,জনধিকৃ্ত,এবং হটাৎ গজিয়ে ওঠা হাইব্রিডদের অনেককেই খোঁজে পাওয়া যাবেনা।অতীতের মতোই এরা সবার আগে পালিয়ে যাবে।আওয়ামীলীগের দুঃসময়ে বা কোন আন্দোলন-সংগ্রামে জনমানূষের সাথে এদের অনেকেই কোনদিনই ছিলোনা,ভবিষ্যতেও থাকবেনা। ঝান্ডা হাতে দলের দূর্দিনে সামনে দাঁড়াতে হবে আপনাদেরকেই।কেননা প্রকৃ্ত নেতা কোনদিন পালিয়ে যায়না। বুকটান করে সামনে দাঁড়ায়। বঙ্গবন্ধু, নেলসন ম্যন্ডেলা্রা তাই করেছেন।