ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

নারায়নগঞ্জ সিটির দায়ীত্ব গ্রহন করে,সদ্য নির্বাচিত মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভি নিজে্র কন্ঠে ‘জয় বাংলা’শ্লোগান দিয়ে উপস্থিত বিপুল জনতার উদ্দ্যেশে,বলেন-“জয় বাংলা’শ্লোগান সবার। এ শ্লোগান কোনো দলের একার হতে পারেনা।আওয়ামীলীগ এই শ্লোগানটি কুক্ষিগত করে রেখেছে”।খুবই গুরুত্বপূর্ন এবং সঠিক কথাটি বলেছেন মেয়র আইভী।এই কথাটি অনেক আগেই আওয়ামীলীগের বলা উচিৎ ছিলো।তাহলে এই আওয়ামীলীগ আজ, অন্য আওয়ামীলীগ থাকতো। মেয়র আইভী আরো যা বলতে পারতেন এবং আশা করি বলবেন, যে,জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও কেবল আওয়ামীলীগের একার নয়,একার হতে পারেনা, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু’ ও দলমত নির্বিশেষে সবার।‘জয় বাংলা শ্লোগানের মতো, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু’ কেও আওয়ামী লীগ কুক্ষিগত করে রেখে, প্রকারান্তরে বঙ্গবন্ধুকে খাটো করেছে এবং করছে,বঙ্গবন্ধুকে তার অনেক উঁচু আসন থেকে নীচে নামিয়ে এনেছে এবং আনছে। যার কিছু নমুনা হলো-

## বিভিন্ন দিবসে ও নানান উপলক্ষে জিয়াউর রহমান এমনকি খালেদা জিয়ার ভাষনের সাথে পাল্লা দিয়ে বা পাশাপাশি ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ভাষন বাজিয়ে বা প্রচার করে,আওয়ামীলীগ বঙ্গবন্ধুকে,জিয়া এবং খালেদা জিয়ার পর্যায়ে বা কাতারে নামিয়ে আনছে।

## নানান কারনে,নানান উপলক্ষে,একেবারে নীচ থেকে উপর পর্যন্ত,দলীয় নেতা-কর্মীদের পোষ্টার,ব্যানার ইত্যাদিতে,তাদের মাথার উপরে থাকে- বিএনপি’র বেলায় ‘জিয়া-খালেদা-তারেক’এর ছবি ,জাতীয় পার্টির বেলায় এরশাদের ছবি এবং অন্যান্য দলের বেলায় সে সব দলের প্রধানের ছবি।একই আঙ্গিকে,একই অবস্থানে আওয়ামীলীগের বেলায় থাকে বঙ্গবন্ধু আর শেখ হাসিনার ছবি(কোন কোন ক্ষেত্রে হাসিনা তনয় জয়’এর ছবিও থাকে)। এতে করে আওয়ামীলীগই ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু’কে নামিয়ে আনছে জিয়া-এরশাদের পর্যায়ে ও কাতারে। অনেক সময়ে এলাকার অনেক সন্ত্রাসী-অপরাধী, যাদেরকে মানূষ ঘৃ্নার চোখে দেখে,তাদের পোষ্টার-ব্যানারেও, তাদের মাথার উপরে দেখা যায় বঙ্গবন্ধুর ছবি। অবাক করা কান্ড,এতে করে অতি বড় মাপের মহান এই মামূষ (বঙ্গবন্ধু) টিকে, যে কোন পর্যায়ে নামিয়ে আনা হচ্ছে,আওয়ামীলীগের অর্বাচীন নেতৃ্ত্বের উপলব্দিতে তা আসেনা!!

## বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং অন্যত্রও দেখা যায়, ‘জিয়াউর রহমান হল’এর পাশাপাশি একই পরিসরে,একই মানে ‘বঙ্গবন্ধু হল’,বা ‘জিয়াউর রহমান কলেজ’এর পাশাপাশি ‘বঙ্গবন্ধু কলেজ’। ‘জিয়াউর রহমান হল’ বা ‘জিয়াউর রহমান কলেজ’ এর পাশাপাশি থাকা উচিৎ এবং মানায়, ‘শফিউল্লাহ-খালেদ মোশাররফ’ হল বা কলেজ- বঙ্গবন্ধু নয়। আমি যদি শেখ হাসিনার জাগায় হইতাম, তাহলে প্রথমেই যেখানে যেখানে জিয়াউর রহমানের পাশাপাশি বঙ্গন্ধুর নাম আছে,তার সব জায়গা থেকে,বঙ্গবন্ধুর নাম টি সরিয়ে দিয়ে,সে সব জায়গায় জিয়ার কাতারের বীর মুক্তিযোদ্ধা বা নেতাদের নাম টানিয়ে দিতাম।
মেয়র আইভীর কন্ঠে এই কথাগুলিও যথাযথ জোরের সহিত উচ্চারিত হোক,এমন প্রত্যাশা দেশের লক্ষ-কোটি বঙ্গবন্ধুপ্রেমী আওয়ামী সমর্থক তথা সমগ্র জনমানূষের।