ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম, ব্লগ সংকলন: সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড

 

সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড নিয়ে দেশের সাংবাদিকরা যেভাবে কর্মসূচী করছেন তা আমি মনে করি এতে কোন লাভ নেই। অনেক দিন পরপর এইভাবে প্রতিবাদ করলে কিছুই হবেনা। এতে যারা খুনী এবং যারা খুনীদের সাহায্য করছে তাদের ক্ষতি হবার তো দূরের কথা বরং এরা আরামেই থাকবে আর এইসব কির্তী দেখে মস্করা করবে।

সাংবাদিকদের উচিত ছিল একতরফা আন্দোলন করা এবং যতদিন পর্যন্ত খুনীরা ধরা না পড়বে ততদিন পর্যন্ত আন্দোলন টিকিয়ে রাখা ও আরোও প্রতিবাদি হয়ে ওঠা। কথার কথা বলছি, ১ তারিখে একবার প্রতিবাদ সভা করলাম আবার একটা লম্বা বিরতি দিয়ে ১৮ তারিখে আরেকটা মানববন্ধন আবার কিছুদিন পর আরেকটা সভা, এসব করে কিচ্ছু হবেনা। এসব কারোরই নজরে পড়বেনা, মাঝখান থেকে শুধু কষ্ট পেতে থাকবে সাগর-রুনীদের পরিবার ও বাবা-মা হারানোর যন্ত্রণা্য থাকবে ছোট্ট মেঘ।

সাংবাদিকদেরওতো ছেলে-মেয়ে আছে, তারা একটি বারের জন্য একটু চিন্তা করুক যে আজ যদি তারা খুন হতেন তাদের ছেলে মে্যেদের অবস্থাটা কোথায় যেত!!! এত স্বার্থপর হওয়াতো ঠিক না!!! আমাদের সাংবাদিকরা যদি মনে করেন যে বেশী বাড়াবাড়ি করলে ক্ষতি হতে পারে বা উপর থেকে চাপ আসতে পারে বা হুমকী আসতে পারে তাহলে আমি ব্যক্তিগতভাবে তাদের অনুরোধ করবো তাদের এই ব্যাপারে আর না এগুতে। যেভাবে আন্দোলন হচ্ছে তা তে খুনীরা কেন খুনীদের চৌদ্দ গুষ্টিরো কিছু হবেনা। সাংবাদিকদের প্রথম থেকেই উচিত ছিল সকলকে এক করা ও রাজপথে আন্দোলন তৈরী করে সেটাকে টিকিয়ে রাখা।

আরেকটি ব্যাপার বেশ দৃষ্টি নজর কেড়েছে যে সাংবাদিকদের এইসব আন্দোলনে দেশের বিভিন্ন পত্রিকার বাঘা বাঘা কিছু সম্পাদকদের কিন্তু দেখা যায়নি!!! আর সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড নিয়ে আমাদের সংস্কৃতি সমাজের বড় বড় ব্যক্তিদের তেমন কাউকেতো দেখা যাইনি, দেশের যাদের আমরা সুশীল সমাজ বলি তাদেরকেও খুব কম ভূমিকা পালন করতে দেখিছি। কেন!!!