ক্যাটেগরিঃ ব্লগ


সবাইকে কাদিঁয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন অতি সম্প্রতি প্রবীন সাংবাদিক আতাউস সামাদ, ঢাকা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ফজলে রশীদ, জীবন মৃত্যুর সন্ধীক্ষনে অপেক্ষা করছেন নির্ভিক কলম সৈনিক নির্মল সেন, গিয়াস কামাল চৌধুরী আর যে কোন সময়ে সকলকে কাদিঁয়ে বিদায় নিতে পারেন ভাষা সৈনিক আব্দুল মতিন আর এখন বিদায়ের বেদনার সুর বাজিয়ে সবার হৃদয়কে কাদিঁয়ে জীবন মৃত্যুর শেষ সন্ধীক্ষনে লাইফ সাপোর্ট নিয়ে ৮৩ বছর বয়সে এদেশের গণতন্ত্রের সকল আন্দোলনের বটবৃক্ষ, ৫২’র ভাষা সৈনিক অলি আহাদ অসুস্থ্য অবস্থায় রাজধানীর পান্থপথে শমরিতা হাসপাতালে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের অধীনে নিবিড় পর্যবেক্ষনে রয়েছেন। তার জন্য মসজিদে, মন্দিরে, গীর্জায় ও প্যাগোডায় প্রানখুলে সবাই প্রার্থনা করুন। তিনি যেন সুস্থ হয়ে আবার আমাদের মাঝে ফিরে আসেন।
হাসপাতাল ও পরিবারের সূত্রে জানা গেছে, তিনি গত রোববার নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে শমরিতায় ভর্তি হয়েছেন। এছাড়া তিনি বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে ভুগছেন। শমরিতার চিকিৎসক প্রফেসর কাজী দীন মোহাম্মদ, প্রফেসর আলি হোসেন, প্রফেসর ‍আফজাল কায়সার, প্রফেসর এমএ আলম, প্রফেসর আবদুর রহমানের সমন্বয়ে একটি মেডিকেল বোর্ড তার চিকিৎসার দেখভাল করছে। বুধবার দুপুর থেকে তাকে লাইফ সাপোর্ট দিয়ে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন শমরিতার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. হারুন উর রশিদ।

অলি আহাদের মেয়ে ব্যারিস্টার নমিন ফারহানা বলেন, ‘‘গত রোববার হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে আব্বাকে শমরিতা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ার পর ডাক্তাররা তাকে আইসিইউয়ে রেখেছেন। এখন তার অবস্থা খুবই সংকটাপন্ন।’’ তিনি জানান, ‘‘বার্ধক্যজনিত কারণে অনেকদিন ধরে হাসপাতালে চারজন ডাক্তারে পরামর্শ নিচ্ছিলেন আব্বা। গত রোববার নিউমোনিয়াসহ আরো কয়েকটি রোগে গুরুতর অসুস্থ হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করি। দীর্ঘদিন ধরে তিনি বুকের লান্সের ইনফেকশনেও ভুগছিলেন। গত মার্চ থেকে এটা বেড়ে গেছে।’’

অলি আহাদের স্ত্রী প্রফেসর রাশিদা বেগম জানান, তার কোনো সিরিয়াস রোগ ছিল না। গত মার্চ থেকে নিয়মিত অসুস্থ হতে থাকেন। এর মধ্যে মার্চ থেকে এপ্রিল টানা দুই মাস হাসপাতালে ছিলেন। মাঝে অবস্থার উন্নতি হলে বাসায় নেওয়া হয়। মাঝে মাঝে অসুস্থ হলে তাকে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে আবার বাসায় চলে যেতাম।’’ তিনি জানান, ‘‘২০০৩ সালে বাথরুমে পড়ে গিয়ে তার কোমড়ের হাড় ভেঙ্গে যায়। তখন থেকেই তিনি মূলত বিছানায় ছিলেন। কিন্তু রোববার হঠাৎ তিনি বুকের ব্যথা অনুভব করতে থাকলে আমারা তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসি।’’ ডাক্তাররা কি বলেছেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘এখন যে অবস্থা তাতে বেঁচে থাকার সম্ভাবনা খুবই কম। তার জন্য দোয়া করা ছাড়া এখন আর কিছু করার নেই।’’

অলি আহাদের ভগ্নিপতি মুন্সী আব্দুল মজিদ জানান, ভাষা সৈনিক অলি আহাদের এক মেয়ে। তার গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার ইসলামপুরে। তার তিন বোন ও পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে তিন বোন ও এক ভাই মারা গেছেন।

দীর্ঘদিন ধরে শমরিতার চিকিৎসক প্রফেসর কাজী দীন মোহাম্মদ, প্রফেসর আলী হোসেন, প্রফেসর আফজাল কায়সার, প্রফেসর এমএ আলম ও প্রফেসর আবদুর রহমানের সমন্বয়ে একটি মেডিকেল বোর্ড অলি আহাদের চিকিৎসার দেখভাল করছেন। তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখার খবর পেয়ে সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিকুল হক, বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, ড্যাবের মহাসচিব ডা. এ জেড এম জাহিদ, জিয়া সেনা কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আবদুর রহমান তপন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা সহ অনেক শুভাকাঙ্খী তাকে দেখতে হাসপাতালে
ছুটে আসেন।

ইতি পূর্বে তিনি অসুস্থ হলে, তার পাশে রাষ্ট্রকে দাড়ানোর আহব্বান জানিয়ে একটি ফিচার লেখা হয় যা দৈনিক আমার দেশ সহ বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। পূর্বের প্রকাশিত বর্ননাঃ

ভাষাসৈনিক অলি আহাদ ও ভাষা সৈনিক মতিনের পাশে রাষ্ট্রের দাড়ানো এখনই সময়
মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা: আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস যখন ৬০ বছরে পা রেখেছে, সারা দেশজুড়ে যখন ভাষা সৈনিকদের স্মরনে প্রতিদিন স্মরণসভা, সেমিনার, বই মেলা সহ নানা আয়োজন চলছে ঠিক সেই মুহুর্তে ভাষা সৈনিকদের অন্যতম সংগঠক অলি আহাদ অবহেলায়, অযত্নে ঘরের কোনায় জীবনের শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করার দিনক্ষন গুণছেন। কেউ কাছে গিয়ে যদি প্রশ্ন করে, তিনি জানান জীবনের শেষ মুহুর্তে এসে যখন দেখি গণতন্ত্র বন্দী হয়ে আছে তখন হৃদয়টা কষ্টে ভরে উঠে। ভাষা আন্দোলনের এই মহা নায়ক ১৯২৮ সালে ব্রাহ্মনবাড়ীয়া জেলার সদর উপজেলার ইসলামপুরে জন্ম গ্রহন করেন।পড়ামুনার হাতেখরি পরিবারের মধ্যে শেষ করে ১৯৪৪ সালে তিনি মাধ্যমিক পরীক্ষায় ১ম বিভাগে উত্তীর্ন হয়ে ঢাকা কলেজে ভর্তি হন। তার পর তার শুরু হয় গণতন্ত্রের পথে, সংগ্রামের পথে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে আপোষহীন পথচলা। ১৯৫২ সালের রক্তস্নাত ভাষা আন্দোলনের এই মহান নেতার জীবনে নির্যাতন, জুলুম, অত্যাচার, কারাবরন সহ নানা প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে ৫২’র ভাষা আন্দোলনকে যে কজন বীর ভাষা সৈনিক কাজী গোলাম মাহবুব, আব্দুল মতিন, গাজীউল হক’র নাম উচ্চারিত হয় তাদের মধ্যে জীবন্ত কিংবদন্তী হিসাবে আজও বেঁচে আছেন ভাষা সৈনিক আবদুল মতিন ও অলি আহাদ।

ভাষার মাস এলেই এই দুই জনকে অনুষ্ঠানে উপস্থিত করার জন্য রিতিমত সরকার ও বিরোধীদলে প্রতিযোগীতা শুরু হয়, পাশাপাশি সুশীলসমাজের সমাজপতিরাও তাদের পাশে বসে ভাষা সৈনিকদের স্মৃতিচারন করে নানা মুখরোচক বক্তব্য রাখেন। বক্তব্য যখন শেষ তখন শুরু হয় অবজ্ঞার আসল দৃশ্য। আয়োজকরা প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিদের নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। ভুলেযান যাদের জন্য এই আয়োজন তাদের কথা।

এক সময়ে সাহসী সৈনিকরা নরম সুরে বিদ্রোহী কন্ঠে বলেন, শরীরটা আর ঠিক রাখতে পারছিনা, বাসায় যাওয়া দরকার, তখন আবারো ব্যস্ততা মুহুর্তে বেড়ে যায়। কোন কোন আয়োজক নিজেদের গাড়ী আর কেউ কেউ বা সি.এস.জি’তে উঠিয়ে দিয়ে মাতৃভাষার জন্য শ্রেষ্ঠ কাজটি করে ফেলেছেন এই তৃপ্তিতে বাড়ী ফেরেন, আর ঘরের সদস্যদের সাথে আনন্দের সাথে শেয়ার করেন ”জানো! আজ ভাষাসৈনিক মতিন ভাই‘র সাথে, কিংবা অলি আহাদ এর সাথে ছবি তুলেছি্”।রাষ্ট্রের প্রধানরাও তাদের সমাপরী বক্তৃতায় ভাষা সৈনিকদের ভূয়সী প্রশংসা করেন। হয়তো দু-একজনের কপালে জুটেছে একুশ পদক, স্বাধীনতা পদক সহ রাষ্ট্রীয় কিছু পদকী মর্যাদা। কিন্তু ভাষা সৈনিক অলি আহাদ এখন কি অবস্থায় আছে, কেমন আছে ভাষা সৈনিক আবদুল মতিন সহ অন্যান্য ভাষা সৈনিকরা? সেদিন এক টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে একজন ভাষা সৈনিক হাসপাতালের বেডে চিৎকার করে বলছিল “বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে” আমাকে এভাবে অসহায়ের মত বেঁচে থাকতে হতো না। বঙ্গবন্ধুর কন্যা তিনি একবারও আমাকে এসে দেখার সময় পান নি । রাষ্ট্রের শতব্যস্ততার মাঝেও ২০ ফেব্রুয়ারী দিবাগত রাত ১২:০১ মিনিটে, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি, মন্ত্রীপরিষদ, বিরোধীদলীয় নেতা সহ সকল মানুষ হাজার হাজার ফুলে ফুলে বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় ভরিয়ে দেবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সহ প্রতিটি শহীদ মিনার। তখন জীবন্ত কিংবদন্তী ভাষা সৈনিকরা বিছানায় শুয়ে বুকফাটা করবে আত্মচিৎকার। হয়তো কেউ শুনবেনা, শুনবে শুধু বিধাতা। হয়তো তারা বলবে, আমাদের মৃত্যুর পরও আমাদের বেদীতেও ফুলে ফুলে ভরে উঠবে, কিন্তু বেচে থেকে কি পেলাম আজ অধিকার??

আসুন আমরা আমাদের বিবেক কে জাগিয়েতুলি, আমাদের প্রিয় ভাষা সৈনিক অলি আহাদ, আবদুল মতিন সহ যারা ৫২’তে গুরুত্বপূর্ন নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, তাদের মৃত্যুর পর মরনোত্তর কোন পদক না দিয়ে বেচে থাকার যে আশা রয়েছে সেটুকু সময় তাদেরকে রাষ্ট্রীয় খরচে উন্নত চিকিৎসার সু ব্যবস্থা করতে পারলে মৃত্যুর শেষ মুহুর্তে দাড়িয়ে এসে অন্তত তারা এইটুকু শান্তনা পাবে “মায়ের জন্য, মায়ের ভাষার জন্য” এবং স্বাধীনতা সংগ্রামের ও সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনের জন্য যে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা ও অবদান রেখেছিলেন, রাষ্ট্র তাদের সেই অবদানের জন্য শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত রাষ্ট্রীয় সম্মান জানিয়েছে। যা আগামী প্রজন্মের কাছে একটি মাইলফলক দৃষ্টান্ত হিসাবে উপস্থাপিত হবে।

২১’র দুটি কথা

একুশ মানে মাথা নত না করা
একুশ মানে স্বাধীনতার বীজ বুনা
একুশ মানে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে
এ জাতির মুক্তি পাওয়া।

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো
একুশে ফেব্রুয়ারী,
সালাম, রফিক, বরকত, জব্বার
তোমাদের কি ভুলিতে পারি।

কাজী গোলাম মাহবুব
গাজীউল হক আর নেই
আছে তাদের স্মৃতি
ভাষা সৈনিক অলি আহাদ
ভাষা সৈনিক আবদুল মতিন
তোমাদের প্রতি
আমাদের শ্রদ্ধা আর প্রীতি।

ইতিপূর্বে তিনি অসুস্থ হলে তার পাশে যখন রাষ্ট্র দাড়ায়নি তখন তিনি আক্ষেপ করে বলেছিলেন, “পত্রিকায় লিখে কি লাভ?” সেদিনের সেই স্মৃতিচারন কথাগুলো উপস্থাপন করা হলোঃ

আর্থিক সংকটে চিকিৎসা হয় না, কেউ খবরও নেয় না

আমার কথা পত্রিকায় লিখে কি লাভ হবে, আমাকে তো আর কেউ দেখতে আসে না! যৌবন থাকতে কেউ খোঁজ নেয়নি আর এখনতো যাওয়ার সময়। আবেগতাড়িত হয়ে কথাগুলো বলেছেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, সাত দলের প্রধান জননেতা, সাংবাদিক, ভাষা সৈনিক অলি আহাদ। তিনি রোববার এলিফ্যান্ট রোড়ের বাসায় ফোকাস বাংলা নিউজের স্টাফ রিপোর্টার ইকবাল হোসেন মজনুর সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন। স্বাধীনতার পুরস্কার প্রাপ্ত বীরযোদ্ধা অলি আহাদ এ প্রতিবেদককে কাছে পেয়ে দেশ-জাতি-রাজনীতি নিয়ে তাঁর অসমাপ্ত স্বপ্নের কথা, অকৃতজ্ঞ মানুষের কথা বলেছেন। তিনি আবেগে আপ্লুত হয়ে বলেন, ‘সরকার দুরে থাক, আমার সতীর্থরাও তো কেউ দেখতে আসে না। আসবেইবা কেন? আমাকে দিয়ে আর কি হবে, ভাষা আন্দোলনতো শেষ, আমাকে তো আর দরকার নেই’। একজন অকুতোভয় নির্লোভ মানুষ হিসাবে পরিচিত সত্য সন্ধানী এই প্রতিবাদী পুরুষ ১৯২৮ সালে ব্রাহ্মনবাড়িয়া জেলার ইসলামপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৪৭-৪৮ শিক্ষাবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। ১৯৪৮ সালের ২৯ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয় এক্সিকিউটিভ কাউন্সিল কর্মচারীদের দাবি-দাওয়া বাস্তবায়ন সম্পর্কিত আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার কারণে অলি আহদকে চার বছরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করা হয়। একুশে ফেব্রুয়ারীর ভাষা আন্দোলনে তিনি ছিলেন অগ্রভাগে। ৫৮ বছর পর ২০০৬ সালের ২০ মার্চ তাঁর বাহিস্কারাদেশ প্রত্যাহার করে নেয় বিশ্ববিদ্যালয় কতর্ৃপক্ষ। বিশ্ব বিদ্যালয়ের রেকর্ড শাখা অনুযায়ী অলি আহাদ ১৯৫০ সালে বিকম পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করেন। তার লেখা ‘জাতীয় রাজনীতি ১৯৪৫ থেকে ১৯৭৫’ বইয়ে এ সম্পর্কিত বিষয়ে তিনি উল্লেখও করেছেন। অলি আহাদ দীর্ঘশ্বাস তুলে বলেন, পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করেও জীবনে কোন কিছু পাইনি। কিন্ত যারা পাশই করেনি তারা আজ সুনামের সঙ্গে প্রতিষ্ঠিত। ভাষা আন্দোলনের সিপাহসালার অলি আহাদের একমাত্র মেয়ে ব্যারিষ্টার রুমিন ফারহানা আর স্ত্রী মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক (এশিয়া মহাদেশের একমাত্র মহিলা মহাপরিচালক) অধ্যাপিকা রাশিদা বেগমকে নিয়েই এখন অলি আহাদের সময় কাটে। সত্যের প্রয়োজনে যিনি নিজের বিরুদ্ধে কথা বলতেও কখনো এতটুকু চিন্তা করেননি। ইতিহাসের সেই উজ্জল পুরুষটি বার্ধক্যে অচল-অক্ষম হয়ে এখন নিজের নীতি নৈতিকতাকেই বার বার ধিক্কার দিচ্ছেন। বয়ে বেড়াচ্ছেন শ্রবণ ও স্মৃতিশক্তিহীণ এক মানব দেহ। অধ্যাপিকা রাশিদা বেগম বলেন, অবিশ্বাস্য হলেও সত্য! ইতিহাসের এই কালজয়ী মানুষটির নিজের কোন বাসস্থানই নেই। তার বাবা (অলি আহাদের শশুর) গণিতবিদ মরহুম মোঃ শাহাব উদ্দিনের দেয়া বাড়ি ও রাশিদা বেগমের চাকরীর পাওয়া টাকার আয় দিয়েই সংসার চলে তাদের। বিয়ের ৩৩ বছর পরও সেই অতীত স্মৃতি গুলো অলি আহাদকে কাঁদিয়ে বেড়াতে দেখে আসছেন এখনো। কারণ একটাই স্বাধীনতা পুরস্কার প্রাপ্ত এই বীর সৈনিক বিনা চিকিৎসায় ধুকে ধুকে জীবনের শেষ প্রান্তে চলে যাওয়ার পরও রাষ্ট্র কিংবা কোন ব্যক্তি আজো তার কোন খবরই নেয়নি। পাননি কোন সরকারি অনুদান। চিরবিদ্র্রোহী পুরুষটি এখন অসহায় গৃহবন্দী। ডাক্তাররা বলছেন, তাঁকে বাঁচাতে জরুরী কিছু চিকিৎসা দেয়া প্রয়োজন। হার্ট ও ফুসফুসের সমস্যা, চোখের সমস্যা, পায়ের সমস্যা, প্রস্টেট এলার্জ, পড়ে গিয়ে কোমর-হাঁটু পর্যন্ত অপারেশন অচল করে দিয়েছে এক সময়ের সুঠাম দেহের অধিকারী এই ভাষা সৈনিককে। ২০০৪ সালে পড়ে গিয়ে কোমরের হাড় ভাঙ্গার পর মূলত তিনি পুরোটাই ভেঙ্গে পড়েন। তখন হাসপাতালে অনেক সতির্থ, তৎকালীন সরকারের অনেক গুরুত্বপূর্ণ লোকজন তাঁকে দেখতে গেলেও সরকারি বেসরকারি দান অনুদান কিছুই তিনি পাননি। ঠিক মতো কানে না শুনলেও স্ত্রী অধ্যাপক রাশিদা বেগমের সাহায্য নিয়ে অলি আহাদ বলেন, ভাষার মাস এলেই ভাষা সৈনিকের নাম আসে, আর এ মাস চলে গেলে আর কেউ ভুলেও মুখে আনে না। যাদের জন্য মায়ের ভাষা প্রতিষ্ঠায় আন্দোলন করেছি, সেই বাঙালীরাতো আমাদের ছিনিয়ে আনা ভাষায় কথা বলছে সেই আমার সান্তনা। ২০০৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর অসুস্থ হয়ে শেষবার শমরিতা হাসপাতালে সাতদিন চিকিৎসা নেন। সেই থেকে আর হাসপাতালে যাওয়া হয়নি। কিন্তু নির্লোভ এই মানুষটির আজ চিকিৎসার সামর্থ নেই। টাকার অভাবে তিনি নিজের জরুরী চিকিৎসা পর্যন্ত করাতে পারছেন না। পায়ে সমস্যা থাকায় সারাদিন বাসায় ডান কাত হয়ে শুয়ে অসহায়ভাবে অতীত রোমন্থন করেই দিন কাটছে তঁাঁর। ২০০৬ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারী জাতীয় প্রেসক্লাবে বিদ্রোহী একুশ উদযাপন কমিটির উদ্যোগে “ভাষা আন্দোলন ও অলি আহাদ” শীর্ষক আলোচনা সভায় ভাষা আন্দোলনের নিয়ামক ও পুরোধা ব্যক্তিত্বরা ক্ষোভ প্রকাশ করে নির্লোভ, সত্যসন্ধানী, চির প্রতিবাদী এবং বাংলাদেশের নানা রাজনৈতিক ইতিহাসের অনিবার্য চরিত্র অলি আহাদকে রাষ্ট্রিয়ভাবে চিকিৎসার দাবি জানান। কিন্তু সেই দাবি আজো পুরণ হয়নি। এ নিয়ে আক্ষেপ নেই অলি আহাদের। তিনি বলেন, যাবার সময় হয়েছে, এবার চলে গেলেই সবাই বেঁচে যায়। আরতো ভাষা আন্দোলনের দরকার নেই। তাহলে অলি আহাদরা থেকে কি হবে? অলি আহাদ বলেন, একুশে ফেব্রুয়ারী তাঁর জীবনের সবচেয়ে স্মরণীয় ঘটনা। বাংলা ভাষার মাধ্যমে দেশের স্বাধীনতা অর্জন, জীবনে এর চেয়ে বড় ঘটনা আর কি হতে পারে। এখন তার বড় চাওয়া ব্যারিষ্টার পাস করা একমাত্র মেয়ে রুমিন ফারহানা যেন সুনামের সঙ্গে বড় হয়। দেশের নানা রাজনৈতিক ইতিহাসের এমন এক উজ্জল নক্ষত্র ৮২ বছর বয়সের মানুষটি আজ চিকিৎসার অভাবে এলিফ্যান্ট রোডের বাসায় শয্যাশায়ী অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগের অপেক্ষার প্রহর গুনছেন।

উপরোক্ত লেখা দুটি বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা এবং অনলাইন’এ প্রকাশিত হওয়ার পর পর’ই প্রবীন এই ভাষা সৈনিক’কে দেখতে গিয়েছিলেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বর্তমান বিরোধী দলের নেতা, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। সেদিন রাত ৯টায় এলিফ্যান্ট রোডের ৫৫/১, সায়েন্স ল্যাবরেটরি দক্ষিণা নামের বাসায় অলি আহাদ এবং রাত সাড়ে ৯টায় ধানমন্ডির আনোয়ার খান মডার্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিত্সাধীন গিয়াস কামাল চৌধুরীকে দেখতে যান খালেদা জিয়া।

অলি আহাদের পাশে খালেদা জিয়া : এলিফ্যান্ট রোডের বাসায় ভাষাসৈনিক অলি আহাদের সঙ্গে প্রায় আধঘণ্টা সময় কাটান তিনি। এ সময় তারা বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন। ভাষাসৈনিককে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়ে তার দীর্ঘায়ু কামনা করেন বিএনপি প্রধান।

গিয়াস কামালের পাশে খালেদা জিয়া : অলি আহাদের বাসা থেকে বেরিয়ে খালেদা জিয়া যান ধানমন্ডির ৮ নম্বর রোডে আনোয়ার খান মডার্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অসুস্থ সাংবাদিক গিয়াস কামাল চৌধুরীকে দেখতে। সেখানে গিয়াস কামাল চৌধুরীর শয্যাপাশে বেশ কিছুক্ষণ অতিবাহিত করে তার আশু রোগমুক্তি কামনা করেন তিনি। উভয়ের সঙ্গে সাক্ষাতের সময় খালেদা জিয়ার সঙ্গে ছিলেন দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, সেলিমা রহমান, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপার্সনের প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান সোহেল প্রমুখ। এর আগে মহান একুশে ফেব্রুয়ারির দিন ভাষাসৈনিক আবদুল মতিনকে দেখতে যান খালেদা জিয়া।

বর্নাঢ্য এই ভাষা সৈনিক অলি আহাদ এর জীবন বৃত্তান্তঃ

অলি আহাদ একজন ভাষা সৈনিক। ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’ এই দাবিতে জীবন জীবনবাজী রেখে লড়াই করেছেন। মাতৃভাষা রক্ষার দাবিতে পৃথিবীতে যে সকল আন্দোলন এ যাবতকালে সংগঠিত হয়েছে, তার মধ্যে বাঙ্গালীর ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারীর ভাষা আন্দোলন শ্রেষ্টতম। যার কারণে ২১ ফেব্রুয়ারীকে আন্তর্জাতিক মর্যাদায় ভাষা দিবস হিসেবে পালিত হয়।
ভাষা সৈনিক অলি আহাদের জন্ম ১৯২৮ সালে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় সদর উপজেলার ইসলামপুরে। তাঁর পিতা আবদুল ওহাব। তিনি ছিলেন ডিস্ট্রিক্ট রেজিস্ট্রার।
পড়াশুনার হাতেখড়ি পরিবারে। প্রাথমিক পড়াশুনা শেষে ১৯৪৪ সালে তিনি মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হয়ে ঢাকা কলেজে ভর্তি হন। ১৯৪৬ সালে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পক্ষে গণভোটে তিনি ত্রিপুরা জেলার ৪ সদস্য বিশিষ্ট ওয়ার্কাস ক্যাম্পের অন্যতম সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন ৷ পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার জন্য আন্দোলনের কারণে ১৯৪৬ সালে আই এস সি পরীক্ষা দিতে পারেন নি। এরপর তিনি ১৯৪৭ সালে প্রথম বিভাগে আই এস সি পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। কলেজ জীবনেই তিনি পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে মুসলিম ছাত্রলীগের কর্মী হিসাবে রাজনীতিতে যুক্ত হন।
১৯৪৮ সালে ৪ জানুয়ারি গঠিত হয় পূর্ব পাকিস্তান মুসলীম ছাত্রলীগ। তিনি এ সংগঠনের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। ১৯৫২ এর রক্তস্নাত ভাষা আন্দোলনে অন্যতম নেতৃত্ব দানকারী সংগঠন পূর্ব পাকিস্তান যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি। ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ ভাষা আন্দোলনের জন্য তাকে প্রথম কারাগারে নিক্ষিপ্ত পাকিস্তান পুলিশ। ১৯৫০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি. কম পরীক্ষায় প্রথম হওয়া সত্ত্বেও রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে সম্পৃক্ত থাকার কারণে তত্কালীন কর্তৃপক্ষ তাঁকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এম কম পড়ার সুযোগ না দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করে।
১৯৫২ সালের ফেব্রুয়ারী রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ঢাকা ছিল উত্তাল। এ আন্দোলন ছড়িয়ে গিয়েছিল সারাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, অফিস আদালতে এবং রাজপথের সবখানে। ৫২’ সালের একুশে ফেব্রুয়ারী ছিল রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে সারা দেশে আন্দোলনের প্রস্তুতি দিবস। ওই দিন সকাল ৯টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জিমনেসিয়াম মাঠের পাশে ঢাকা মেডিকেল কলেজের (তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত) গেটের পাশে ছাত্র-ছাত্রীদের জমায়েত শুরু হতে থাকে। সকাল ১১ টায় কাজী গোলাম মাহবুব, অলি আহাদ, আব্দুল মতিন, গাজীউল হক প্রমুখের উপস্থিতিতে ছাত্র-ছাত্রীদের সমাবেশ শুরু হয়।
২০ ফেব্রুয়ারী পাকিস্থান সরকার ভাষা আন্দোলনের প্রস্তুতিকে তছনছ করে দেয়ার জন্য ঢাকাতে সমাবেশ, মিছিল-মিটিংযের উপর ১৪৪ ধারা জারি করে। সকালের দিকে ১৪৪ ধারা ভংগের ব্যাপারে ছাত্র-রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে মতানৈক্য দেখা দেয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর ড. এস এম হোসেইন এর নেতৃত্বে কয়েকজন শিক্ষক সমাবেশ স্থলে যান এবং ১৪৪ ধারা ভংগ না করার জন্য ছাত্রদের অনুরোধ করেন।
বেলা ১২টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত সময় ধরে উপস্থিত ছাত্রনেতাদের মধ্যে আব্দুল মতিন এবং গাজীউল হক ১৪৪ ধারা ভংগের পক্ষে মত দিলেও সমাবেশ থেকে নেতৃবৃন্দ এ ব্যাপারে কোন সুনির্দিষ্ট ঘোষণা দিতে ব্যর্থ হন। এ অবস্থায় বাংলার দামাল ছেলেরা দমনমূলক সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রুখে দাড়ায়। বিশ্ববিদ্যালয় সংগ্রাম পরিষদ ১১৪ ধারা ভঙ্গ করতে বদ্ধপরিকর ছিল। সংগ্রাম পরিষদের সভায় আবদুল মতিন, অলি আহাদ ও গোলাম মওলা ১১৪ ধারা ভাঙ্গার পক্ষে ভোট দেন। ছাত্ররা ১০ জনে অসংখ্য দলে বিভক্ত হয়ে শৃঙ্খলার সঙ্গে ১১৪ ধারা ভঙ্গের সিদ্ধান্ত নেয়। ২১ ফেব্রুয়ারি ছাত্ররা ১১৪ ধারা ভাঙ্গা শুরু করলে ছাত্রদের সাথে পুলিশের খণ্ডযুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। উপস্থিত সাধারণ ছাত্ররা স্বত:স্ফূর্তভাবে ১৪৪ ধারা ভংগের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এবং মিছিল নিয়ে পূর্ব বাংলা আইন পরিষদের (বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের অন্তর্গত) দিকে যাবার উদ্যোগ নেয়। অধিকার আদায়ের দাবিতে শত শত বিদ্রোহী কন্ঠে “রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই” এই দাবীতে আন্দোলোন তীব্র হয়ে উঠে। পুলিশের সঙ্গে ছাত্র জনতার সংঘর্ষ হয়। শ্লোগানে শ্লোগানে কেঁপে উঠে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যামপাস। বুলেট আর লড়াই শুরু হয়। পুলিশ লাঠিচার্জ এবং গুলি বর্ষণ শুরু করে। গুলিতে ঘটনাস্থলেই আবুল বরকত (ঢাবি এর রাষ্ট্রবিজ্ঞান এর মাষ্টার্সের ছাত্র), রফিক উদ্দীন, এবং আব্দুল জব্বার নামের তিন তরুণ মারা যায়। রফিক, জাব্বার, বরকত সহ নাম না জানা আরও অনেকের সাথে সালামও সেদিন গুলিবিদ্ধ হন।
২৪ ফেব্রুয়ারি সকালে অনানুষ্ঠানিক ভাবে শহীদ শফিউর রহমানে পিতা আর ২৬ ফেব্রুয়ারি আবুল কালাম শামসুদ্দিন আনুষ্ঠানিক ভাবে শহীদ মিনারের উদ্বোধন করেছিলেন। ইতিমধ্যে পুলিশ নিরাপত্তা আইনে আবুল হাশিম, আবদুল হামিদ খান ভাসানী, অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী, অধ্যাপক অজিতকুমার গুহ, পুলিন দে, অধ্যাপক পৃথ্বিশ চক্রবর্তী, অলি আহাদ প্রমুখকে গ্রেফতার করে।
তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যুক্ত থাকাকালীন সময়ে প্রচার সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৫৭ সালে কাগমারী সম্মেলনের মধ্য তিনি মাওলানা ভাসানীর সাথে প্রগতিশীলদের পক্ষে যোগ দেন। সাপ্তাহিক ইত্তেহাদ পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন কালে তিনি স্বৈরাচার বিরোধী জনমত গঠন করেন। তাঁর রচিত ‘জাতীয় রাজনীতি ১৯৪৫-৭৫’ নামক গ্রন্হটি এ দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনের একটি ঐতিহাসিক প্রামাণ্য দলিল। এবং সেই সময়ে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছিল।

সাধীনতা যুদ্ধে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। মুক্তিযুদ্ধের পর স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশে তিনি আধিপত্যবাদ বিরোধী অবস্হান গ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধের মৌলিক চেতনা বাস্তবায়নের জন্য শাসকদের উপর তিনি চাপ সৃষ্টি করেন। তত্কালীন সরকারের অত্যাচার ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে মজলুম জননেতা মাওলানা ভাসানীর নের্তৃত্ব দুঃশাসন বিরোধী এক তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলেন। সরকার কর্তৃক ১৪৪ ধারা জারি করে সভা সমিতি বন্ধ করার প্রতিবাদে জানিয়ে জনাব অলি আহাদ ১৯৭৪ সালের ২৮ জুন হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। এ কারণে ১৯৭৪ সালের ৩০ জুন বিশেষ ক্ষমতা আইনে সরকার তাঁকে গ্রেফতার করে।
আশির দশকে সামরিক শাসন ব্যবস্হার বিরুদ্ধে আপোসহীন ভূমিকার কারণেও তাঁকে একাধিকবার গ্রেফতার করে কারাগারে আটকে রাখা হয়। এরশাদ সরকার সামরিক ট্রাইবুনালে তাঁর বিচার করে। ওই সময় জনপ্রিয় সাপ্তাহিক ইত্তেহাদকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়।
স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধে তাঁর বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ জনাব অলি আহাদকে স্বাধীনতা পুরস্কার ২০০৪ প্রদান করা হয়।

২১শে ফেব্রুয়ারী রাত ১২:০১ মিনিটে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সহ সারা দেশের সকল শহীদ মিনারে ১৬ কোটি জনতা ভাষার জন্য যারা জীবন উৎসর্গ করেছে তাদের প্রতি গভীর বিনম্র শ্রদ্ধা প্রদর্শন করার জন্য ফুলে ফুলে ভরে দেয়। মাস ব্যাপি হয় একুশে বই মেলা, মাতৃভাষায় কথাবলি, মাতৃভাষায় গান করি, মাতৃভাষায় কবিতা লিখি কিন্তু যারা এই ভাষাকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য নিজেদের জীবনকে উৎসর্গ করেছে তাদের প্রতি আমাদের দায়িত্ব-কর্তব্য কতটুকু পালন করি?

অর্থাভাবে এর আগেও নিদারুন কষ্টে প্রিয় ভাষা সৈনিক অলি আহাদ বলেছিলেন “কি হবে পত্রিকায় লিখে, আমাদের কেউ দেখতে আসে না-খবরও রাখে না ।” মৃত্যুর স্বাদ প্রত্যেক মানুষকেউ গ্রহন করতে হবে। এই চিরন্তন সত্যকে বিশ্বাস করেও বলতে চাই যারা অলি আহাদের শেষ অন্তিম মুহুর্তে খবর রাখেনি, তারা যেন তার শবদেহে ফুলে ফুলে ভরে না দেয়।

শ্রদ্ধা আর বিনম্র ভালোবাসার ফটোসেশনের দৃশ্য আমরা দেখতে চাই না। আমরা দেখতে চাইনা রাষ্ট্র রাষ্ট্রের সবচেয়ে গর্বের মানুষের পাশে সময়মত না দাড়িয়ে মৃত্যুর পরেই শোক বিবৃতি, শোক বই খোলা, কালো ব্যানারে গোটা শহর ছেয়ে দেওয়া, স্মরণ সভা করা আর নাগরিক শোকসভার আয়োজন করে তার আত্মার প্রতি লোকদেখানো শ্রদ্ধা নিবেদন করা।

রাষ্ট্রের প্রতি আমাদের অনুরোধ, আর কোন বীর বাংঙ্গালীর অবহেলায়, অযত্নে ও অর্থাভাবে অলি আহাদের মত ধুকে ধুকে মৃত্যুর প্রহর গুনতে না হয়। সাংবাদিক নির্মল সেন, গিয়াস কামাল চৌধুরী, ভাষা সৈনিক মতিন সহ জাতীয় বীরদের উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে সরকার রাষ্ট্রের শ্রেষ্ঠ দায়িত্ব পালন করবে এই আমাদের প্রত্যাশা।

হয়তো লেখার যবনিকা টানার আগেই বাংলাদেশের ইতিহাসের পাতা থেকে আরেকটি নক্ষত্রের বিদায় হবে। সারাদেশ জুড়ে শোকে দুঃখে কেঁদে উঠবে কোটি জনতার প্রান, তার পরেও বলি হে ভাষা সৈনিক, বাংঙ্গালী জাতির গর্বের সন্তান, তোমাকে জানাই লাল সালাম।

(বিভিন্ন সংবেদনশীল তথ্যসূত্র ও ছবিঃ ইন্টারনেট)