ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

 

কি রে তুই শাড়ি কিনলি না? না কি কিনছিস দেখাবি না। আরে বাবা এটা তো পহেলা বৈশাখ ঈদ তো আর না । তাহলে শাড়ি দেখালে সমস্যা কি?

আমি জানালাম আমি শাড়ি কিনি নাই।

তখন বিপরীত প্রশ্ন তাহলে সালোয়ার-কামিজ কিনবি?

জানালাম না।

কিছুই কিনবি না?

না। কেন সময় পাচ্ছিস না?

ঠিক তা না, কোন কিছু কেনার দরকার মনে করছি না।

ওমা তাই হয় নাকি। বছরের প্রথম দিন, এত অনুষ্ঠান , নতুন জামা পরবি না?

না, ভদ্রস্থ কোন জামা পরেই আমি চালিয়ে নিতে পারবো।

তোর যা কথা , চালিয়ে নেয়া, তুই আর মানুষ হইলি না। এই দিনে এখনো এমন কেউ আছে?

পূর্বোক্ত কথাগুলো আমি আর আমার একজন আধুনিক বান্ধবীর মধ্যকার। যিনি নববর্ষ উপলক্ষে প্রায় ৮০০০ হাজার টাকার কেনাকাটা করেছেন ০৯.০৪.২০১১ তারিখের আগ পর্যন্ত, এখনো ৪ দিন বাকি। তার কথার ফলাফল অনুযায়ী আমি অমানুষ। সনাতন ধর্ম অবলম্বী হলে তবু দোষ করছি এই হিসেবে মেনে নিতাম, কিন্ত আমি তো জন্ম সূত্রে মুসলিম, জন্মস্থান সূত্রে বাঙ্গালী। সেই অনুযায়ী আমি আমোদপ্রিয়, নতুন জামা পরে আনন্দ করতে হবে এমন তো কথা নেই। হ্যা,স্বীকার করছি নতুন কিছু প্রাপ্তি আনন্দ বর্ধনে সহায়তা করতেই পারে তাই বলে আমাদের বর্তমান কিছু সময়ে যেভাবে পোশাক এবং খাবার প্রধান বিষয় হয়ে যাচ্ছে তাতে বোধকরি আমাদের সকলের আবার ভেবে দেখার অবকাশ রয়েছে।প্রিয় দেশবাসী এবং অবশ্যই ব্লগবাসী গত কয়েকদিনে বিপণিবিতান গুলোর ভীড় দেখেছেন? এটা কি আমার ভুল নাকি বিষয়টা সত্যিই এমন যে আমরা একটু বেশিই বাড়াবাড়ি করছি? আগে নতুন বছরে হালখাতা খোলা হতো। এখন তো মনে হয় নতুন বছরের পণ্য বিক্রির জন্য আরেকটু আগেই কয়েকটি খাতা কিনে ফেলা হচ্ছে। আর আমাদের হাতে যা থাকছে তা আমরা রেখে দিচ্ছি শখের পান্তা ইলিশ খাবো বলে। তবে সকালে পান্তা খেলেও দুপুরে যে আমরা কতজন ফাস্টফুড, চাইনিজ,কেএফসি, বিএফসি বা বুমারস্ এ খাবো না তার হিসেব বোধহয় আমরা নিজেও জানিনা।প্রশ্ন হলো আমরা কি সংস্কৃতির সুষ্ঠু বিশ্বায়ন করতে পারছি?