ক্যাটেগরিঃ আন্তর্জাতিক

 

পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্টের রায়ে গিলানিকে শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী পদ ছাড়তে হচ্ছে। গত ২৬শে এপ্রিল সুপ্রিম কোর্ট গিলানিকে দোষী সাব্যস্ত করে আর গতকাল তাকে প্রধানমন্ত্রী এবং সংসদ সদস্য হিসেবে অযোগ্য ঘোষনা করে এবং তার সাথে সাথে বলে দেয় বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী পদটি শূন্য আছে এখন আর গিলানী পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নয়। এই অবস্থায় প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারী জরুরী বৈঠকে নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মখদুম শাহাবুদ্দিনকে মনোনয়ন দিয়েছে। তিনি বর্তমান সরকারেরর বস্ত্র মন্ত্রী। এখন দেখার বিষয় নতুন প্রধানমন্ত্রী পাকিস্তানকে কোন পথে নিয়ে যায়। গিলানী পাকিস্তানের রাজনীতিকে মোটামুটি একটা কাঠামোর মধ্যে নিয়ে এসেছিল, পাকিস্তানের হাজারো সমস্যা সামাল দেয়া যে কোন প্রধানমন্ত্রীর জন্য খুবই কঠিন কাজ। আর মনে রাখতে হবে গিলানীকে যে কারনে অপসারন করা হল আগামী প্রধানমন্ত্রীকে সেই একই কারনে অপসারন করা হবে না তার কি গ্যারান্টি আছে। আমরা জানি সুইস কর্তৃপক্ষ অনেক আগের একটা মামলায় প্রেসিডেন্ট আসিফ আলীর জড়িত থাকার বিষয় জানতে চেয়েছিল। পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট গিলানিকে এই মামলা শুরু করার জন্য আদেশ দেয় । সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশ গিলানি অমান্য করে এবং আদালতে যুক্তি দেয় দেশের প্রেসিডেন্টকে রক্ষা করার জন্য যে আইন আছে তাতে প্রসিডেন্ট থাকা অবস্থায় তার বিরুদ্ধে এই ধরনের পদক্ষেপ নেয়া যায় না। সুপ্রিম কোর্ট তার এই যুক্তিকে গ্রহন না করে তাকে দোষী সাব্যস্ত করে এবং প্রতীকী সাজা দেয়। তাই পাকিস্তানের সামনের দিক যে কোন দিকে যাবে তা বলা মুশকিল।

পাকিস্তানের জন্য এই ঘটনা একটি বিরাট সফলতা। দেশে বিদেশে যেখানে পাকিস্তান একটি ব্যর্থ রাষ্ট্র হিসেবে পরিগণিত হচ্ছে সেখানে সুপ্রিম কোর্টের এই রায় দেশটিকে আশার আলো দেখাবে। সাধারন মানুষের মধ্যে এখন এমন ধারনা জন্মাবে যে কোন পরিস্থিতিতে পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্ট তাদের কে উদ্ধার করতে পারবে যেহেতু সুপ্রিম কোর্ট যে কোন ভয় ভীতির উর্ধ্বে থেকে তাদের দায়িত্ব পালন করে আসছে। আর একটা জিনিস প্রমানিত হল পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট সত্যিকার অর্থে স্বাধীন ভাবে কাজ করতে পারছে যা একটা রাষ্ট্রের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

পরিশেষে আমরা পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টের থেকে নিজেরা শিক্ষা গ্রহন করে আমাদের দায়িত্ব যদি সঠিক ভাবে পালন করি তাহলে আমাদের দেশ থেকে অনেক অনিয়ম দূর করা সম্ভব। ইদানিং আমাদের হাই কোর্ট বিভিন্ন বিষয়ে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে কিছু বিষয়ে রুল জারি করছে , আমরা চাই হাইকোর্ট বিভাগ আরো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করুক । সাধারন মানুষ সব সময় ভাল কাজের সাথে থাকে তাই বিচারকদের ভয়ের কোন কারন নেই, যতক্ষন তারা ভয় ভীতির উর্দ্ধে থেকে দেশের স্বার্থে কাজ করবেন ততক্ষন দেশবাসী তাদের সাথে থাকবে ইনশাল্লাহ।