ক্যাটেগরিঃ আন্তর্জাতিক

 

আমেরিকায় আবার নারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেখা যেতে পারে। হিলারী ক্লিনটন আগেই জানিয়ে দিয়েছেন তিনি দ্বিতীয় মেয়াদে আর দায়িত্ব পালন করবেন না । যদিও বারাক ওবামা হিলারীকে অনুরোধ করে যাচ্ছেন তবে হিলারী হয়ত অন্য কোন চিন্তা থেকে সরে দাঁড়াতে চাচ্ছেন। হয়ত আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হিলারী নিজেই প্রার্থী হতে পারেন। এখন পর্যন্ত মার্কিন মূলক থেকে যে খবর আসছে তা হল যদি সত্যি সত্যি হিলারী দায়িত্ব থেকে সরে যান সে ক্ষেত্রে জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত সুসান রাইস পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পেতে পারেন। সেটা যদি হয় তাহলে সাম্প্রতিক কালে মার্কিন প্রশাসনে গুরুত্বর্পূণ এই পদে নারীদের আধিক্যই বেশী থাকবে । মেডিলিন অলব্রাইট , কন্ডোলিসা রাইস , হিলারী ক্লিনটনের পরে আসতে পারে সুসান রাইস । সুসান রাইস ১৭ নভেম্বর ১৯৬৪ সালে ওয়াশিংটনে জন্ম গ্রহন করেন। ১৯৮৬ সালে স্টামফোর্ড থেকে ব্যাচেলার এবং পরে হাভার্ড থেকে এম বি এ ডিগ্রী অর্জন করেন। এরপর অক্সফোর্ড থেকে ১৯৮৮ সালে এম ফিল এবং ১৯৯০ সালে ডি ফিল ডিগ্রী অর্জন করেন। ওক্সফোর্ড থেকে ইন্টারন্যাশনাল লয়ের উপর ডিগ্রী নেন। ১৯৯২ সালে তিনি বিয়ে করেন। মার্কিন প্রশাসনে তিনি বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেন। সুসান রাইন মেডিলিন অলব্রাইটের সচিব হিসেবে কাজ করেন । ২০০৮ সালে ওবামা প্রেসিডেন্ট হবার পর তার দায়িত্ব আরো ও বেড়ে যায়। বর্তমানে জাতিসংঘে তিনি মার্কিন রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ওবামা প্রশাসন তাকেই পরবর্তী মার্কিন পররাষ্টমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিচ্ছেন বলে জানা যায়। শুধু মাঝখানে কলিন পাওয়েল এক মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেছেন। হিলারী ক্লিনটনের সাথে আমাদের সম্পর্ক খুবই ভাল ছিল যদি ও আমরা সে সম্পর্ক কাজে লাগাতে পারিনি। এখন যদি নতুন কেউ দায়িত্ব নেয় সে ক্ষেত্রে নতুন করে সম্পর্ক তৈরি করতে হবে । যতদূর জানা যায় সুসান রাইস আফ্রো আমেরিকান তাই তিনি দায়িত্ব নিলে আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যে নিয়ে বেশী ব্যস্ত থাকবেন । সে ক্ষেত্রে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে আমাদের সম্পর্ক কোন জায়গায় গিয়ে দাঁড়ায় তাই এখন দেখার বিষয়।