ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

দূর্নীতি দমন কমিশন তার তুঘলকি কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এর আগে দূর্নীতিবাজদের সৎ এবং ভাল মানুষ হিসেবে ঘোষনা দিয়ে তাদের সার্টিফিকেট দিয়েছিল। আবার চাকর, ড্রাইভার,চাপরাশিদের কথার কোন মূল্য নেই বলে সাধারন মানুষ কে হেয় প্রতিপন্ন করেছিল। এখন একেক দিন একেক কথা বলছে। সর্বশেষ পদ্মা সেতু নিয়ে আবার তুঘলকি কাজ করল কমিশন। কমিশন স্বীকার করে নিল পদ্মা সেতুতে দূর্নীতি হয়েছে এখন আবার যাদের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ তাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে রাজী হচ্ছে না । বিশ্ব ব্যাংক ফিরে যাচ্ছে আর বোঝা যাচ্ছে তারা হয়ত পদ্মা সেতুতে আর ফিরবে না । আমি বুঝতে পারি না মাত্র কয়েকজন ব্যাক্তির জন্য কোটি কোটি লোকের স্বপ্নের পদ্মা সেতু হচ্ছে না আর আমরা তা মেনে নিচ্ছি। হয়ত এমন একদিন আসবে যখন শুধু আবুল হোসেন বা আবুল হাসান সহ বারো পনের ব্যাক্তি নয় আজকের দূর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান ব্যাক্তি সহ আরো অনেককে এর দায়িত্ব বহন করতে হতে পারে। যারা খুন , সন্ত্রাসী করে তাদের ক্রসফায়ারে দেয়া হয় আর যারা দেশের হাজার হাজার কোটি টাকা চুরি করে বিশ্বের কাছে আমাদের মান মর্যাদা ধুলায় মিটিয়ে দিচ্ছে তাদের দেশপ্রেমিক আর ভাল মানুষের সার্টিফিকেট দেয়া হয়। এবার দেশের জনগনকে সত্যিকার অর্থে মাথা উচু করে দাড়াতে হবে এসব অন্যায় অবিচারের প্রতিবাদ করতে হবে ।