ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

আমি আজ বাংলাদেশী। ভাষা আমার বাংলা কারণ, আমরা ভাষার প্রশ্নে বাঙালি। এ দেশের সাধারণ মানুষ রক্ত দিয়েছেন, প্রাণ দিয়েছেন আরও দিয়েছেন মান । কিন্তু কেন ? দেশের এই রকম অবস্থা দেখার জন্যে ? আমার ভীষণ খারাপ লাগে, লজ্জায় মরে যেতে ইচ্ছে করে যখন দেখি বিদেশিরা আমাদেরকে বাঙালি বলে তিরস্কার করে। বাঙালি জাতি একটি গর্বিত জাতি তাতে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই তবু কেন বাঙালি বলে আমাদেরকে পদে পদে ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্ছিত করা হয়, তিরস্কার করা হয়, এমনকি বিদেশী কারো সাথে চ্যাট করতে চাইলে বাঙালি পরিচয় দিলে তারা আর চ্যাট করতে আগ্রহী হয় না। কিন্তু কেন ? কোথায় আমাদের সমস্যা ? আমরা গরিব বলে ? নাকি অন্য কিছু ? তার কোনোটাই নয়। তার একমাত্র কারণ আমরা বেঈমান, আমরা দুর্নীতিবাজ, আমরা বিশ্বাস ঘাতক !!! যে মানুষটি আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন, আমাদের বুকে আশার আলো জ্বালিয়েছিলেন, সে মানুষটিকে বাংলার নবাব সিরাজউদ্দৌলার মতো বিদায় নিতে হল। তিনি বিশ্বাস করতেন, তাঁর দেশের মানুষ তাঁকে গভীর ভালবাসে, তাঁকে এভাবে কেউ মারতে পারে তা তিঁনি কখনোই ভাবেননি। আমরা আমাদের দেশের জনকের সাথে বিশ্বাস ঘাতকতা করেছি!!! (এই সমস্ত কারণেই আজ আমরা জাতি হিসেবে নিষ্পেষিত, কলংকিত। দেশ স্বাধীনের সবচেয়ে বড় উদ্দেশ্য ছিল আমাদের অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জন। আমরা মনে করতাম পাকিস্তানি বড়লোকেরা আমাদের চুষে খাচ্ছে, আসলে ব্যাপারটা একশত ভাগ সত্যি । কিন্তু আজ স্বাধীনতার এত বছর পরও কি সেই পাকিস্তানি বড়লোকেরা আমাদের চুষে খাচ্ছে ? যদি বলি না, তাহলে দেখতে হবে কারা আজ আমাদেরকে চুষে খাচ্ছে। পার্থক্য শুধু এই আগে ছিল ব্রিটিশ তার পর পাকিস্তানি কিন্তু এখন, এখন তো নিজের দেশের বড়লোকেরাই সবকিছু চুষে খাচ্ছে। তাহলে দেশ স্বাধীন হয়ে কী হল !!! আসল সমস্যা তো রয়েই গেল। দেশের এত এত সমস্যা থাকতে রাজনৈতিক দলগুলো তাদের নিজেদের সুবিধার জন্য মরতে পারে, অসহনীয় জন দুর্ভোগ তৈরি করতে তাদের জুরি নেই !!!

বললে হাজার পাতা লিখলেও ফুরাবে না ওনাদের অপকর্মের কথা। তবু আমি বলতে চাই, দেশের মঙ্গলের স্বার্থে, আপামর জনগণের স্বার্থে হরতাল থেকে বিরত থাকুন কারণ, এটা আপনাদের দলীয় দাবি, আমাদের জনগণের দাবি নয়। আমাদের দাবি দেশ শান্তিতে থাকুক, আমরা কোনো বিশৃংখলা দেখতে চাই না । বিরোধী দলকে বলবো, আপনারা জনগণের হয়ে কাজ করার ইচ্ছা থাকলে রাজ পথে নয় বরং সংসদে যান আর মামলার ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নিন, আইন আর রাজনীতিকে একজায়গায় এনে দাঁড় করাবেন না প্লিজ । জানি বলবেন, সংসদে কথা বলতে দেয়া হয় না। আমার প্রশ্ন, আমরা তথা আপামর জনগণ আপনাদের ভোট দিয়ে আমাদের নেতা বানিয়েছি, যে দল মেজরিটি পেয়েছে সে দল মেজরিটির বলে সংসদে যে কোন বিল পাস করাতে পারে, এটা তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার । এটাই গণতন্ত্রের নিয়ম। এখানে আপনারা বিরোধী দলের বলার কিছু নেই। তাই বলে আপনারা সংসদে যাবেন না কেন ? জনগণ আপনাদের ভোট দিয়েছে সংসদে যাওয়ার জন্যে, রাজ পথে আর ঘরে বসে থাকার জন্য নয়। বলবেন, সংসদে গিয়ে যদি কথা বলতে না পারি তাহলে যাব কেন ? আমি বলবো, এটা জনগণ দেখবে, আপনারা আপনাদের দায়িত্ব অবশ্যই পালন করতে হবে আর না পারলে পদত্যাগ করুন দয়া করে আমাদের জন্য দুর্ভোগ ডেকে আনবেন না । এটা আমাদের সময়ের দাবি