ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

আমাদের দেশে রাজনীতির নতুন মাত্রা শুরু হয়েছে।সাবেক একনায়ক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ একক ভাবে নির্বাচন করার যে কথা বলছেন, তা হতে পারে এক ধরনের কৌশল,কিন্তু এটা ঠিক যে বাংলাদেশে জোট রাজনীতিতে বড় দল কথা রাখে না। জাতীয় পার্টি একটি শক্তিশালী দল,কিন্তু আওয়ামী লীগ ক্ষমতার দম্ভে তাদের মূল্যায়ন করে নাই। কোন প্রেক্ষাপটে ১৯৮২ সালে এরশাদকে ক্ষমতা নিতে হয়েছিল তা এখন হয়তো মানুষ ভুলে গেছে, কিন্তু তিনি তার শাসন আমলে দেশের জন্য যা করেছেন তা মানুষ এখনও স্মরন করছে। তিনি একমাত্র সেনা শাসক যে গণ-অভ্যুথানে পতিত হয়েও রাজনীতিতে ঘুরে দাড়িয়েছেন। তার সময় ণুর হসেন হত্যা হয়েছিল কিন্তু কে হত্যা করে ছিল তা কেউ বলতে পারে না, ণুর হসেন এর নামে দিবস হল, চত্তর হল-কিন্তু এর পর কি হল? বিশ্বজিত দিবস-চত্তর কি হতে পারে না?? বিএনপি এর আমলে হত্যার কথা বলে শেষ করা যাবে না। এরশাদের সময় তার ভাই জি এম কাদের কি মন্ত্রী ছিল?তিনি উপজিলা ব্যাবস্থা চালু করেসিলেন যার সুফল মানুষ ভোগ করেছিল। কিন্তু গনতন্ত্র চালু হলেও উপজিলা চেয়ারম্যানদের ক্ষমতা দেয়া হয় নাই । আমরা এখন দুই দলের চরম প্রতিহিংশার রাজনীতি দেখছি। কথা রাখেন নাই শেখ হাসিনা, আপসহীননেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আপস করলেন নিজামী-সাঈদীদের সাথে। আমরা কি করব এখন?হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ আর একবার ক্ষমতায় আশুক এটা অনেকের প্রত্যাশা, হয়ত উনাকে ভোট দিবে না সবাই কিন্তু মনে মনে তাকে চায়। এখন সময় এরশাদের নিজেকে প্রমান করার, জনগনের মনে তার সম্পর্কে বিশ্বাস জন্ম দেবার। বিশ্বজিত এর পরিবারের পাশে গিয়ে তিনি কি সেই কাজই শুরু করলেন?