ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

সত্যিই অভূত ঐতিহাসিক একটি ক্ষণ – যখন শাহবাগ প্রজন্ম স্কয়ারের ঘোষিত শপথ মেনেই আজ বিকেল চারটায় সমগ্র বাংলাদেশের যে যেখানে সেখান হতে হাত উঁচিয়ে দাঁড়িয়ে নীরব ৩ মিনিট —- প্রজন্মের গণজাগরণের সঙ্গে একাত্ম সংহতি প্রকাশ করে ঐতিহাসিক একটি মুহূর্ত রচে বিশ্বকে দেখালো বাংলাদেশ জেগে উঠেছে আবারও একাত্তুরের চেতনায়। আমরা চেতনার এমন একটি গণজাগরণের কথা ভেবেছি শুধু। প্রজন্ম সেই গণজাগরণের স্ফূরণ ঘটালো আজ। কেউ কি আগে দেখেছে? শাহবাগ প্রজন্ম স্কয়ারের ঢেউটি ছড়িয়ে পড়েছে সারা বাংলাদেশে। এমন কি প্রবাসী বাংলাদেশিরাও আজ তাদের অবস্থান হতেই এই ঐতিহাসিক ক্ষণটির সময় উঠে দাঁড়িয়ে নীরব ৩ মিনিট পালন করেছে। কেউ দেখেনি আগে এমন একাত্মতার মুহূর্ত।

শাহবাগ প্রজন্ম স্কয়ারে প্রজন্ম আর জনগণের সঙ্গে এক কাতারে দাঁড়িয়ে মঞ্চের শ্লোগানের জয়োধ্বনিতে কন্ঠ মিলিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপুমনি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। তাঁরাও হাত উঁচিয়ে দাঁড়িয়ে নীরব ৩ মিনিট পালন করেই সংহতি প্রকাশ করেছেন গণজাগরণের সঙ্গে। প্রধানমন্ত্রীও ইতোপূর্বে শাহবাগের প্রজন্মের গণদাবীর সঙ্গে একাত্ম সংহতি জানিয়েছেন সংসদ হতে। আইন সংশোধনের প্রস্তাব পাশ হয়েছে। প্রজন্মের গণদাবীর প্রেক্ষিতে সরকারের সংহতি প্রকাশের নজির নেই এদেশে। কেউ দেখেছে আগে? প্রজন্ম দেখিয়েছে। হাজার সালাম প্রজন্ম।

আজ দুপুর হতে আমিও ঠায় ৭১-টিভির সামনে বসেছি – সরাসরি সম্প্রচারিত শাহবাগ প্রজন্ম স্কয়ারের সঙ্গেই একাত্ম হয়েছি —- ঠিক বিকেল চারটায় তাদের শপথ মেনেছি —- হাত উঁচিয়ে দাঁড়িয়ে নীরব ৩ মিনিট —- প্রার্থনায় বলেছি –

“হে আল্লাহ, বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মকে আরও জীবনীশক্তিমান করুন —- আয়ুষ্মান করুন —- অবিচল সৈনিক করুন —- আমীন।।”

আজ অষ্টম দিন ধরেই শাহবাগের আকাশতলে প্রজন্মের দিনরাত্তির কাটছে জাগ্রত সৈনিকের মতোই। সর্বস্তরের মানুষ এসে দাঁড়াচ্ছে পাশে। যার যা কিছু আছে তা দিয়ে সাহায্য করছে। কেউ দেখেছে আগে অভূত এই গণজাগরণের দৃশ্য? যেন বা একাত্তুরই এসেছে ফিরে ! তরুণ-তরুণীর শ্লোগানে একাত্তুরের শাণিত জয়োধ্বনি –

জয়বাংলা ! জয় মুক্তিযুদ্ধ !

জয় হউক এই গণজাগরণের —- জয়বাংলা।।

১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৩