ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

IMG_20141202_084839

তখন সকাল কুয়শামাখা। চারপাশে লোকজনের চলাচল শুরুর পালা। অামিও ডাক্তারের নির্দেশ মেনে স্বামীর সঙ্গে সকালে হাঁটতে যাওয়া শুরু করেছি – বাড়ির কাছের গুলশান লেডিস পার্কে। দারুণ সব গাছের ঘ্রাণ। শানবাঁধানো ঘাটলাও রয়েছে বসবার। দুইতিনটা চক্কর দিতেই ঘেমেনেয়ে একসা অামি শানবাঁধানো ঘাটলায় অাসন নিই। অবঙ মুগ্ধতায় দুচোখ মেলে দেখেদেখেও অাশ না মেটা সে এক দারুণ সকাল বটে।

সেদিন শুনিয়াছি নাম না জানা সকালপাখির বিজয়গান – এমনই লেগেছে কানে – যখন কেউ ছিলোনা কোথাও – কেবল অামি এবঙ সকালপাখির ডানা ঝাপ্টানি। ঝটপট অশ্রুত বিজয়গান ক্যমেরাবন্দী করি মোবাইলেই। নিজেরে বিজয়ী লাগে। এ যেন বিজয় মাসের অন্য অারেক জয়বার্তা – গানের মতো – সকালপাখির ডানায় ভেসে অাসা বিজয়সুর। এ যেন অমাদেরই সেই একাত্তুরের সন্ত ডানার সুর। যেন বা লক্ষলক্ষ শহীদ অাত্মার প্রাণপাখির ফিরে অাসার ডানা ঝাপ্টানি – ওরা গাইছে সেই সে হৃদয়হরণ গানখানি –

সবক’টা জানালা খুলে দাওনা
ওরা অাসবে চুপিচুপি
যারা এই দেশটাকে ভালোবেসে
দিয়ে গেছে প্রাণ।।

যে গান সকালপাখির গান – বিজয় মাসে প্রাণেপ্রাণেই বাজে। যে গান শুনে হৃদয় ক্যমন করে। হৃদয় হতে রক্তজলের সুর রক্তক্ষরণ হয়ে ঝরতে থাকে। যে গান প্রাণের জানলা খুলে রাখতে বলে – ওরা অাসবে বলে। ওরা যে বীর মুক্তিসেনানী। ওরা যে মুক্তির বাণী জাগিয়ে দেয়া জাগ্রত সন্তপাখি। বিজয় মাসে ফিরেফিরেই অাসে জাগিয়ে দিতে মুক্তির ইতিহাস।

অামরা যেন বিজয়গান অামাদের ভবিষ্য শিশুদের শোনাই – সবক’টা জানলা খুলে রাখতে বলি – সকালপাখির বিজয়গান শুনবার হৃদয় তৈরী করতে সহায়ক ভূমিকা রাখি। যে ইতিহাস একটি জাতির পরাধীনতা মুক্তির ঐতিহাসিক স্বাধীনতার গান – সে গান হৃদয়ে ধারণ করবার মতোন শিক্ষা জরুরী অাজ। বাংলাদেশের হৃদয় হতে জন্মানো যে গান সে গান অামাদের মুক্তির গান। সে গান অামাদের বিজয়গান। মুক্ত সকালপাখির ডানায় ভেসে অাসা প্রাণের গান। অামরা সেই গানের পাখির অাত্মিক ভাষাটির অবমাননা যেন না করি কিছুতেই – এমন এক উপলব্ধিই অাজ সকালপাখিরা অামায় বলছে।

হ্যাঁ, ছবিও বলছে অামায় সেই অজর বিজয় গানের ভাষা – অাজ অামার তাই এমন এক অতুল অনুভবের বিজয়ানন্দ নিয়ে বাড়িতে ফেরা ।

৪ঠা ডিসেম্বর। ১৪২১ বঙ্গাব্দ।
ঢাকা। বাংলাদেশ।