ক্যাটেগরিঃ ফটো

 

সে এক বৃক্ষ। বহুকালের সাক্ষী আজও। বহু মানুষ অন্ধ বিশ্বাসে বৃক্ষের শরীরে রঙ মাখিয়ে, সুতো ঝুলিয়ে মনোবাঞ্ছা পূরণ করবার আশায়। নিজরে জড়ায় মিথস্রক্রিয়ায় অজান্তে। এই মানুষগুলিই আবার অবলীলায় বৃক্ষ নিধন করে। মানুষ কি করে এমন পারে? মানুষগুলিও হয়তো কেউ-কেউ মানুষ। মানুষগুলিই অমানুষও হয়।

আমার কিন্তু বৃক্ষটি দেখে ক্যামন এক চমক জাগে। যখন ভাবি কত না অন্ধ বিশ্বাসে কিছু মানষ বৃক্ষ টির শরীরে রঙ মাখিয়ে, সুতো ঝুলিয়ে কিসব মানত করে। ভাবি – আহারে মানুষ, কত না অসহায় হয়েই বৃক্ষ মঙ্গলালোকে নিজেরই চঅজান্তে নিজেরে জড়ায়, সেই মানুষগুলিই বৃক্ষমূলে কুঠার চালিয়ে নিজের ভিত্তিমূল দুর্বল করে বিপর্যয়ের দুর্যোগে তলিয়ে যায়। অনেক মানুষ অশিক্ষা-কুশিক্ষার কারণে ভ্রান্তনীতির শিকার হয়। অনেকে আবার সেচ্ছাচারেরর জ্ঞানপাপী মানুষ হয়ে মানুষদের বিভ্রান্ত করতে ভালোবাসে বলেই ভ্রান্তি ছড়িয়ে যায়। আদতেই বহুলপ্রজ বিশ্বের বিস্ময়, বিধাতার অদ্ভুত সৃজনের নমুনা বটে!

বৃক্ষরা জানে না মানুষ বৃক্ষপ্রিয় যতটা, ততটাই বৃক্ষনিধনকারী। ভাবছি – প্রাচীন বৃক্ষ জানতো যদি বলতে / লিখতে তাহলে কি কান্ড যে হতো বৃক্ষে ও মানুষে – কে জানে !

মাঘ। ১৪২১ বঙ্গাব্দ।

slide