ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

আজ ১২-ই রবিউল আউয়াল এবঙ ২৫-শে ডিসেম্বর একইসঙ্গে ঈদ-ই মিলাদুন্নবী। ১২-ই রবিউল আউয়াল মহানবী হযরত মুহম্মদ সাঃ আঃ এর জন্ম-মৃত্যুদিন। মুসলমান আজ অনেক বিচ্যুত রাসুল মুহম্মদ সাঃ আঃ এর আদর্শ ও ধর্মবোধ হতে। আজ সময় হয়েছে হৃদয় হতে উগ্র জঙ্গীবাদ বিসর্জনের। মসজিদে এমন প্রার্থনা হউক আজ। আমরা যেন হৃদয় হতে বিদায় দিই উগ্রতাকে।

অন্যদিকে, ২৫শে ডিসেম্বর ক্রিশ্চানদের সবচে’ বড় ধর্মীয় উৎসবের দিন “মেরী ক্রিসমাস” বাংলায় সবাই “বড়দিন” বলেই জানে। বিশ্বময় বড়দিন পালিত হয় বিশেষ সমারোহে। বাংলাদেশেও পালিত হয় প্রতি বছর যথাযথ মর্যাদায়। সকল গীর্জা সমূহে বিশেষ প্রার্থনা করে ক্রিশ্চানরা। গীর্জা প্রাঙ্গনে বসে রঙিন খ্রিস্টমাস ট্রি ও সান্তাক্লজ সাজানো মেলা। রাজধানী ও দেশের সকল বড় হোটেলগুলিতেও অনেক সমারোহে বড়দিনের আয়োজন থাকবে। সান্তাক্লজ এবঙ রঙিন ক্রিসমাস ট্রি দেখতে এবঙ উপহার পাবার জন্য শিশুরা অপেক্ষা করতে থাকে একটি বছর পেরিয়ে এই ২৫শে ডিসেম্বর তারিখটির জন্য।

আমরা ছেলেবেলা হতেই সান্তাক্লজ এবঙ যিশু খ্রীস্ট এর অনেক গল্প পড়েছি। সান্তাক্লজের উপহার পাবার বিষয়বস্তু দারুণ আকর্ষিত করে শিশুচিত্ত। এই দিনেই ক্রিশ্চানদের প্রভু যিশু বেথেলহেমে জন্ম গ্রহণ করেন মাতা মেরীর কোলে। আজ রাতেই তাই গীর্জাগুলিতে বিশেষ প্রার্থনা আয়োজন রয়েছে। দিবসভর সাড়ম্বরে নতুন প্রার্থনা করাবেন গীর্জার পাদ্রী। বাইবেলের উল্লখযোগ্য অংশ পাঠের সনে তরজমাও করবেন পাদ্রী। যিশু খ্রীস্টের জীবনী, বাণীপাঠ চলবে। কাটা হবে বড়দিনের কেক। এবঙ বিতড়ন হবে সবার মাঝে।

বিদেশে মহা সাড়ম্বরে অত্যুজ্জ্বল আলোকবাতি সজ্জিত হয় বড়দিনের আগমনে শহরগুলি। মার্কেট, রেঁস্তোরায় বিশেষভাবে উৎসব পালিত হয় সপ্তাহব্যাপী হরেক পসরার আকর্ষণীয় আয়োজনের মাধ্যমে। সবার আনন্দদিন ছড়িয়ে পড়তে থাকে সবার মাঝে। এইভাবেই বড়দিনের আনন্দবার্তা ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়ে। বড়দিনের মহতি একটি বার্তা এই যে – চিত্ত হউক সমস্ত সংকীর্ণতামুক্ত। মহতি কাজে হৃদয়দ্বার উন্মুক্ত, অবারিত হউক।

একইসঙ্গে এ দিন মুহম্মদ সাঃ আঃ এর হৃদয়গত ঐশ্বর্য মুসলমানরা অনুভবের তৌফিক লাভ করুক … আজকের এ দিনে প্রার্থনা – হৃদয় হতে মালিন্য ঘুচুক মানুষের। এবঙ মুসলমানের। মানুষ হউক মানুষরা … আজকের চাওয়া এই।

আমাদেরও চাওয়া –
শুভ হউক বড়দিন।।
হ্যাপী মেরী খ্রিস্টমাস।।

IMG_20151225_090818

১২-ই রবিউল আউয়াল। ১৪৩৭ হিজরী।
২৫ শে ডিসেম্বর। ২০১৫ সাল।
ঢাকা। বাংলাদেশ।