ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

সাংবাদিকতা ও সংবাদ-এর ধর্ম কি হওয়া উচিত? নিশ্চয় বস্তুনিষ্ঠ-সত্যনিষ্ঠ-তথ্যনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন/উপস্থাপন। কিন্তু আমরা পাঠকরা/শ্রোতারা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বর্তমান মিডিয়ার সংবাদ-এর উদ্দেশ্যমূলক উত্থাপন প্রক্রিয়ায় বিভ্রান্ত/প্রশ্নবিদ্ধ হই। তার নজির আমাদের সামনে রোজই বিস্তর পরিমান জমা, লিখতে গেলে ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে যাবার সম্ভাবনা থাকায় লিখতে চাইছিনা। সামান্য একখানা তুলে ধরছি আজকের তিনটি পত্রিকার হেডিং।

প্রথমআলো-র হেডিং
‘নারায়নগঞ্জে সেনা দেয়নি সরকার সংবিধান ও আইনের লঙ্ঘন গোলযোগ হলে দায় নেবেনা সিইসি’
(এখানে আবার রয়েছে, সিইসি বললেনঃ
*সেনা মোতায়েনের জন্য চিঠি দিয়েছি সরকার কিছুই জানায়নি এটা সরকারের অমনোযোগিতা কি না জানিনা *একজন প্রার্থী জঙ্গি হামলার কথা বলেছেন তদন্ত হচ্ছে অভিযোগ প্রমাণিত না হলে প্রার্থিতা বাতিল হতে পারে) ।

আমাদের সময়-এর হেডিং
‘নারায়নগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সেনা মোতায়েন না হওয়ায় ক্ষুব্ধ নির্বাচন কমিশন সংবিধান লঙ্ঘন করেছে সরকার পদত্যাগও করতে পারেন সিইসি।

দৈনিক জনকন্ঠ-র হেডিং
‘ নাসিক নির্বাচন সেনা থাকছেনা ‘
*না’গঞ্জে দিনভর নানা গুজব-উদবেগ-উতকন্ঠা
*সন্ধ্যায় শহরে খন্ড-খন্ড মিছিল-সেনা মোতায়েনের দাবী
*মাঠ ছাড়ছেন না কোনও প্রার্থীই *প্রচারের শেষ দিনে উতসবের আমেজ।

অন্যদিকে টিভি চ্যানেলগুলোর কল্যাণে আমরা দেখেছি ইতোমধ্যে প্রধান তিন প্রার্থীর একে-অপরের সঙ্গে বেশ হৃদ্যতাপূর্ণ আচরণ-কথোপকথন-সৌজন্য বিনিময়। তো, আমরা যারা কেবল শ্রোতা/দর্শক/পাঠক আমরা কি বুঝলাম অবশেষে? আমার মনে হয় অধিকাংশেরই চাওয়া হবে নিশ্চয়ঃ সব গুজব-উতকন্ঠা-বিভ্রান্তি ঘুচিয়েই উতসবের আমেজে শেষ হোক ভালোয়-ভালোয় নাসিক নির্বাচন এবঙ তিন প্রধান প্রার্থী তাঁদের প্রতিশ্রুতবদ্ধতার প্রতি যথার্থ সন্মান বজায় রেখে নির্দ্বিধায় ফলাফল মেনে নেবেন। অবসান ঘটুক মিডিয়া-র গণক ঠাকুরের ভূমিকার।