ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

 

শিশুগুলোর চোখে স্বপ্ন না দুঃস্বপ্ন, কে জানে! তবে নদীর তীরে, রাস্তার পাশে, পার্কে অসহায় ভাবে ঘুমিয়ে থাকা শিশুগুলোর মুখ আমাদের স্বপ্ন দেখায় না, নিয়ে যায় দুঃস্বপ্নের জগতে। মনে করিয়ে দেয় হাজার হাজার শিশুর কথা, যারা অনিরাপদ ও অসহায়ভাবে কাটায় তাদের শৈশব।

শিশু রাসেলের বাবা মারা গেছেন কয়েক দিন আগে। সে কারণে মা-ও কাজে যেতে পারেননি। তাই অর্ধাহারে-অনাহারে এভাবেই ঘুমিয়ে পড়েছে রাসেল।

কোন উপায় নেই, তাই অসুস্থ শিশুটিকে এভাবে ঘুম পাড়িয়ে রেখে জীবনের তাগিদে মা গেছেন পপ কর্ন বিক্রি করতে।

শিশুদের বিনোদনের জন্য বসানো হয়েছে দোলনা। অথচ দোলনার পাশেই ঘুমাচ্ছে এক ছিন্নমূল অনাথ শিশু। হয়তো স্বপ্ন দেখছে বাবার সাথে দোলনায় চড়া শিশুটির মতো সেও একটি দোলনায় উঠবে। কিন্তু বাস্তবে তার কেউ নেই।

তারিখটি এ মূহুর্তে মনে নেই। তবে এক সপ্তাহব্যাপী বছরের কোন একমাসের পুরো সপ্তাহ শিশু অধিকার দিবস হিসেবে পালন করা হয় সারাদেশে। সে জন্য দেশের বিভিন্ন জায়গায় পালন করা শিশুর অধিকার নিয়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠান। একটু খেয়াল করলে দেখা যাবে, শিশু অধিকার সপ্তাহ সে সব শিশুরাই পালন করে যাদের জীবনে কোন অধিকারের কথা চিন্তাই করতে হয়না। না চাইতেই তারা পেয়ে যায় সব অধিকার। কিন্তু যারা পায়না কোন অধিকার, যেমন ছবির শিশুগুলোর মতো যারা, তাদের জন্য তাদের জন্য কি কিছু নিয়ে এসেছে সে ধরনের আনুষ্ঠানিক দিবস গুলো?

তবে চাইলে এধরনের অসহায় শিশুদের অবস্থা কিছুটা হলেও পরিবর্তন করা হয়তো সম্ভব। আমাদের দেশে এরকম সামর্থবান অনেকেই আছেন, যারা ইচ্ছে করলে এধরনের অন্ততঃ একজন শিশুর অবস্থার পরিবর্তন করে দিতে পারেন। একটু কি চেষ্ঠা করা যায়না?