ক্যাটেগরিঃ নাগরিক সমস্যা

 

প্রতিদিনই রাস্তাপথে দানবেরা কেড়ে নিচ্ছে তরতাজা প্রাণ, তাতে কারো কি কোন আসে-যায় ? যে মারা যায় তার পরিবারই তার মর্মাঘাত বুঝতে পারে।আজকাল আমাদের দেশের নৌ-পরিবহন মন্ত্রীর উপাধি দেওয়া গরু-ছাগলের ছবি বুঝতে পারা চালকদের হাতেই যেন মৃত্যুর তালা-চাবি।এবছর অনেক খ্যাত নামা ব্যক্তিবর্গকে তারা পিষ্ট করেছে তাতে কি তাদের কিছু হয়েছে? বরং তাদের মুক্ত করতে মিছিল-মিটিং-ধর্মঘট করা হচ্ছে।আমাদের মিশুক-মুনিরকে চিরতরে বিদায় করা হল,কিছুদিন তাদের নিয়ে প্রতিবাদ-কথাবার্তা চললো তারপর এখন আর কিছু শোনাও যায় না,দেখাও যায় না।আমাদের দিকে কারো নজর আছে কি না তাও মনে হয় না।মনে হচ্ছে সবাই আখের গোছানো নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন।

গত মঙ্গলবার (২৮ আগষ্ট) ঘটনাটি ছিল একদম আমার চোখের সামনে। রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে যখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র তৌহিদুজ্জামানকে চাপা দিয়ে ঘাতক চালক পালানোর চেষ্টা করলেও শতশত জনতার চোখ এড়াতে পারেনি,না হলে তো লাপাত্তা…? তখন আবার তাকে আটকের জন্য রাস্তা অবরোধসহ অনেক কিছু হতো কিন্তু সে কষ্ট আর করতে হয়নি।এ অনাকাঙ্খিত মৃত্যুর খবরে কোন বাছবিচার না-করে অজস্র গাড়ী,দোকান পাট,পুলিশ ভাংচুর করে মূহুর্তে রণক্ষেত্র তৈরি করা হল, সেই প্রভাবে শুরু হল চিরচেনা যানজটের হুংকার…………অস্থির নগর বাসী।