ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

রথিন শর্মা
রবিবার, ১৭ জুন ২০১২

এটা কোন দেশ? কিসের শিকার আমরা? কেন এই বর্বরতা?আমরা বুক টান করে,মাথা উঁচু করে বলি আমরা বাঙালি।তার পরও মনের মাঝে একটা সন্দেহ আজ আমাদের তাড়া করে। সত্যি কি আমরা এদেশের নাগরিক?যদি তাই হত, তবে কেন আজ আমাদের উপর এই নৃসংশতা?

এই কি আমাদের সোনার বাংলা? এই কি ৩০ লক্ষ শহীদের মূল্যে কেনা বাংলাদেশ? এই কি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলা? এই কি সকল শহীদ বুদ্ধিজীবী, জাতীয় চার নেতার রক্তে ভেজা সবুজ-লাল পতাকার শ্রদ্ধার মূল্য? আমরা কি সেই জাতি, যারা দীর্ঘ নয় মাস ব্যাপী অক্লান্ত পরিশ্রম ও লক্ষ লক্ষ বাঙ্গালির বিদ্রোহী মনোভাব ও তাদের বুকের তাজা রক্ত দিয়ে সুপ্ত রেখেছিলাম এই বাংলার মাটি? আজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোং নেই, নেই বর্গী,নেই পাকিস্তানী হানাদার। তার আজ কেন স্বাধীনতার নামে পরাধীন? সাংবাদিক-নামটি স্বাধীনতার মূর্ত প্রতীক। কিন্তু সেই প্রতীকটিকে আজ পরাধীনতার শেকল পরানোর জন্য পদদলিত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। কি দোষ আমাদের? আমরা সত্যের পথে নির্ভীক তাই? আমরা কারো পদাশ্রিত হতে চাই না এটাই কি আমাদের দোষ? আজ নানা প্রশ্নের জালে পুরো জাতি আটকে আছে। এদেশে আজ সব কিছুর উল্টো ফল পাওয়া যায়। আজ যারা দুর্নীতির পুরোদস্তর নায়ক,তারা সুনীতির জয়গান গাইছে। যারা আইনের রক্ষক,জনগনের জান,মাল যাদের হেফাজতে, তারা আজ তার ভক্ষক হয়ে দাড়িয়ে।আমরা সেই সবের সত্যের স্পষ্টতা, দেশকে ধ্বংস করার অপচেষ্টার চিত্রকে জনগনের সামনে তুলে ধরি। আমাদের মধ্যেই সেই সত্য বলার শক্তি আছে।আমাদের যতই চেষ্টা করুক সত্যের পথ থেকে সরাতে পারবেনা।

কারন, আমাদের সাথে আছে কবির সেই মধুময় বাক্য:-

মোরা ঝঞ্ঝার উচ্ছল,
মোরা ঝর্ণার মত চঞ্চল।
মোরা বিধাতার মত নির্ভয়,
মোরা প্রকৃতির মত সচ্ছল।

আসুন আমরা আমাদের বিদ্রোহী কবির সেই অমর অগ্নি ঝরা চরম সত্য বাক্য গুলো সবাই একসাথে হৃদয় দিয়ে গাই।আমাদের ভেতর সত্যের চেতনাকে সেই ৭১ এর মত পুন: জাগিয়ে তুলি।তবে আমাদের আগামীর জোনাকিরাও পাবে সদ্য সত্যের আলোর স্বাদ।