ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

আমার কাছে সব থেকে বেশি জরুরী, রাজনীতি বলতে আমি কি বুঝি এবং রাজনীতির সার্বজনীন বিশ্লেষণ কি হওয়া উচিত … দেশ কে সুরক্ষিত রেখে দেশের আপামর জনসাধারনের মৌলিক চাহিদা পূরণের সাথে সাথে প্রতিটা মানুষের জান ও মাল কে সুরক্ষিত রাখার নাম ই রাজনীতি … দুর্নীতি কে প্রতিরোধ-প্রতিহত-প্রতিকার করার নাম ই রাজনীতি… দেশ ও দশ এর ভাল পরস্পর ওতপ্রোত ভাবে জড়িত — কেউ কারো বিপ্রতীপ নয় বরং পরিপূরক এবং সম্পূরক … তাই এটা কখনো হতে পারে না যে দেশের ভাল করতে গিয়ে দশের বলি দিতে হবে কিংবা দশের ভাল করতে গিয়ে দেশের বলি দিতে হবে …দেশ ও দশের ভাল এক ই সুতায় বাঁধা…

স্বাধীনতা থেকে শুরু- আমরা কিংবা আমাদের সময়কার প্রজন্ম এটা জেনেই বড় হয়েছি স্বাধীনতার জনক এবং আহবায়ক শেখ মুজিবর রহমান এবং উনার পক্ষে স্বাধীনতার ঘোষক মেজর জিয়াউর রহমান … দুইজনের প্রতিই স্যালুট … কিন্তু সমসাময়িক যে ইতিহাস তাতে মেজর সাহেব হয়ে গেছেন স্বাধীনতার আহবায়ক !!! তাহলে আমরা এবং আমাদের আগের প্রজন্ম ভুল জেনে বড় হয়েছি কিন্তু সরাসরি মুক্তিযোদ্ধাদের থেকে জানা তথ্য অনুযায়ী যতটা বুঝি আমাদের জানা তথ্য টা ই সত্য বলে জ্ঞ্যাত হয় … তাহলে সমসাময়িক তথ্য বিভ্রান্তির কারণ কি? যুদ্ধে মেজর সাহেবের ভূমিকা কে তো কাওকে অস্বীকার করতে দেখি না তাহলে শেখ সাহেবের ভূমিকা নিয়ে মানুষের এই নীচতা কেন??? যা সত্য তাকে সত্য বলে মেনে নিতে এতো দ্বিধা কেন??? শেখ সাহেবের দল এবং মেজর সাহেবের দল- বয়োজ্যেষ্ঠ সবাই তাদের নিজ নিজ নেতাদের অবদান, সফলতা , ব্যর্থতা জানেন তারপর ও কেন ইতিহাস উভয় দিক থেকে বিকৃত হয়ে যাচ্ছে??? আর ঐ নীচতার দাবানলে কেনই বা সমসাময়িক পরিস্থিতি পুড়ে ছাই হচ্ছে ???

মাঝখানে আসলো সোহেল তাজ নামের মাসিহা … যার বাবা’র অবদান মুক্তিযুদ্ধে অনস্বীকার্য — উনি শেখ সেলিমের চড় খেয়ে কেঁদে কেটে দেশ ছেরে পালালেন দল কে দোষ দিয়ে, দেশ কে অবজ্ঞা করে — ওরে আমার দেশপ্রেমিক , মন্ত্রিত্ব থেকে পদত্যাগ করে সরকারী বেতন না নিলেই যদি দেশপ্রেম পূর্ণ হয়ে যেত তাহলেই অমন দেশপ্রেমিক প্রতিদিন শ’য়ে শ’য়ে বের হতো এই বাংলাদেশ এর কোল থেকে … আরেক দেশপ্রেমিক উনার বোন, সরকারের কোলে যার জায়গা পাকা হয়ে গেছে … এমন মাসীহা !!! হায় বাংলাদেশ, হায়রে বঙ্গ মাতা !!! আশা জাগানিয়া নেতৃত্ব এভাবেই ধুলা চাঁটিয়ে বঙ্গ সন্তানদের অপমান-উপেক্ষা-অগ্রাহ্য করে পার পেয়ে গেলেন অবিরত… !!!

আমি কোন রাজনীতিবিদ নই, নই কোন অসাধারণ বুদ্ধিজীবী তাই সহজ পথে সত্য কে বুঝার চেষ্টা করি … স্বার্থান্বেষী মহলের কাছে পুরোটাই মূর্খ প্রমাণিত হবো নিশ্চিত কিন্তু নিরপেক্ষ সাধারন মানুষ গুলো হয়ত কিছুটা বুঝবে এই অধমের কথা গুলো …

বর্তমান রাজনীতি কে আমার স্বল্প বুদ্ধি রাজনীতি বলে না বরং বলে দলাদলি … দুই কিংবা চার প্রতিপক্ষের মারামারি এবং ব্যাক্তিগত কোন্দল… রাজনীতির নিষ্পেষণে কখনো ই মানবতা ভূলুণ্ঠিত হতে পারেনা যা দলাদলির নিষ্পেষণে অবিরাম ঘটে চলেছে …

৭৫ এ শেখ সাহেবের পরিবার খুন হয়ে যান এবং ৮১ তে মেজর সাহেব খুন হয়ে যান… বর্তমান এ তাদের উত্তরসূরি গণ উভয় ই খুন হওয়ার মর্মবেদনা জানেন… উনারা জানেন অমন অস্বাভাবিক ঘটনার মাধ্যমে স্বজন হারানোর কষ্ট … কিন্তু হায় !!! ঐ কষ্ট কে হাতিয়ার বানিয়ে ২ দল ই রক্তের ঘৃণ্য খেলায় মেতে আছেন বহু বছর থেকে … যে কষ্টের বাহক হয়ে দেশপ্রেমে উজ্জিবীত হওয়ার কথা ছিল তাদের, তারা সেই দেশপ্রেমের দোহাই দিয়ে আত্ম মগ্ন হয়ে আত্ম প্রেমের পরিচয় দিয়েই যাচ্ছেন আর আমরা বেকুব সাধারণগণ তাদের ডুগডুগির তালে বছরভর নেচে চলছি!!! কোন প্রশ্ন, কোন চেতনা, কোন প্রতিবাদ, কোন যথাযথ ভূমিকা ছাড়াই !!! এটাকে কি বিশ্বাস বলা যায়??? এ যে অন্ধত্ব … !!! এই অন্ধত্ব এর প্রতিকার কি আদৌ আছে??? শেখ সাহেবের এবং মেজর সাহেবের উত্তরসূরি গণ উভয় ই কি নিজ নিজ রক্তের প্রতিশোধ নিতে তৎপর তথা উদ্ধত নয় ??? তারা মানসিক বিকারগ্রস্ততায় আক্রান্ত নন ??? তাদের স্বজন প্রাণ দিয়েছেন বলেই কি তারা এখন সাধারন মানুষের প্রাণ নিতে সোচ্চার ??? প্রবাহমান ঘটনা তো এর ই সাক্ষ্য দিচ্ছে যে তারা তাদের স্বজনের রক্ত নিয়ে ব্যাবসা ফেঁদে বসেছেন , মানুষ কে ইমোশনাল ব্ল্যাক মেইল করে মানুষ এর মুখে ঠুলি ঝুলিয়ে দিয়েছেন কিন্তু সবাই তো অকালকুষ্মাণ্ড না … !!! সবার সামনে মূলা ঝুলতেছে বলে কি কেউ দলাদলি ছেড়ে রাজনীতিতে আসবে না ??? আমরা তো লাশের আর রক্তের দলাদলি চাই না, আমরা চাই মানুষ বাঁচানোর রাজনীতি … মানুষের মানবাধিকার ভোগের রাজনীতি…

সোনার বাংলার রাজনীতি এখন শেখের বেটি আর মেজরের বৌ এর দলাদলিতে রুপ নিয়েছে আর মাঝে বসে পা ঝুলিয়ে বান্দর নাচ দেখছে এরশাদ সাহেব আর রাজাকারের বাচ্চা রাজাকারেরা আর ধর্মের খেলোয়ার জামাত শিবির রা !!! রাজাকার, দেশদ্রোহী এবং ধর্মের সবথেকে বেশি বিরুদ্ধাচরণকারীরা ধর্মের নাম ভাঙ্গায়ে আবারো মানুষের আবেগ, ধর্মীয় বিশ্বাস নিয়ে খেলতেছে আর সেই সুযোগ করে দিচ্ছে তথাকথিত আপা আর ম্যাডামের দলেরা …

আমরা সাধারন মানুষ – কোন আওয়ামিলীগ, বি এন পি, জামাত-শিবির, জাতীয় পার্টি না – আমরা মানুষ তাই আমাদের অধিকারের কথা বলি , So Called গণতন্ত্রের রাজ্যে মনের ভাব প্রকাশ করে, সত্য কথা বলে দেশদ্রোহী উপাধি তে ভূষিত হই-পুলিশ , সাংবাদিক, সরকারের মাইর খাই , জেল খাটি এবং মানবেতর জীবন যাপন করি …!!!

মানুষ খুন হতে থাকে- সাংবাদিক ছবি তুলতে থাকে, চ্যানেল আর পত্রিকার কাটতি বাড়তে থাকে; পুলিশ তাকিয়ে দেখে আর ৩২ দাঁত বের করে ওদের ভেতরের মনুষত্যের খুনী হায়েনা গুলো হাসিমুখে ভাবতে থাকে, দেখি না কি হয় !!! পুলিশ ও সাংবাদিক (৯০%) দলাদলির ধারক ও বাহক – সরকার ও বিরোধী দল যেদিকে যাবে তারাও সেদিকেই যাবে … সরকার ও বিরোধী দল গুলো তাদের মা-বাপ , সরকার ও বিরোধী দলগুলো তাদের বিধাতা, সরকার ও বিরোধী দলগুলো তাদের ফ্ল্যাট-গাড়ী-ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স-টেন্ডার দাতা …!!! কি করে ভাগ্য বিধাতার বিপরীতে চলতে পারে মানুষ নামের অমানুষ গুলো???

শেখ সাহেব আর মেজর সাহেবের বংশধরেরা কি পারে না নিজেদের লকলকে জিহবা টা কে সংযত করে দুর্নীতি- দারিদ্র্য দুর করে দেশের মানুষের দুঃখ ঘুচাতে, একটা স্বস্তির জীবন দিতে সর্বোপরি সোনার বাংলা গড়তে??? স্বাধীনতার এতো বছরেও কি তাদের সময় হয়নি বাংলাদেশ কে নিয়ে ভাবার??? বাপ আর খসমের পরিচয় ভাঙ্গায়ে ভিক্ষা করার জন্য ই বুঝি আল্লাহ্‌ উনাদের কে জীবিত রেখেছেন !!! বাংলার মীরজাফর আওয়ামিলীগ, বি এন পি, জামাত-শিবির, জাতীয় পার্টি ছাড়া অন্য কেউ না … বাংলাদেশের নিরপেক্ষ সাধারন জনগণ ই আজ বাংলার দালাল হয়ে উঠেছে কারণ এছাড়া আর কোন পথ নাই …

দুর্নীতিবাজ দলীয়করণ আর রক্তচোষা দলাদলির দুর্দান্ত প্রতাপে রাজনীতির কবর হয়ে গেছে সেই কবেই!!! রাজনীতি মুখ থুবড়ে দম ছেড়ে দিছে অনেক আগেই — দলাদলির প্রচন্ডতায় তা প্রকাশের অবকাশ ঘটেনি মাত্র…!!! সুরঞ্জিতের রেলের টাকা কেলেঙ্কারি , ইলিয়াস আলী গুম, বিদেশী কূটনৈতিক খুন, সাগর-রূনী হত্যা, তাজরিন গার্মেন্টস এ আগুনে শত প্রাণের আহুতি, বহদ্দারহাটের ফ্লাই ওভার ভেঙ্গে পড়া , বিশ্বজিতের লাশ – এসবের কোনটা দুর্ঘটনা ??? প্রতিটা ই কি সাজানো দুর্নীতি নয় ??? প্রতিটার শাস্তি ই কি এক কথায় ফাঁসির যোগ্য নয় ??? কয়টা ফাঁসি আমরা দেখতে পাবো ??? কয়টা ন্যায় বিচার পাবো ??? কবে বিচারের দাবি গুলো নিভৃতে না কেঁদে জনসম্মুখে আছড়ে আছড়ে কেঁদে সোচ্চার হয়ে ন্যায় বিচার কে ছিনিয়ে আনতে পারবে???

প্রতিজন বিজ্ঞের মতামত আওয়ামিলীগ, বি এন পি ছাড়া অবস্থার প্রতিকার সম্ভব না !!! আওয়ামিলীগ, বি এন পি ই যদি সব হবে তাহলে আমরা কি??? নিরপেক্ষ সাধারন মানুষ গুলোর অবস্থান কোথায়??? জনসম্পদ কি তাহলে আওয়ামিলীগ, বি এন পি’ র পৈত্রিক সম্পত্তি হয়ে গেছে বিগত বছর গুলোতে তাদের পদতলে অবস্থান করতে করতে ??? ১৬ কোটি মানুষ এর দেশে একটা যোগ্য নেতৃত্ব নাই???!!!

১৬ কোটি মানুষের দেশে ১৬ কোটি মানুষ কে ধারণ করার মতো ভূমি আছে কিন্তু তারপর ও কোটি কোটি ভূমিহীণের বাস সারাদেশে!!! ১৬ কোটি মানুষ এর ভূমি ১৬ লাখ মানুষ ভোগ করে কোন অধিকারে ??? কেমন গণতন্ত্র এসব??? এখন বিজ্ঞ জনেরা আমাকে বলবেন , আমি গণতন্ত্র আর সমাজতন্ত্র রে গুলায়ে ফেলাইছি … আরে ভাই, আমি তো ঐসব তন্ত্র বুঝিনারে, আমি বুঝি মানবতন্ত্র … যারা বংশীয় দলাদলির ধারক ও বাহক তারা কি পারতেন না এক্তূ এক্তূ মাথা গুঁজার ঠাই করে দিতে প্রতিটা মানুষ কে ??? তারা কি পারতেন না মানুষ কে শহরমূখী না কইরা যার যার অবস্থানে ঠাই দিয়ে নিজ নিজ রিসোর্স ব্যাবহার করতে দেয়ার সুযোগ করে দিয়ে তাদের মৌলিক চাহিদার যোগান দিতে??? তারা কি জানেন না অভাব মানুষ কে দুর্নীতি আর অনৈতিকতার জোয়ারে ভাসিয়ে নিয়ে অতল গহ্বরে চালান করে দেয় ??? তারা কি জানে না প্রতিটা আদর্শ পরিবার, ঘর, পাড়া, এলাকা, মহল্লা, সমাজ, থানা, ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা,বিভাগ, শহর , মহানগর একটা আদর্শ সোনার বাংলা জন্ম দিতে পারে ??? সব জানেন, শুধু জানে্ন না নিজের কলুষিত আত্মা থেকে বের হয়ে এসে সমাজ তথা দেশ সেবায় মনোনিবেশ করতে … জানেন না দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে রাজনীতি করতে … উনারা জানেন শুধু দলাদলি করতে!!!

আওয়ামিলিগ, বি এন পি , জাতীয় পারটি, জামাত, শিবির — আপনারা দলাদলি ই যখন করবেন তাহলে গদি ছাইড়া দেন … আপনাদের দলাদলি করার জন্য বহু বস্তি পড়ে আছে যা আপনাদের ই বানানো … দেশের মানুষ রে নিয়া খেলার অধিকার আপনাদের কে কেউ ই দেয় নাই … সমস্ত দেশবাসীর সামনে খুললাম খুল্লা আপনাদের মতো নোংড়া ভাষায় বেহায়াপনা , নির্লজ্জপনা করতে সবাই পারে না বলেই অনেক শ্রদ্ধেয় ব্যাক্তি বর্গ রাজনীতি করতে পারছেন না এবং অনেক যোগ্য উদীয়মান টেলেন্ট রাজনীতিতে আসতে পারছেন না … আপনাদের কে ভয় খুব কম মানুষ ই করে কিন্তু নিজের সম্মান রক্ষার্থে আপনাদের সাথে নোংড়া ভাষা এবং অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির প্রতিযোগীতায় কেউ নামতে রাজী নয় … আপনারা যেহেতু রাজনীতি ছেড়ে দলাদলির নোংড়া কোন্দলে রক্ত কাদা মাখামাখি করছেন বহু বছর ধরে তাই আপনাদের মুখোশের বিন্দুমাত্র আর লেগে নাই আপনাদের চেহাড়ায় তাই বাপ আর খসমের দোহাই দেয়া ছেড়ে আপনারা আমাদের কে নিজে থেকে দয়া করেন অন্যথায় একটা সময় এই নিরীহ সাধারন মানুষ গুলো আর আপনাদের কে দয়া করবে না … আপনাদের কে দিয়ে রাজনীতি হবে না আর … আপনাদের ৭ এ কিছু হয়নি তাই ৭০ এ ও কিছুই হবে না… আপনারা বাংলাদেশ এর একটা কোণা বেছে নেন যেখানে মনের আইশ মিটায়ে চুলাচুলি করবেন আর বেহায়ার মত হা হা করে হাসবেন… আমাদের কে মুক্তি দেন, আমাদের প্রজন্ম গুলো কে সততার সাথে, নৈতিকতার সাথে , সত্যের সাথে সামনে এগুতে দেন যেন আমরা সবাই মিলে সোনার বাংলা গড়তে পারি, দলাদলি না করে প্রকৃত রাজনীতি শিখতে পারি , নিজেদের কে বিশ্বে যোগ্য একটা অবস্থান দিতে পারি … এমন আরো হাজারো কারণ আছে যার জন্য আপনাদের থেকে আমাদের তথা বাংলাদেশের মূক্তি প্রয়োজন …

আপনারা জীবনেও সমাজ সেবা করেন নাই, সমাজ সেবা কি তাও জানেন না …আপনারা দলাদলি পারেন – রাজনীতি জানেন না, দলাদলি বুঝেন- রাজনীতি বুঝেন না … আপনারা রাজনীতি বুঝেন না, আপনারা রাজনীতি চিনেন না, আপনারা রাজনীতি জানেন না …