ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

জনগণকে জিম্মি করে বা গণবিরোধী বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করে বিরোধীদল তাঁদের দাবী আদায়ে সোচ্চার হয়ে থাকে, আমাদের রাজনৈতিক পরিমণ্ডলে এ রকম একটি ছবি, ইতিহাসের দর্পণ থেকে আমরা পেয়ে যাই। বিগত দীর্ঘ দিনের পথ পরিক্রমা থেকে দেখা যায়, হরতাল আহ্বানকারী বা পালনকারী বিরোধীদল পরবর্তীতে ক্ষমতার স্বাদ গ্রহণ করেছে জনগণের দেয়া বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে । ক্ষমতার এই পালাবদলে, দলগুলো বুঝে গিয়েছে যে, হরতাল বা জনগণের শান্তি ভঙ্গকারী যে কোন কার্যক্রম, তা সে যতই অকল্যাণকর ও নেতিবাচক হোক না কেন, ভোটের দিন জনগণের কাছে তা আবির্ভূত হয় মধুর স্মৃতি হয়ে এবং ফলাফল, মসনদে আরোহণ । কাজেই, হরতালের পর হরতাল, দুই-চারটা মানুষ পুড়ে মারলেও বিরোধী দলের কিছুই যায়-আসবেনা । হরতালের বৈধতা বা ভূতাপেক্ষ অনুমোদন, জনগণই তাঁদের পরবর্তীতে দিয়ে থাকে । তাঁদের সুবিধা, তাঁরা চালাক, জনগণ বোকা, জনগনের চামড়া গণ্ডারের থেকেও মোটা । অতি সহজেই মূর্খ জনগণ সব কিছু ভুলে যায় । যে জাতি ভুলে যায়, তাঁর শ্রেষ্ঠ সম্পদ মহান স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাস ও তার রূপকার, তার স্বপ্নদ্রষ্টাকে, ভুলে যায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা, ভুলে যায় কি স্বপ্ন তাঁরা দেখেছিল, ভুলে যায় লক্ষ শহীদের আর্তনাদ আর আহাজারি, সে জাতির স্মৃতিশক্তি যে চিরতরে লোপ পাবে তা সহজেই অনুমেয় ।