ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

 

যে মাটির জন্য আপনি যুদ্ধ করেছিলেন, মহান এবং কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন, সে মাটির পূর্বে এখনো সূর্য উদয় হয় এবং পশ্চিমে অস্ত যায় । এখনো দোয়েল-শালিক, ফিচকে উড়ে বেড়ায়, ঘুঘু ডাকে, হলুদিয়া-কোকিল আর বউ-কথা-কও পাখির গান শোনা যায় । এখনো মানুষগুলো ধান বোনে গান গায় আর স্বপ্ন দেখে । এখনো এক বুক পানিতে নেমে পাট কাটে আর ডুবে ডুবে শাপলা তোলে । পচা পাট আর ভিজে মাটির সোঁদা গন্ধে নিরন্ন কৃষক তাঁর সন্তানকে বুকে জড়িয়ে ধরে, বউয়ের মুখে ঘোমটা তুলে দেয় । দিনের শেষে টং ঘরে বসে চুটিয়ে আড্ডা মারে আর রাতে জোস্নার আলোয় ঝিঁঝি পোকার ডাক শোনে । আজও চরে নদীর পানিতে পা ডুবিয়ে বসে ষোড়শী সখিনা বেগম বাতাসে কাশ ফুলের ফেনিল শুভ্রতায় স্বপ্নের জাল বোনে । এখনো শীতের ছোঁয়ায় সরিষা ফুলের মউ-মউ গন্ধে জব্বার মিয়া খেজুর গাছ চিরে ফোটা ফোটা রস বের করে ।

এই সেই মাটি স্যার, আদি অকৃত্রিম বাংলার মাটি । এই মাটিতে দাড়িয়ে প্রবল প্রতাপে শত্রুকে রুখে দিয়েছিলেন, কবর রচনা করেছিলেন তাদের । পাট ক্ষেতে সারাদিন শুয়ে বা এক গলা পানিতে সারারাত দাড়িয়ে শত্রুর বুকে গুলি ছুড়তে ছুড়তে কি প্রতিশোধের আগুন আপনার বুকে জ্বলে উঠেছিল স্যার ? ফিরতি গুলির আঘাতে আপনার পাশে শুয়ে থাকা কাঞ্চন মিয়া যখন নেতিয়ে পড়ল, আপনার হাত আঁকড়ে ধরে ও কি বলেছিল এবং তাঁকে আপনি কি কথা দিয়েছিলেন স্যার ? নিশুতি রাতে মহির আলির গুলিবিদ্ধ দেহটা কাঁধে নিয়ে আপনি যখন ক্যাম্পে ফিরছিলেন, চোখের আলো নিভে যাওয়ার আগে আপনার পিঠ খামচে ধরে ও ফিসফিস করে কি বলছিল স্যার ? মহির আলির দেহের তাজা রক্ত গড়িয়ে যখন আপনার হাতের তালু ভিজে যাচ্ছিল, আপনি তখন চোয়াল শক্ত করে হাত মুষ্টিবদ্ধ করেছিলেন কেন ? আপনার চোখ দুটো তখন বাঘের মতো জ্বলছিল কেন স্যার ? আলম সারাদিন ক্যাম্পে আপনার পাশে ঘুরঘুর করত আর বলত, বড় ভাই আপনার গায়ে লাগার আগে শত্রুর গুলিটা যেন আমার বুকে লাগে, সেই আলম আপনাকে সরে যেতে বলে শত্রুর শেষ গুলিটা বুকে পেতে নিয়ে আপনাকে বাঁচালো, তখন আপনি ওর নিথর দেহটা বুকে ধরে কি বলেছিলেন স্যার ? খবির উদ্দিন, ছমির, কাশেম মিয়া, বাসেত, শোভন আর মেহের মিয়াকে যখন মাটি চাপা দিচ্ছিলেন তখন তাদের কবরের মাটি ছুয়ে আপনি কি শপথ নিয়েছিলেন স্যার ? চোখের পানিতে কেন আপনার জামা ভিজে গিয়েছিল ? শহীদদের কবরের নরম মাটিতে দাঁড়িয়ে ভেজা চোখে যে সূর্য দেখেছিলেন, এই সেই সূর্য স্যার, এই সেই মাটি ।

যে মাটিতে আমরা দাড়িয়ে আছি, যে অভাগা নিরন্ন মানুষগুলোকে দেখছেন এই মাটি আর মানুষগুলোকে ওরা আপনার হাতে তুলে দিয়েছিল । এই আমানতকে রক্ষা করবেন কেমন করে স্যার ? যে চোখ দিয়ে শহীদদের চোখের ভাষা আর যে হাত দিয়ে তাদের স্বপ্ন নিয়ে এসেছিলেন , তা ফিরিয়ে দেবেন কেমন করে ?আপনি বীর বিক্রম, মহান বীরদের প্রতিনিধি । আপনি পরাজিত হতে পারেন না, পরাজিত করতেও পারেন না আপনার সেই মহান সাথিদের যারা শুয়ে আছে এই মাটিতে ।

স্যার মাজেদ মারা যাবার সময় ওর বউ আর ছয় মাসের বাচ্চাকে উদ্যেশ্য করে একটা চিটি আপনার হাতে তুলে দিয়েছিল, কিন্তু স্বাধীন হবার পর তাদেরকে আর খুজে পাননি, আজও সে চিঠিটা আপনি সযত্নে রেখে দিয়েছেন কেন ? দেশের কথা কি লিখেছিল মাজেদ একটু শোনাবেন কি ?

** উল্লেখিত নামে নিশ্চয়ই অনেক মহান শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন ।