ক্যাটেগরিঃ স্যাটায়ার

অভাগা নিরন্ন জনতার পুষ্টি হিসেবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি রন্ধনপ্রণালী সদ্য প্রয়াত মরহুমা সিদ্দিকা কবির যে কেন প্রকাশ করে যাননি তা বোধগম্য হচ্ছে না । তাঁর হাতে লিখা পুরনো পাণ্ডুলিপি এই অধমের হস্তগত হওয়ায় স্বাস্থ্য নিরাপত্তায় ফ্লাই অ্যাশের হালুয়া এবং প্রোপেলরের কাটলেট এর রন্ধনপ্রণালী প্রকাশ করা হল।

ফ্লাই অ্যাশের হালুয়া এক সের ফ্লাই অ্যাশ বেসিনে একটি পাত্রে গুলিয়ে বাথটাবে আধাঘণ্টা চুবিয়ে ফ্রাইপ্যানে একটু ঘি দিয়ে লাললাল করে ভেজে নিন। তারপর দুধে গরম মশল্লা, কিসমিস, প্রয়োজনমত চিনি দিয়ে ঘন করে জ্বাল দিন। নামাবার আগে ভাজা ফ্লাই অ্যাশের মিশ্রণ দুধে ঢেলে আধাঘণ্টা অল্প আঁচে জ্বাল দিয়ে নামিয়ে ফেলুন।
রান্না করা উপাদেয় হালুয়া ফ্রিজে ঠাণ্ডা করে খাবেন। তবে, রান্নার সময় মোবাইল ফোনে কথা বলা যাবে না।

প্রোপেলর এর কাটলেট পুরনো জাহাজের একটি প্রপেলর, ধারালো ছুরি দিয়ে কুচি-কুচি করে কেটে সিদ্ধ করে নিন, তারপর শিল-পাটায় বেটে, ঘুটে ভরতা করে নুন-মশল্লা মাখিয়ে হাতের তালুতে চটকে চ্যাপ্টা করে সাইজ করে নিন। দুধ, খবরের কাগজের মণ্ড এবং ফ্লাই অ্যাশের মিশ্রণে চুবিয়ে সূর্যমুখি তেলে কড়া করে ভেজে নিন। অতঃপর সিরামিকের পাউডার ছিটিয়ে ফ্রিজে ঠাণ্ডা করে পরিবেশন করুন। একটি প্রপেলরের কাটলেট পুরো এলাকা বিতরণযোগ্য।

সস: সিলিকা জেল, সেলেনিয়াম, রেড লেডঅক্সসাইড,সোডিয়াম সিলিকন, চিনি ইত্যাদি একটি পাত্রে ঘুটে মজাদার সস বানিয়ে আইটেমগুলোর সাথে পরিবেশন করুন। খাবার খেতে খেতে প্রজেক্টরে ছবি দেখতে পারেন, এতে পরিবেশ স্বপ্নিল হয়ে উঠবে।

উভয় রান্নার পর কমোডে লন্ড্রি সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন। খাবার সময় জুতা পায়ে ইনসুলিন পেন পকেটে নিয়ে চানাচুর খাওয়া বাদ্ধতামুলক। বদহজম হলে ঔষধ খাবেন। মেহমানের ফিরতে রাত হলে মোটরসাইকেলে করে বাসায় পৌঁছে দিন।