ক্যাটেগরিঃ দিনলিপি

স্বার্থমগ্নতা আর স্বার্থপরতার এক অদ্ভুত সময়ে বাস করছি। বেঁচে থাকার সমস্ত ইচ্ছা মরে গিয়ে যখন শুধু কর্মের মধ্যে নিজের অস্তিত্বকে টিকিয়ে রাখার নিরন্তর লড়াই করছি, তখন প্রতি মুহূর্তে মুষড়ে পড়তে হচ্ছে। জানিনা এই হতাশা এই অত্যাচারিতের জীবনযাপন আর কতো দিন!

সম্মানের বিপরীতে অসততা, ভালোবাসার বিপরীতে ছলনা আর সৌহার্দ্যের বিপরীতে ষড়যন্ত্রই এখনকার চলতি হিসেব। কিকরে এর বিরুদ্ধে লড়াই করে টিকে থাকা যাবে! একটা এমন পরিবেশ চেয়েছি, যেখানে পরিশ্রম করে, প্রতিযোগিতা করে নিজের যোগ্যতা কে যাচাই করে নেয়া যায়। এমন একটা অবস্থা আশা করেছিলাম, যেখানে কর্মদক্ষতা আর দায়িত্বশীলতাই হবে মূল্যায়নের মাপকাঠি। এমন একটা জায়গা চেয়েছি, যেখানে চাটুকারিতা নয়, মেধা-শ্রম আর নিষ্ঠার ন্যূনতম মর্যাদা থাকবে। হায়! কি বিষ্ময়! কি অপূর্ব! তোমার নিষ্ঠা, তোমার মেধাই তোমার পাপ! তোমার পরিশ্রম, তোমার দায়িত্বশীলতাই তোমার কাল! তোমার সাধনা, তোমার অর্জন, তোমার স্পৃহাই তোমার অন্যায়! সুস্থ্য প্রতিযোগিতা বিশ্বাসী নয় কেউ। যে বা যারা খেলবে, আর যারা নিয়ন্ত্রকের ভূমিকা পালন করবে, তারা কেউই চাইছে না একটা নিরপেক্ষ প্রতিযোগিতা হোক! প্রতিযোগিতার বদলে সবাই পছন্দ করছে দ্বন্দ্ব! হিংসা-প্রতিহিংসা! বন্ধুর সাথে ভালো রেজাল্টের জন্য প্রতিযোগিতা করবো না? প্রতিহিংসা করবো?

কি শিক্ষা পেয়েছি আর কি জীবনযাপন করছি! প্রতি মুহূর্তে একটা অসুস্থ পরিবেশে নিজের দম বন্ধ হয়ে আসছে। একটু শ্বাস নিতে যদি বটবৃক্ষের নিচে গিয়ে দাঁড়াই, ওমনি আমার পিএনপিসিবাজ(পরনিন্দাপরচর্চাবাজ) বন্ধুজনেরা সক্রিয়-সজাগ হয়ে উঠবেন। কোথায় যাবো? কি করে বাঁচবো!