ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

ভিশন ২০২১ এর পর থেকে যে শব্দটি প্রয়োগ এবং অপপ্রয়োগের দিক থেকে মানুষের মুখে সবচেয়ে বেশি উচ্চারিত হয়েছে তা হল ডিজিটাল। ডিজিটাল মানে কি? ডিজিটাল বাংলাদেশই বা কি? শাব্দিকভাবে ডিজিটাল বলতে যা বোঝায় তা হল “Any system based on discontinuous data or events”। বর্তমান সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ কে যে ভাবে উপস্থাপন করেছে তা হল –

“The philosophy of “Digital Bangladesh” comprises ensuring people’s democracy and rights, transparency, accountability, establishing justice and ensuring delivery of government services in each door through maximum use of technology-with the ultimate goal to improve the daily lifestyle of general people. Government’s “Digital Bangladesh” includes all classes of people and does not discriminate people in terms of technology. Hence, government have emphasized on the four elements of “Digital Bangladesh Vision” which are human resource development, people involvement, civil services and use of information technology in business”.

আমাদের প্রথমেই ভেবে দেখা দরকার যে, আমরা উপরোক্ত সংগা এবং দর্শনের সাথে একমত কিনা? আমার বিশ্বাস সকলেই একমত হবেন যে বিষয়টি দেশ ও জনগনের জন্য মঙ্গলজনক। যদি তাই হয় তবে আশা করব এর বাস্তবায়নে সকলকে কাজ করার এবং নেতিবাচক মন্তব্য থেকে বিরত থাকার জন্য। শুধু তাই নয় অস্পষ্ট ধারণা নিয়ে যারা বিরুপ সমালোচনা করেন তাদের কে বিষয়টির যথার্থতা বোঝানো।
এখন প্রশ্ন হল এই ডিজিটালাইজ কে করবে? আওয়ামীলীগ না বি,এন,পি না অন্য কোন দল? যে সরকারই ক্ষমতায় থাকুক করতে হবে তা না হলে দেশ যুগের সাথে তাল মিলাতে পারবে না।
দেখা যেতে পারে এমন একটি অঙ্গীকার দিয়ে যে সরকার দেশ চালাচ্ছে তাদের অর্জন কতটুকু? আর যারা বিরোধী আসনে বসে আছেন তারা এর বাস্তবায়নে সরকারকে কতটুকু চাপে রেখেছেন? আমাদের রাজনীতির সংস্কৃতিতে ক্ষমতাসীনদের অঙ্গীকার বাস্তবায়নে চাপের চাইতে কাজের বিরোধিতা করতেই বিরোধীদলের ভূমিকা বেশী থাকে।

আমি বিনীতভাবে দায়িত্বশীলদের নিকট কি প্রশ্ন রাখতে পারি –

১) নগন্যসংখ্যক ভূলের দোহাইদিয়ে কেন জাতীয় পরিচয়পত্র ডিজিটালাইজ করা হচ্ছে না?
২) সকল স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি আবেদন/ফলপ্রকাশ অনলাইনে করা বাধ্যতামূলক নয় কেন?
৩) সকল সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের ওয়েব সাইট খোলা বাধ্যতামূলক নয় কেন?
৪) সকল চাকুরীর আবেদন/ফলপ্রকাশ অনলাইন বাধ্যতামূলক নয় কেন?
৫) সকল সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের নিকট অনলাইনে প্রেরিত অভিযোগের প্রাপ্তিস্বীকার এবং পরবর্তীতে ফলাফল/তথ্য জানানো বাধ্যতামূলক নয় কেন?
৬) পিয়নের পরিবর্তে অনলাইন/ই মেইলের মাধ্যমে পত্র যোগাযোগ সরকারী অফিসে বাধ্যতামূলক নয় কেন?

এ ব্যবস্থাসমূহ নেয়ার জন্য সরকারের বড় কোন বাজেটের প্রয়োজন নাই, শুধুমাত্র নির্দেশই যথেষ্ট। বড় বড় বিষয়সমূহ আপাতত বাদ রাখলাম, সহজে ডিজিটালাইজ করা সম্ভব এমন কাজগুলোর তালিকা আমার সাথে যোগ করার জন্য ব্লগারদের অনুরোধ করছি।