ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

এ-পিঠ:
সুরঞ্জিত বাবু ঘুষ খেতে চেয়েছিলেন, ধরা পরেছেন।
এ,পি,এস তার নিজের লোক, এত টাকা থাকা মানেই কোন না কোন দূনীর্তির টাকা
গাড়ীর সবাই বলেছে তারা মন্ত্রীর বাসায় যাচ্ছিলেন।
মন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে স্বাভাবিক ছিলেন না, বিব্রতকর অবস্থায় দেখা গেছে।
সুতরাং মন্ত্রী জড়িত এতে কোন সন্দেহ নাই। সুতরাং মন্ত্রীর পদত্যাগ চাই।

ও-পিঠ:
মন্ত্রীর এপিএস সহ রেলের কর্তারা যে মিথ্যা বলছে না, তার প্রমাণ কি?
বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এতবড় নিয়োগে মাত্র ৭০ লাখ টাকা ঘুষ, হিসাব মেলে না।
যে সকল কর্মকর্তা গাড়ীতে ছিলেন, তারা প্রমানিত দূর্নীতিবাজ।
মন্ত্রীকে ফাসানোর জন্যই এ কাজ পরিকল্পিত ভাবে করা হয়েছে। যেমন একজন পুলিশ কর্মকর্তাকে ফাসানোর জন্য প্রাক্তন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী করেছিলেন।

রেশনাল:
বস্তাটি যে টাকা ভর্তি, তা গাড়ী চালক জানল কিভাবে?
গাড়ীচালকের অতীত রেকর্ড কি? সে কোথায়?
কর্মকর্তাগন এ টাকা কোথায় এবং কার থেকে সংগ্রহ করছে?
যে সকল বিজিবি সদস্য প্রথম সংশ্লিষ্ট হন, তাদের বক্তব্য কি?

তদন্ত সঠিক হলে বিড়ালের সন্ধান ঠিকই মিলবে। সরকারের উচিৎ সঠিক তদন্ত করে সঠিক ব্যবস্থা গ্রহণ। দোষী হলে মন্ত্রীসহ সকলকেই তার সাজা ভোগ করতে হবে। কেউ পরিকল্পিত ভাবে করে থাকলে আরো গুরুতর সাজা প্রদান করতে হবে। তাতে যেই দোষী হোক না কেন, নিজেদের লোক বা বাইরের লোক, সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জল হবে।