ক্যাটেগরিঃ পাঠাগার

১৯৪১সালের ১২ই আগস্ট। অভিবক্ত বাংলার বিধান সভার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে ফজলুল হকের শোক প্রস্তাব:

শব্দের মালা গেঁথে রবীন্দ্রনাথের প্রতি শ্রদ্বা নিবেদন করা সহজ নয়। গত কয়েকদিন ধরে সমগ্র পৃথিবীর অগণিত মানুষ রবীন্দ্রনাথের প্রতি তাদের ভালোবাসা ও শ্রদ্বা নিবেদন করছে। কিন্তু আমি বাঙাল হিসেবে অনুভব করছি যে, আমাদের পক্ষে এই তথ্য কখনোই ভুলে যাওয়া সম্ভব নয় যে, রবীন্দ্রনাথ এই প্রদেশে জম্ম গ্রহণ করেন, আমাদের ভাষায় কথা বলেন এবং এই মহান ব্যক্তি বাংলা সাহিত্যকে পৃথিবীর বিভিন্ন ভাষা সাহিত্যের মধ্যে একটি উচ্চ আসনে প্রতিষ্ঠিত করেন। তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু তাঁ রচনাবলী কেবলমাত্র গ্রন্থের মধ্যেই আবদ্ধ থাকবেনা, তাঁর লক্ষ লক্ষ দেশবাসীর অন্তরে তা জীবন্ত থাকবে।……..আমরা যতই শ্রদ্বা নিবেদন করিনা কেন, তবু্‌ও মনে হবে যেন ঠিকমতো শ্রদ্ধা নিবেদন করা হলনা। তিনি মহান ছিলেন, এই কথা বলাই যথেষ্ট নয়।
তিনি কবি হিসেবে মহান ছিলেন,
তিনি দার্শনিক হিসেবে মহান ছিলেন,
তিনি মানব-দরদী হিসেবে মহান ছিলেন,
তিনি তাঁর গানের মধ্যে মহান ছিলেন,
তিনি তো কেবলমাত্র কবিতাই রচনা করেননি, তার সমগ্র জীবনই ছিল কবিতা। আমরা বাঙালী হিসেবে অনুভব করিযে,তিনি তো কেবলমাত্র বাংলাদেশের বা ভারতের ছিলেন না। তিনি ছিলেন সমগ্র সভ্য মানবজাতির। এই বিষয়ে যাদের দক্ষতা আছে তাঁরা আরও অনেক কিছু আলোচনা করবেন। আমি শুধু এই কথাই বলতে চাইযে, এখানে তাঁর মহাপ্রয়ানে যে গভীর শোক আমরা প্রকাশ করছি, তা ব্যক্তি হিসেবে করছি না, কোনো সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি হিসেবেও করছি না, মহান বাঙালী জাতির অধিবাসী হিসাবেই করছি। আমরা আজ গর্বিত যে, আমাদের মাঝে রবীন্দ্রনাথের মতো একজন ব্যক্তি ছিলেন। যাকে সমগ্র সভ্য জগৎ শ্রদ্ধা নিবেদন করছে।

সুচিন্তিত মতামত আশা করছি।