ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

 

সারাবছর ব্যস্ত থাকার পর ২ ঈদে ১টু ছুটি পাওয়া যায়। যারা দেশের বেহাল যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে এদিক সেদিক যেতে পারি না, তারা এই ঈদ এ একটু টিভি সেটের সামনে বসি সময় কাটানোর জন্য ১টু নির্মল আনন্দের জন্য। কিন্তু সেই অবস্থাটুকুও নেই। আর এবার তো বৃষ্টির কারণে বাইরে যেতে সমস্যা হচ্ছে। তাই আরও বেশি টিভি সেটের সামনে বসা প্রয়োজন হয়ে পড়ে। কিন্তু সেই অনুষ্ঠানও শান্তি মত দেখার উপায় নেই। একে তো সময় মত অনুষ্ঠান শুরু হয় না তার ওপর যা শুরু হয় তা শেষ করতে দিন পার হয়ে যায়। ২০-২২ মিনিটের নাটক শেষ করতে লাগে ২ ঘন্টা। আবার যে খুব ১টা মানসম্মত নাটক হয় তাও বলা যাবে না। আমরা যারা একটু হলিউড এর মুভি দেখি তারা কিন্তু ধরতে পারি। সবচেয়ে আশ্চর্য লাগে অনেকে স্বীকারও করে না তারা ওখান থেকে নকল করেছে। এবার নাটক, টেলিফিল্ম দেখতে গিয়ে চরম মেজাজ খারাপ হচ্ছে। এতো বেশি এ্যাড দেয় যে অন্য চ্যানেল ঘুরে এসে আগের নাটক দেখতে গেলে কাহিনী ভুলে যাই। এতো বিজ্ঞাপন দিয়ে যদি নাটক দেখতে হয় তাহলে আমাদের মা বোনদের কিভাবে দোষ দেই হিন্দি, বাংলা সিরিয়াল কিংবা হিন্দি, বাংলা সিনেমা দেখার জন্য। সেখানে সময়মত অনুষ্ঠান শুরু হয় আবার শেষও হয়(অবশ্য সব ক্ষেত্রে না) আর আমাদের টেলিভিশন চ্যানেল এর “বুদ্ধিজীবীরা” এককভাবে পশ্চিমা সংস্কৃতির আগ্রাসন বলে। কিন্তু তারাও তো এর জন্য সমানভাবে দায়ী বলে আমি মনে করি। তবে সব সময় এর মত এবারও ইত্যাদি ছিল ব্যতিক্রম একদম শান্তিতে দেখা যায়। যে কোম্পানী তাদের স্পনসর করে আমরা তা সবাই জানি। কিন্তু যারা এতো বেশি এড দেয় তাদের খরচও বেশি হয় আবার নানা চ্যানেল ঘুরতে হয়।

এই বিজ্ঞাপন অত্যাচার থেকে কি কোন মুক্তি নেই??