ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

এই আন্দোলন বেশী দিন কি থাকবে ?

আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনে করছি এই আন্দোলন দীর্ঘ মেয়াদি হবে, যেহেতু এটা কোন দলীয় আন্দোলন না। আপনি যদি ইতিহাস দেখেন তাহলে ১৯৫২ সালের যেই ভাষা আন্দোলন টি হয়েছিল ১৯৪৮ সাল থেকে শুরু হয়েছিল। ২১ এ ফেব্রুয়ারী তে শহীদ হয়েছিল সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার আরও নাম না জানা অনেকে। অতঃপর মুক্তিযুদ্ধ করে স্বাধীন হয়েছিলাম আমরা। আপনি যদি ১৯৭৫ এর ১৫ ই আগস্ট এর পর থেকে যেই স্বৈরাচারী সরকার শুরু হয় যখন তখন ৮০ থেকে শুরু করে ৯০ এ যে গণ আন্দোলন হয় সেটি কে লক্ষ করেন তাহলে দেখবেন গুটি কয়েক ছাত্র মিলে ঢাকা বিস্ববিদ্যালয় এর প্রাঙ্গন থেকে শুরু করেছিল এবং তাতে সমর্থন দিয়েছিল সকল রাজনৈতিক দলগুলো দেশ ফিরে পেয়েছিল গণতন্ত্র। তেমনি আজ এসেছে ২০১৩ যুদ্ধ অপরাধীর দাবিতে একত্র বাংলাদেশ। সময় হয়তো লাগবে কিন্তু হবেই জয় এদের একদিন। এবং এখানে পাবেন আসল দেশ প্রেমিক।

এটা সরকারের গদি বাচানোর উপায়; সরকার ইচ্ছা করেই এই কাজ করিয়েছে ?

সাহাবাগ এ যে আন্দোলন হচ্ছে এই আন্দোলন সাধারণ ছাত্র জনতার আন্দোলন। এই আন্দোলন সরকার বিরোধী আন্দোলন। এই আন্দোলন কে সরকারের গদি বাচবে না এখন এই আন্দোলন চললে সরকারের সমস্যা হতে পারে। সরকার যদি এদের কে পলিশ দিয়ে উঠিয়ে দেন তাহলেও সমস্যা থাকতো।

এই আন্দোলন ধর্ম বিরোধী ভাবে কাজ করছে ?

আস্তিকতা /নাস্তিকতা নিয়ে বেহুদা তর্ক তোলাটা ছাগুদের একটা কৌশল।হত্যার বিচারের সাথে আস্তিকতা নাস্তিকতার কোন সম্পর্ক নাই।পৃথিবীর অধিকাংশ গণহত্যাকারীরা কি আস্তিক ছিলেন নাকি নাস্তিক? আমি আপাদমস্তক একজন আস্তিক মানুষ। আমি আমার ধর্মে বিশ্বাসী। নাস্তিক যদি আমার স্রষ্টাকে ও ধর্মকে গালাগাল করেন তবে আমি বুঝি সে পুরোপুরি নাস্তিক না। কারন যার অস্তিত্বে সে বিশ্বাস করে না , তাকে নিয়ে সে মন্তব্য করা মানেই স্রষ্টা আছেন বলে মেনে নেয়.. অস্তিত্ব না থাকলে সে কাকে নিয়ে মন্তব্য করে…? তাই বেহুদা প্যাঁচাল না পেড়ে আসেন সোজাসুজি বলেন, আপনি কি হত্যার, অপরাধের, অন্যায়ের বিচার চান, নাকি চান না?

আওয়ামীলীগ নেতাদের উপস্থিতি কেন ?

দেশের স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি একটাই সেটা হল আওয়ামীলীগ ও তার সাথের দলগুলো। সেই হিসাবে তাদের মন থেকে যে সমর্থন আছে তা তারা প্রকাশ করতে গিয়েছিলেন। যদিও এটি ঠিক না। তবে এই বিচার করতে যেয়ে যখন দেখলো আওয়ামী সরকার একা পরে গেল ঠিক সেই সময় এরকম একটি আন্দোলন তাদের শক্তি হয়ে উঠেছে ।

রাজীব হত্যাকান্ড এর সাথে জামাত শিবির নাকি সরকার জড়িত ?

রাজীব হত্যার সাথে জামাত শিবির এর জরিত থাকার সম্ভবনা বেশী যেহেতু এই আন্দলনের কারনে তারা মরিয়ে হয়ে উঠেছে। পাশাপাশি অন্য কোন দেশিয় এজেন্ট ও কাজ টি করতে পারে এই আন্দোলন কে হিংসাত্মক পরিস্থিতিতে নিয়ে যাওয়ার জন্য।

কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় ইচ্ছা করলেই সরকার দিতে পারত কিন্তু কেন দিলনা ?

আপনারা জানেন হয়তো বিচার বিভাগ স্বাধীন; একে নিয়ন্ত্রন করার এখতিয়ার কারো নাই। সরকার ইচ্ছা করলেই পারেনা। তারপর আমরা হয়তো ওটাকে সমালোচনা করতাম। বিশ্ব যেহেতু আমাদের কে এই বিচার করতে দিতে চায়না সেই হিসাবে সরকার এর ইচ্ছা পুরন করলেও সমস্যা ছিল।