ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

 

বাংলাদেশের মানুষ আজ চরম হতাশার মধ্যে বসবাস করছেন। কোথাও যেনো কোনো আশার আলো দেখতে পাচ্ছেন না। বড়ো দুটো দলের ক্ষমতায় যাওয়া ও ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখার খেলায় সাধারণ মানুষ ক্রমাগত তার অস্তিত্ব হারিয়ে ফেলছে। দুবেলা দুমুঠো অন্ন সংস্থানের জন্য এদেশের সাধারণ কৃষক, শ্রমজীবী ও মধ্যবিত্ত দিন-রাত পরিশ্রম করেন। কিন্তু পরিশ্রমের ফসল তুলে নিচ্ছে লুটপাটকারী রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, সামরিক-বেসামরিক আমলা, নানা রকমের ফাটকা ব্যবসায়ী বিশেষত শেয়ার বাজারের বাজিকর, তথাকথিত এমএলএম কোম্পানী সহ আরো বহুবিধ টাউট-দালাল ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। পেঁয়াজের কোষ যেমন খুলতে খুলতে শেষ হয় এক জায়গায় এসে, এখানকার নানা পেশার আড়ালের সব লুণ্ঠনকারীদের পরিচয় এক জায়গায়- রক্তচোষা শোষক।

কৃষককে ন্যায্যমূল্য থেকে কারা বঞ্চিত করছে? ন্যূনতম মজুরী থেকে শ্রমিককে কারা বঞ্চিত করছে? বেকার সমস্যা কারা সৃষ্টি করছে? কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য শিল্পায়নে বাঁধা কারা? এদেশের তেল-গ্যাস, কয়লাসহ খনিজ সম্পদ বিদেশীদের হাতে তুলে দেয়ার চক্রান্ত কারা করছে? সকল প্রকার খাদ্যশস্য, শাক-সব্জী, ফল-মূলে বিষাক্ত রাসায়নিক দিয়ে মানুষকে হত্যার নিরব ঘাতক কারা? স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা খাতে মানুষকে জিম্মি করে রেখেছে কারা? আবাসনের নামে কৃষি জমি দখল, খাল-বিল-নদী ভরাট করে ফেলা, সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষকে উচ্ছেদ করা-এর সাথে কারা জড়িত? শিক্ষা ব্যবস্থায় চরম শ্রেণী বৈষম্য ও শিক্ষার নামে বানিজ্য টিকিয়ে রেখেছে কোন গোষ্ঠী? এতসব প্রশ্নের ভারে ভারাক্রান্ত হতে পারি আমরা কিন্তু এর উত্তর খুব সহজ- এরা হচ্ছে সে গোষ্ঠী যারা ক্ষমতায় বসে হালুয়া-রুটি খাচ্ছে এবং ক্ষমতার এবং ক্ষমতা লাভে আগ্রাসী বিরোধী ছোটে বড় দলগুলো । তবে দলগুলোর নিয়ন্ত্রণ কিন্তু ব্যবসায়ী ও সামরিক-বেসামরিক আমলাদের হাতে। দেশের সম্পদ সীমিত, অতীতের দল সর্বনাশ করে দিয়ে গেছে, জনসংখ্যা বিরাট বাঁধা, হরতাল-অবরোধ, ধর্মঘট-বিক্ষোভের পেছনে সব ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত এ সমস্ত বস্তাপচা বুলি ও অজুহাত আর কতকাল?

কিন্তু প্রশ্ন হলো, দেশের জনগণ, যারা নিপীড়িত তারা কী চিনতে পারছেন তাদের দুর্দশার জন্য দায়ী কারা? সহজে শত্রু চেনে কয়জন ভোটের রাজনীতির হিসাবে সব শত্রু-মিত্র চেনার হিসাব এভাবে পাল্টে যায় কেনো? শুধু্ কি দারিদ্র্য? নাকি আমাদের চেতনার দারিদ্র্য ও দাসত্বও এখানে কাজ করে? নাকি আমাদের সাংস্কৃতিক মান যাতে উঁচু অবস্থানে যেতে না পারে, মানুষ যাতে সচেতন হয়ে উঠতে না পারে তার জন্য আঁটা হয়ে গভীর নীল নকশা।

আমি কেবল প্রশ্ন করে গেলাম। উত্তর আশা করছি পাঠকদের কাছে। মন্তব্যও।