ক্যাটেগরিঃ ব্লগ

 


বেশ কয়েক দিন যাবত রাস্তায় ব্যাংকের সামনে দীর্ঘ লাইন দেখা যাচ্চে । উঠতি বয়সি ছেলে মেয়েদের এ র্দীঘ লাইনের দিকে যে কারো চোখ অতি সহজেই আকৃস্ট হবার কথা । ভোর রাত থেকে শুরু করে সন্ধ্যা পর্যন্ত নাওয়া খাওয়া ভুলে আমাদের দেশের দামাল ছেলে-মেয়েরা লেগে গেছে বাংলাদেশ বনাম ইন্ডিজের খেলার টিকিট সংগ্রহের কাজে ।

জামাত শিবিরের ছেলেরা যখন রাস্তায় গাড়ি ভাংচুর করছে,আগুন দিচ্ছে ঠিক সে সময়ে হাজার হাজার খেলা প্রেমিক ছেলে মেয়েরা দীর্ঘ সময় লাইনে দাড়িয়ে প্রতিক্ষা করছে একটি টিকিটের জন্য । বাংলাদেশে ক্রিকেট যে কি পরিমানে জনপ্রিয় হয়েছে এটা তারই প্রমান ।

কিন্তু তবুও বেশির ভাগ লাইনে দাঁড়ানো ছেলে মেয়ে টিকিট পাচ্ছে না । সারা দিন লাইনে দাঁড়িয়ে ঠেলা ধাক্কা সয়ে ব্যাংকের দরজায় পৌছানোর পর বলা হচ্ছে টিকিট শেষ ।অথবা ব্যাংন্কিং আওয়ার শেষ । ফলে বেশ কয়েক জায়গায় ভাংচুরের ঘটনাও ঘটেছে । ব্যাংক থেকে না করা হলেও টিকিট চলে যাচ্ছে কালোবাজারিদের হাতে । মতিঝিল , উত্তরায় প্রকাশে কালোবারিদের টিকিট বিক্রি করতে দেখা গেছে । কিন্তু কি ভাবে ?

উত্তর হচ্ছে – । স্যোসাল ইসলামি ব্যাংকের কর্মকতা থেকে শুরু করে পিওন পযর্ন্ত জড়িত হয়ে পরেছে কালো বাজারিদের সঙ্গে । স্যোসাল ইসলামি প্রায় প্রতি কর্মকতা নীজেদের আত্মীয় স্বজনদের জন্য দুটি করে টিকিট তুলেছেন । এবং পরে অনেকে তা তা পিওনের মাধ্যমে কালোবাজারে বিক্রিও করে দিয়েছেন।

এর প্রতিকার কি ? কয়েকশ টাকার লোভের কারণে শত শত ছেলে মেয়ে মুর্হুতে ডুবে যাচ্ছে হতাশায় । অথচ প্রতিকার জানাবার কোন জায়গা নেই । আগামীতে দেশ গড়ার দ্ধায়িত্ যাদের হাতে তাদেরকে কি শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে ? গতকালও টিকিট না পেয়ে বিসিবিতে ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে । একদিকে বিসিবির সঙ্গে জড়িত কর্মকতারা বিলাচ্ছেন সৌজন্য টিকিট, স্যোসাল ইসলামী ব্যাংকের কর্মকতারা পাচার করে দিচ্ছে টিকিট কালো বাজারিদের কাছে । আর হতাশায় পুড়ছে সত্যিকাররে ক্রিকেট প্রেমি আর বাংলাদেশের ক্রিকেট । শিয়ালের কাছে মুরগী বর্গার এর চাইতে বড় বড় উদাহরণ আর কি হতে পারে ।

স্যোসাল ইসলামি ব্যাংটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হোক । খতিয়ে দেখা হোক কারা এর সঙ্গে জড়িত । এ দাবী জানালেও জানি কিছুই করা হবে না কেননা এর দায় যে বিসিবিকেও নিতে হবে ।