ক্যাটেগরিঃ স্বাধিকার চেতনা

আল্লাহ্ যাকে ইচ্ছে রাজ্য দান করুন , সম্মান দান করেন এবং অপমান করেন । তিনিই শ্রেষ্ঠ বিচারক ।

যতো ঘৃণ্য ব্যক্তিই হোক না কেন , একজন মৃত ব্যক্তি সকল সমালোচনার ঊর্ধ্বে এবং সে শুধু মাত্র সৃষ্টিকর্তার বিচার প্রার্থী । নিজ মুখ খারাপ করে কোন ফল নেই । যা কর্মের ফল সে পাবেই । আমরা শুধু তার জন্য দোয়া করা থেকে বিরত থাকতে পারি । এক তিল বা সরিষা পরিমাণ পাপ কেউ লুকাতে পারবে না । আল্লাহ্‌ কড়ায় গণ্ডায় হিসাব নেবেন । সুতরাং নিজেদের শান্তি নষ্ট করার কোন কারণ দেখি না ।

নতুন প্রজন্ম নামে খ্যাত অনেকেই হয়তো এ লেখাটি দেখে আমার সমালোচনা শুরু করতে পারেন, তাদের উদ্দেশ্যে বলবো, আমি একজন মুসলমান এবং হাদিস কোরআন-ই আমার বিশ্বাস । গোলাম আযম যে, পাপ করেছেন তার দায় ভার মাথায় নিয়েই তিনি মৃত্যু বরণ করছেন । এখন যেখানে তিনি পৌঁছে গেছেন সেখানে জীবিত মানুষের পক্ষে পৌঁছে কোন কিছু করা সম্ভব নয় । আমাদের যদি ক্ষমতা থাকতো তা হলে গোলাম আযম অনেক আগেই ফাঁসিতে ঝুলত । সুতরাং বুদ্ধি মানরা বুঝে গেছেন আমাদের ক্ষমতা কতোটুকু !

গোলাম আজম প্রকাশ্য বাংলাদেশের বিরোধিতা করার পরেও তিনি বাংলাদেশের নাগরিকত্ব লাভ করেছেন । এদেশে বসবাস করেছেন । রাজনীতিতে অংশ গ্রহণ করেছেন । ঢাকায় নিজের বাড়ি করেছেন । ছেলেমেয়েদের এদেশের টাকায় বিদেশে লেখাপড়া করিয়েছেন । সবচাইতে বড় যেটি আরো হাজার হাজার নতুন রাজাকারের জন্ম দিয়েছেন ।

কজন মুক্তিযোদ্ধার ঢাকায় নিজের আলি-শান বাড়ি আছে ? ছেলে মেয়েরা আমেরিকায় লেখাপড়া করেছে ? সরকারের অনুষ্ঠানগুলোতে রাষ্ট্রীয় অতিথি হয়ে অংশ নিয়েছেন ? মুখে মুখে গোলাম আযমকে সস্তা তিরস্কার না করে আসুন তিরস্কার করি সেই সব ব্যক্তিদের যারা গোলাম আযমকে এতো সফল হতে সাহায্য করেছে ।

ফেসবুক, ব্লগগুলোতে দেখছি গালাগালির বন্যা বইছে । দেশ প্রেম , ধর্ম আমাদের গালাগালি শিক্ষা দেয়নি । আসুন নিজেদের সমালোচনা করি । গোলাম আযমকে ফাঁসিতে ঝুলাতে পারিনি এ ব্যর্থতা আমাদের সকলের । ৩০ লাখ শহীদের প্রতি আমরা যথাযথ সম্মান দেখাতে ব্যর্থ হয়েছি এ ব্যর্থতাও আমাদের । গোলাম আযমের নয় ।