ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

বাণিজ্যমন্ত্রীর ছত্রছায়ায় সুবিধাবাদী ব্যবসায়িদের সিন্ডিকেটের কারণে দ্রব্যমুল্যের উর্ধ্ব গতিতে বাজারে আগুন,মানুষের ঘরে ঘরে অশান্তি । মরার উপড় খারার ঘা হয়ে বসেছে জ্বালানী ও বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধি । শেয়ার বাজার আবারও সিন্ডিকেটের দখলে । পররাস্ট্র মন্ত্রীর ব্যর্থতার কারণে বিদেশে বাংলাদেশী শ্রমিক নিয়োগ এক প্রকার বন্ধ হয়ে গেছে । অথচ তিনি শিশুদের মতো নিজ হাতে ব্যক্তিগত ক্যামেরা বদ্ধ করছেন তার বিদেশ ভ্রমনের স্মৃতি । হয়তো দূ:দিন ছবিগুলো ওনার কাজে আসবে, একদিম মন্ত্রী ছিলাম রে , অথবা স্মৃতি তুমি বেদনা বলে সুর করে গাইতে পারবেন ।

যোগাযোগ মন্ত্রী , অর্থমন্ত্রীর ব্যর্থতার জন্য বিশ্বব্যাংক, জাইকার কাছে বাংলাদেশ হারিয়েছে বিশ্বাস যোগ্যতা ফলে বৈদেশিক সাহায্যও বন্ধ হয়ে গেছে ।

ইউনুস প্রসঙ্গে আমেরিকা নিয়েছে মুখ ফিরিয়ে । হিলারী মায়ানমারে, দিল্লীতে গেলেও কূটনৈতিক ব্যর্থতার জন্য বাংলাদেশে আসছেন না । ভারতের সঙ্গে সর্ম্পক টিকে আছে শুধুমাত্র ট্যান্জিট আর কড়িডোর দেবার র্শতে । আমাদের ব্যর্থ কুটনৈতিকরা চা-বিস্কুট খাওয়া আর স্যার, স্যার করা ছাড়া কিছুই আদায় করে নিতে পারেনি ভারতের কাছ থেকে । তিস্তা চুক্তি তো দূরে থাক উল্টো টিপাই বাঁধ ভারত বাংলাদেশকে মারতে বসেছে ।

আইনমন্ত্রীর এবং স্বরাস্ট্র মন্ত্রীর কারণে দেশের আইন শৃঙ্খলার পরিস্থিতি হয়ে উঠেছে ভয়াবহ । নিজ দলের মেয়র লোকমান হত্যার বিচার চেয়ে পথে পথে ঘুরছে তার পরিবার । দুনীতিবাজ সুবিদাবাদী নেতাদের দাপটে দলের সাধারণ কর্মীরা আজ ফিরিয়ে নিয়েছে মুখ – অথচ প্রধানমন্ত্রী নতুন মন্ত্রীদের শপথ গ্রহনের অনুস্ঠানে বলছেন- তিনি তার মন্ত্রীদের কাজে খুশি । পুরো দেশবাসীসহ নিজ দলের নেতারাও যখন চাইছেন ব্যর্থমন্ত্রীদের পদত্যাগ তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নতুন মন্ত্রীদের পাশাপাশি ব্যর্থ মন্ত্রীদের তিনি প্রশংসার মাধ্যমে করছেন পুরস্কৃত । হাস্যরস করে বলছেন, “দুই বোমা বন্ধ করলাম ।” একজন শাসক যখন তার প্রজাদের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা হয়ে পরেন তখনই শুধু এরকম কথা তারপক্ষে বলা সম্ভব হয়ে থাকে ।

অনেক সাধ করে এদেশের সাধারণ জনগন যারা আপনাকে ভোট দিয়ে ক্ষমতায় বসিয়ে ছিল । এখন তারাই মানুষের কাছে হাস্যরসের পাত্রতে পরিনত হয়েছে , তাদের প্রতিনিয়ত শুনতে হচ্ছে নানা কটুক্তি । বিরোধীদলীয় নেত্রী বলছেন,পালাতে দেওয়া হবে না । তারমানে ভবিষ্যতে আওয়ামী কর্মীদের জন্য অপেক্ষা করছে জেল-জুলুম ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনিসহ আপনার মন্ত্রীদের পালাবার হাজারটা জায়গা থাকলেও ঐসব সাধারণ মানুষের পালাবার কোন জায়গা নেই । যারা বঙ্গবন্ধুকে ভালবেসে আপনাকে ভোট দিয়ে ক্ষমতায় এনেছিল ।

আর তো বাকি নেই । মোটে মাত্র আর দুটো বছর । আশা করছি সময়ই বলে দেবে সব । সময়ের জবাব সবসময় খুব ভয়ন্কর হয়ে থাকে । সত্য কথা তিতাও ভাল তাই এতোগুলো কথা বললাম । নতুন মন্ত্রীদের সুস্বাগতম জানিয়ে বলছি, আশা করবো তারা তাদের কথার মতো কাজ কর্মেও দ্বায়িত্ববান থাকবেন।

পরিশেষে একটা কথা দিয়ে শেষ করতে চাই , সেটি হলো বাংলাতে বহু পুরানো একটি কথা প্রচলিত আছে , ভিক্ষা চাই না , কুত্তা সামলান । মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের অবস্থাও তাই আমরা নতুন মন্ত্রী চাইনা – দয়া করে আপনার অযোগ্য মন্ত্রীদের হাত থেকে দেশবাসীকে পরিত্রান দিন ।