ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা, ব্লগ সংকলন: সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের পর এক এক করে অতিবাহিত হয়ে গেছে অনেকগুলো দিন । এখন পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডের রহস্য রহস্যই রয়ে গেছে । কিন্তু পানি গড়িয়েছে অনেক দূর । প্রধানমন্ত্রী থেকে বিরোধী দলীয় নেত্রী আর নেতা থেকে আতিপাতি নেতা,বেডরুম থেকে চায়ের দোকান যে যার মতো এ হত্যাকাণ্ডটি নিয়ে কথা বলছে , ব্যাখ্যা দিচ্ছে ফলশ্রুতিতে বাড়ছে গুজবের পর গুজব । কিন্তু হত্যাকান্ডের কোন জট খুলছে না। এতো গুজবে আদালত ও কান না দিয়ে পারেনি, আদালত সাগর-রুনির খুনিদের গ্রেফতার করতে রুল জারি করেছে । নিদেশ দিয়েছে, অনুমাননির্ভর সংবাদ প্রকাশ বন্ধে ব্যবস্থা নেয়ার ।

বেশ কয়েকবার পুলিশ প্রশাসন আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কাছ থেকে, “পুলিশ হত্যাকাণ্ডের রহস্য প্রায় উদ্ধার করে ফেলেছে , পুলিশ খুনের কারণ জানতে পেরেছে যে কোন সময় গ্রেফতার, আর কিছুদিন অপেক্ষা করুন”এ জাতীয় কথা শোনা গেলেও কোনটিই সত্য বলে প্রামাণিত হয়নি । হত্যাকাণ্ডটি যে তিমিরে ছিল তার চেয়েও বেশি অন্ধকারে হারিয়ে যেতে বসেছে । এ নিয়ে জনমনে নানান রকম প্রশ্ন দেখা দিয়েছে – কেননা মানুষের কৌতূহল হলো পেঁয়াজের খোসার মতো একবার ছাড়াতে শুরু করলে খুলতেই থাকে । সাগর রুনি হত্যাকাণ্ড নিয়েও মানুষের কৌতূহলের কোন শেষ নেই । সাংবাদিকদের আন্দোলনের পরিপেক্ষিতে এ কৌতুহল আরো অনেকদিন টিকে থাকবে বলেই মনে হচ্ছে ।

আমার মনে কয়েকটি প্রশ্নের উদ্ভব হয়েছে তাহল :
১.সাগর রুনির হত্যাকাণ্ড রহস্যের কুলকিনারা না করতে পারার দায়ভার আসলে কার ? সরকারের নাকি আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নাকি তদন্তকারী সংস্থার ?
২.যদি এ দায়ভার আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হয়ে থাকে তাহলে প্রশ্ন হচ্ছে জনগনের ট্যাক্সের টাকায় কেন অযোগ্য আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অযোগ্য কর্মকতাদের পোষা হচ্ছে ?
৩. কেন তারা এখনও এ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন পারেনি ?
৪. এ ব্যর্থতার পরও কোন যোগ্যতায় তারা এখন চাকরীতে টিকে আছে ? কেন তাদের চাকরীচূত্য করা হচ্ছে না ? তদন্তকারী সংস্থার লোকেরাই বা কিভাবে টিকে আছে তাদের স্ব-স্ব পদে ?
৬. কিছু লোকের অযোগ্যতার দায়ভার কেন সরকার নেবে ?

পক্ষান্তরে, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সত্যিই যদি তাদের কথা অনুসারে সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড রহস্যের কিনারায় পৌঁছতে পারে আর তা যদি সরকারের কারণে প্রকাশ করতে না পারে, তাহলে হলে কেন তারা আদালতে যাচ্ছে না ? আদালত তো রুল জারি করেই দিয়েছে । সরকার তো আর আদালত থেকে বেশি শক্তিশালী নয় !!

পরিশেষে একটি কথা না বলেই পারছি না, ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা,২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় তদন্তকারী অনেক বড় বড় আমলা গামলারাও কিন্তু বর্তমানে জেলে পঁচছে আর কপাল চাপড়াচ্ছে । জনগন কিন্তু সব দেখে এবং বোঝে আর পাঁচ বছর অন্তর অন্তর তার জবাবও দেয় ।