ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা গুলিতে নিহত হওয়ায় সরকারের মুকুটে আরেকটি লজ্জাজনক পালক যোগ হলো । স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ দায় কিছুতেই এড়াতে পারেন না । মিডিয়ায় দেখলাম আপনারা অত্যন্ত বিনয়ের সঙ্গে বলছেন, আপনার দু:খিত,মর্মাহত ,শোকাহত আপনাদের এ বিনয়ে কারো কিছু যায় আসে না, না যে নিহত হয়েছে তার না জাতির । হত্যাকাণ্ডের দায় ভার স্বীকার করে দু’জনই পদত্যাগ করুন । এতো নিরাপদ আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা আমরা চাইনা । লজ্জা থাকলে পদত্যাগ করে জাতিকে মুক্তি দিন ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিপু মনি কি করে বললেন যে,”‘কর্মকর্তা হত্যা সৌদির সঙ্গে সম্পর্কে প্রভাব ফেলবে না’”? আপনি কি এখনও আশা করেন যে সৌদিতে বাংলাদেশের শ্রমবাজার চাঙ্গা হবে ? বহি:বিশ্বে এর পরও কি বাংলাদেশের ভাবমূতি অক্ষুন্ন থাকবে ? পররাস্ট্টনীতি সর্ম্পকে কোন ধারণা না থাকার পরও আপনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী । এ লজ্জা কোথায় রাখি !!
ভারতসহ পৃথিবীর অন্যকোন রাস্ট্রে এধরনের ঘটনা ঘটলে তার দায় স্বীকার করে দায়িত্বরত মন্ত্রীরা পদত্যাগ করত ।

বাংলাদেশের ইতিহাসে এতো ব্যর্থ স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী এক সঙ্গে আসেনি । আমাদের চরম দু:ভাগ্য যে আমরা আওয়ামি লীগকে ভোট দিয়েছিলাম তাই এ হত্যাকাণ্ডের দায়ভার আমরাও এড়িয়ে যেতে পারিনা।

প্রধানমন্ত্রী একের পর এক বড় বড় কথা বলে বাংলাদেশটাকে তলা শূণ্য হাড়িতে পরিনত করে ফেলেছেন । জাতির সামনে এখন শুধুই অন্ধকার । ভারতের নির্লজ্জ দালাল “উপদেষ্টা গওহর রিজভীর নির্লজ্জ বক্তব্য প্রমাণ করে ” সরকারের মধ্যে ভারতের নিয়োগকারী দালালরা বসবাস করছে । তাই এ দায় প্রধানমন্ত্রী আপনারও। আর মাত্র দেড় বছর পরেই টের পাবেন লজ্জা কাকে বলে? কতো প্রকার? ও কি কি ?