ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

 
ভবিষ্যত ক্রিকেটার

আজ থেকে শুরু হচ্ছে এশিয়া কাপ । প্রথম খেলায় বাংলাদেশ মুখোমুখি হবে শক্তিশালি পাকিস্তানের । এশিয়া কাপের টিম সিলেকশন নিয়ে ইতিমধ্যে অনেক নাটক হয়ে গেছে । এ নাটকের নায়ক ছিলেন আকরাম খান । তিনি আপাতত সফল অভিনেতা । বাংলাদেশের ক্রিকেটে আকরাম খানের অবদান ভুলার নয় । বাংলাদেশের ক্রিকেট আজ যেখানে দাঁড়িয়ে আছে -তার পেছনে অনেকের মতো আকরাম খানের ভূমিকাও অনস্বীকার্য ।

ক্রিকেট হচ্ছে ফর্মের খেলা । যে যতো ফর্মে সে ততো সফল খেলোয়ার । ফর্ম নেই তো কিছুই নেই । পৃথিবীর অন্যন্য দেশে ফর্মে না থাকলে, যতো বড় তারকা ক্রিকেটারই হোক না কেন দলে ঠাই পায় না । নতুন তরুন খেলোয়ারদের সুযোগ করে দেওয়া হয় । ফলে দল নতুন কিছু পায় । খোলোয়াড়ও ফর্ম থাকার জন্য মরিয়া হয়ে চেষ্টা করে ।

কিন্তু বাংলাদেশে এ চিত্র ভিন্ন – ফর্মে না থাকার পরও একজন ক্রিকেটার মাসের পর মাসে , বছরের পর বছর দলে থেকে যান । কিন্তু কি ভাবে সেটা সম্ভব ? হ্যা,সেটি হচ্ছে লোভিং নয়তো মামা চাচার জোড় ।

তামিম ইকবাল ফর্মে নেই অনেক দিন । সেই বিশ্বকাপের আগ থেকে দেখছি – নিবু নিবু প্রদীপের মতো তিনি জ্বলছেন । বিশ্বকাপের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচেও দেখেছি – ভাল ব্যাটিং করার আশায় নিজের ফিল্ডিং বাদ দিয়ে স্বেচ্ছায় বিশ্রাম নিয়ে শুভকে পাঠিয়েছেন ফিল্ডিং করতে । কিন্তু ব্যাটিং নেমেও সেই ফ্লপই ।

ছোট বেলা থেকে শুনে এসেছি – মামা চাচার জোড় না থাকলে কিছু হয় না । আকরাম খানের কল্যাণে তা দেখলামও । মামা, চাচা না থাকার ফলে রফিকের মতো তারকা খেলোয়ার ও খেলা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়ে ছিলেন । মাশরাফিও নানান নাটকের শিকার হয়েছেন ।

আর ফর্মে না থাকার কারণে তামিমকে টিম থেকে বাদ দেবার জন্য আকরাম খান পদত্যাগ করে বসলেন । শুরু হলো নাটক । তিনি নাকি স্বাধীনমতো কাছ করতে পারছেন না । তিনি পদত্যাগ করলেন, আবার পারধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে ফিরেও আসলেন,তামিও ফিরল । অথর্চ ফর্মে থাকার পরেও দলে নেই – ইলিয়াস সানি । কেননা ইলিয়াস সানির তো কোন মামা বা চাচা নেই ।

সাকিব,তামিম,মুশফিক এরা নি:সন্দেহে ভাল খেলোয়ার কিন্তু হাজারো সাকিব,তামিম, মুশফিক এর মতো ভাল খেলোয়ায় বাংলাদেশের আনাচেকানাচে পরে আছে মামা চাচার জোড় না থাকার কারণে তারা দলে ঢুকতে পারছে না । যতদিন পর্যন্ত না তাদেরকে তুলে আনার ব্যবস্থা করা হচ্ছে ততদিন পযর্ন্ত বাংলাদেশ ক্রিকেটের কোন উন্নতি হবে না । ফর্মে না থাকা ক্রিকেটারদের মতো বাংলাদেশের ক্রিকেটও ধুঁকতে থাকবে ধুকতে ধুকতে এক সময় মরে ও যাবে । কিন্তু তবুও টিকে থাকবে কিছু কর্মকতা আর মামা চাচার আশীর্বাদ পুষ্ট কিছু ক্রিকেটার ।