ক্যাটেগরিঃ অর্থনীতি-বাণিজ্য

 
ডেসটিনি

ডেসটিনি জনসাধারণের কাছে থেকে নেওয়া টাকা ডেসটিনি থেকেই সরিয়ে ফেলে সেই টাকায় গড়ে তুলছে একের পর এক নতুন নতুন প্রতিষ্ঠান । আর মালিক বনে যাচ্ছেন ডেসটিনির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রফিকুল আমীন,(ডিএমডি) মোহাম্মদ গোফরানুল হক, পরিচালক (অর্থ) মোহাম্মদ সাইদ-উর রহমান, পরিচালক মেজবাহ উদ্দীন, মোহাম্মদ হোসাইন প্রমুখসহ তাদের আত্মীয়স্বজনরা ।

মাল্টিপারপাসের নামে জনগণের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা নিয়ে সেই টাকায় কেনা হচ্ছে জমিসহ আরো অনেক কিছু । কিন্তু সেই জমির জমির দলিল কার নামে,মালিক কে বা কারা ? তা কারো জানা নেই । দৈনিকে প্রকাশ, ডেসটিনি থেকে আরো অর্থ সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে ডেসটিনি গ্রুপের ডেসটিনি ২০০০, ডেসটিনি ডায়মন্ড সিটিসহ ১৩টি সহযোগী প্রতিষ্ঠান। কিনে নিয়েছে বৈশাখী নামের টেলিভিশন চ্যানেলটি ।
এখন প্রশ্ন হলো – জনগনের টাকায় গড়ে তুলা এসব প্রতিষ্ঠানের মালিকানা কি ডেসটিনির সাধারণ সদস্যরা পাবেন ? নাকি ডেসটিনি বন্ধ হয়ে যাবার পর – রফিকুল আমীন অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ফায়দা লুটবেন – তখন জনগন বসে বসে কপাল চাপড়াবে ?

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত না হয়েও ডেসটিনি শেয়ার বিক্রি করছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমতি না নিয়েই করছে ব্যাংকিং। বন বিভাগের অনুমতি না নিয়ে করছেন বনায়ন । যেনো তাদের কোন কিছু করতে কোন অনুমতি লাগে না । তারা পরোয়া করেন না কাউকে ।

মাঝেমাঝে নিজেদের মনোরঞ্জনের জন্য আয়োজন করা হচ্ছে বিনোদনের নামে নোংরা কনসার্টের । জনগনের টাকায় বেশ আছেন ডেসটিনির চেয়ারম্যান রফিকুল আমীন সহ তার পরিচালকেরা ।